Create Apple ID (Bangladesh)

আমি মাত্র ২০০ টাকায় Apple ID  খুলি। Bangladesh এর যেকোন জায়গা থেকে।
আগে টাকা না। আগে কাজ পরে টাকা।

Apple ID কি?

এ্যাপল আইডি মূলত একটি ইউজারনেম। যেটি এ্যাপলের প্রদত্ত সুবিধাসমূহ উপভোগ করার জন্য আবশ্যক। একটি এ্যাপল আইডির সাহায্যে আপনি, iTunes Store থেকে বিভিন্ন রকমের এপ্লিকেশন ডাউনলোড করতে পারবেন, iChat কিংবা iCloud এ লগ-ইন করতে পারবেন, Apple Online Store থেকে কোন কিছু কিনতে পারবেন, Apple Retail Store এ reservation দিতে পারবেন, Apple.com থেকে বিভিন্ন রকমের সহায়তা পাবেন ইত্যাদি।

Apple ID

কিন্তু অত্যান্ত দুঃখের বিষয়টি হল আমাদের দেশে পেপাল কিংবা Credit Card সহজলোভ্য না হওয়ায় আইফোন/আইপ্যাড/আইপড কেনার পর বাংলাদেশের বেশিরভাগ ব্যাবহারকারীই Apple ID খোলা নিয়ে সমস্যায় পড়েন। তবে ক্রেডিট কার্ড ছাড়াও এ্যাপল আইডি খুলা সম্ভব হলেও পদ্ধতিটি অনেকেরই অজানা।

ক্রেডিট কার্ড ছাড়াই ফ্রিতে Apple ID খোলার পদ্ধতিঃ

১। iTunes ইনস্টলঃ

Apple ID খোলার জন্য প্রথমে আপনাকে iTunes এর প্রয়োজন পড়বে।

২। iTunes চালু করে iTunes Store এ ক্লিক করুন।

Apple ID Bangladesh

৩। App Store এর ড্রপ ডাউন মেনু থেকে Great Free Apps এ ক্লিক করুন

Apple ID

৪। এবার একটি ফ্রি App পছন্দ করুন এবং Free বাটনটিতে ক্লিক করুন

৫। আইটিউনস এ আপনাকে সাইন-ইন করার জন্য বলা হবে। আপনি Create New Account এ ক্লিক করুন।

৬। Welcome উইনডো এবং Agreement পেপারে যথাক্রমে Continue এবং Agree বাটনে ক্লিক করুন।


৭। প্রয়োজনীয় তথ্যাদি দিয়ে ফরমটি ফিলাপ করুন এবং Continue করুন।

নোটঃ পাসওয়ার্ড অবশ্যই মৌলিক হতে হবে। অর্থাৎ পাসওয়ার্ডে কমপক্ষে একটি বড়হাতের অক্ষর একটি ছোটহাতের অক্ষর এবং নম্বর থাকতে হবে, আর পাসওয়ার্ডটি অবশ্যই ৮ অক্ষরের হতে হবে। (উদাহরণঃ TaRikul12345 )
৮। Payment Type থেকে None এ ক্লিক করুন এবং Billing Address গুলি নিচের স্কিনশর্টটির মত লিখুন (শুধুমাত্র নামের জায়গায় আপনার নাম লিখুন)। এবং সবশেষে Create Apple ID তে ক্লিক করুন।

৯। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আপনাকে আপনার E-Mail এড্রেসটি Verification করতে বলা হবে।

১০। আপনার ই-মেইল একাউন্টে প্রবেশ করুন এবং Apple থেকে মেইলটি ওপেন করে Verify Now > তে ক্লিক করুন।

১১। ইমেইল এড্রেসটি যাচাই করতে আপনাকে লগ-ইন করতে বলা হবে। আপনার ইমেইল এড্রেস এবং পাসওয়ার্ডটি দিয়ে লগিন করুন।

১২। সফলভাবে লগ-ইন হলে Email Address Verified ম্যাসেজ দেখাবে। Return to the Store এ ক্লিক করুন

১৩। কিছুক্ষণের মধ্যেই আপনাকে iTunes এ ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে এবং Congratulations নাকম একটি ম্যাসেজ দেখাবে। সবশেষে Start Shopping এ ক্লিক করুন।

১৪। এখন আপনি আপনার সদ্য তৈরীকৃত Apple ID দিয়ে iTunes থেকে ইচ্ছামত ফ্রি এপ্লিকেশনগুলি ডাউনলোড করতে পারবেন।

contact
Email: ipctstudent@gmail.com

Email: tt107676@gmail.com
Phone: 01982973837

http://www.techtunes.com.bd/?p=335392&preview=true

Keyboard Shortcut

Keyboard Shortcuts (Microsoft Windows)
1. CTRL+C (Copy)
2. CTRL+X (Cut)
3. CTRL+V (Paste)
4. CTRL+Z (Undo)
5. DELETE (Delete)
6. SHIFT+DELETE (Delete the selected item
permanently without placing the item in the
Recycle Bin)
7. CTRL while dragging an item (Copy the
selected item)
8. CTRL+SHIFT while dragging an item (Create
a shortcut to the selected item)
9. F2 key (Rename the selected item)
10. CTRL+RIGHT ARROW (Move the insertion
point to the beginning of the next word)
11. CTRL+LEFT ARROW (Move the insertion
point to the beginning of the previous word)
12. CTRL+DOWN ARROW (Move the insertion
point to the beginning of the next
paragraph)
13. CTRL+UP ARROW (Move the insertion point
to the beginning of the previous paragraph)
14. CTRL+SHIFT with any of the arrow keys
(Highlight a block of text)
SHIFT with any of the arrow keys (Select more
than one item in a window or on the
desktop, or select text in a document)
15. CTRL+A (Select all)
16. F3 key (Search for a file or a folder)
17. ALT+ENTER (View the properties for the
selected item)
18. ALT+F4 (Close the active item, or quit the
active program)
19. ALT+ENTER (Display the properties of the
selected object)
20. ALT+SPACEBAR (Open the shortcut menu
for the active window)
21. CTRL+F4 (Close the active document in
programs that enable you to have multiple
documents opensimultaneou sly)
22. ALT+TAB (Switch between the open
items)
23. ALT+ESC (Cycle through items in the order
that they had been opened)
24. F6 key (Cycle through the screen elements
in a window or on the desktop)
25. F4 key (Display the Address bar list in My
Computer or Windows Explorer)
26. SHIFT+F10 (Display the shortcut menu for
the selected item)
27. ALT+SPACEBAR (Display the System menu
for the active window)
28. CTRL+ESC (Display the Start menu)
29. ALT+Underlined letter in a menu name
(Display the corresponding menu) Underlined
letter in a command name on an open menu
(Perform the corresponding command)
30. F10 key (Activate the menu bar in the
active program)
31. RIGHT ARROW (Open the next menu to the
right, or open a submenu)
32. LEFT ARROW (Open the next menu to the
left, or close a submenu)
33. F5 key (Update the active window)
34. BACKSPACE (View the folder onelevel up in
My Computer or Windows Explorer)
35. ESC (Cancel the current task)
36. SHIFT when you insert a CD-ROMinto the
CD-ROM drive (Prevent the CD-ROM from
automatically playing)
Dialog Box – Keyboard Shortcuts
1. CTRL+TAB (Move forward through the tabs)
2. CTRL+SHIFT+TAB (Move backward through
the tabs)
3. TAB (Move forward through the options)
4. SHIFT+TAB (Move backward through the
options)
5. ALT+Underlined letter (Perform the
corresponding command or select the
corresponding option)
6. ENTER (Perform the command for the active
option or button)
7. SPACEBAR (Select or clear the check box if
the active option is a check box)
8. Arrow keys (Select a button if the active
option is a group of option buttons)
9. F1 key (Display Help)
10. F4 key (Display the items in the active list)
11. BACKSPACE (Open a folder one level up if a
folder is selected in the Save As or Open
dialog box)
Microsoft Natural Keyboard Shortcuts
1. Windows Logo (Display or hide the Start
menu)
2. Windows Logo+BREAK (Display the System
Properties dialog box)
3. Windows Logo+D (Display the desktop)
4. Windows Logo+M (Minimize all of the
windows)
5. Windows Logo+SHIFT+M (Restorethe
minimized windows)
6. Windows Logo+E (Open My Computer)
7. Windows Logo+F (Search for a file or a
folder)
8. CTRL+Windows Logo+F (Search for
computers)
9. Windows Logo+F1 (Display Windows Help)
10. Windows Logo+ L (Lock the keyboard)
11. Windows Logo+R (Open the Run dialog
box)
12. Windows Logo+U (Open Utility Manager)
13. Accessibility Keyboard Shortcuts
14. Right SHIFT for eight seconds (Switch
FilterKeys either on or off)
15. Left ALT+left SHIFT+PRINT SCREEN (Switch
High Contrast either on or off)
16. Left ALT+left SHIFT+NUM LOCK (Switch the
MouseKeys either on or off)
17. SHIFT five times (Switch the StickyKeys
either on or off)
18. NUM LOCK for five seconds (Switch the
ToggleKeys either on or off)
19. Windows Logo +U (Open Utility Manager)
20. Windows Explorer Keyboard Shortcuts
21. END (Display the bottom of the active
window)
22. HOME (Display the top of the active
window)
23. NUM LOCK+Asterisk sign (*) (Display all of
the subfolders that are under the selected
folder)
24. NUM LOCK+Plus sign (+) (Display the
contents of the selected folder)
MMC Console keyboard shortcuts
1. SHIFT+F10 (Display the Action shortcut
menu for the selected item)
2. F1 key (Open the Help topic, if any, for the
selected item)
3. F5 key (Update the content of all console
windows)
4. CTRL+F10 (Maximize the active console
window)
5. CTRL+F5 (Restore the active console
window)
6. ALT+ENTER (Display the Properties dialog
box, if any, for theselected item)
7. F2 key (Rename the selected item)
8. CTRL+F4 (Close the active console window.
When a console has only one console
window, this shortcut closes the console)
Remote Desktop Connection Navigation
1. CTRL+ALT+END (Open the Microsoft
Windows NT Security dialog box)
2. ALT+PAGE UP (Switch between programs
from left to right)
3. ALT+PAGE DOWN (Switch between
programs from right to left)
4. ALT+INSERT (Cycle through the programs in
most recently used order)
5. ALT+HOME (Display the Start menu)
6. CTRL+ALT+BREAK (Switch the client
computer between a window and a full
screen)
7. ALT+DELETE (Display the Windows menu)
8. CTRL+ALT+Minus sign (-) (Place a snapshot
of the active window in the client on the
Terminal server clipboard and provide the
same functionality as pressing PRINT SCREEN
on a local computer.)
9. CTRL+ALT+Plus sign (+) (Place asnapshot of
the entire client window area on the Terminal
server clipboardand provide the same
functionality aspressing ALT+PRINT SCREEN on
a local computer.)
Microsoft Internet Explorer Keyboard
Shortcuts
1. CTRL+B (Open the Organize Favorites dialog
box)
2. CTRL+E (Open the Search bar)
3. CTRL+F (Start the Find utility)
4. CTRL+H (Open the History bar)
5. CTRL+I (Open the Favorites bar)
6. CTRL+L (Open the Open dialog box)
7. CTRL+N (Start another instance of the
browser with the same Web address)
8. CTRL+O (Open the Open dialog box,the
same as CTRL+L)
9. CTRL+P (Open the Print dialog box)
10. CTRL+R (Update the current Web page)
11. CTRL+W (Close the current window)

“Bloody Hacker” Song lyrics and Download

Girl am a hacker
O yea hacker
I will hack your mind
I will hack your heart
Coz
Am bloody bloody hacker
Bloody bloody hacker
O yeah bloody bloody hacker
Am a bloody bloody hacker
I will remove your boyfriend from your mind
I will remove your love for your boyfriend
from your heart
I will make him your ex
Coz
Am a bloody bloody hacker
Bloody bloody hacker
O yeah bloody bloody hacker
Am a bloody bloody hacker
girls
I am hacker
Oh yeah hacker
You need to afraid of me
I will steal your heart
I Do with you all
I will see your dance
I will make you fall
I will touch your lips
Then what
I will delete me from your memory
Coz
Am bloody hacker
Am bloody bloody hacker
Bloody bloody hacker
O yeah bloody bloody hacker
Am a bloody bloody hacker
I will make a place for me in your mind
I will make a place for me in your heart
Then,you need to love me
Coz I wanna love you
You need to touch you
Coz I wanna touch you
Coz
Am a bloody bloody hacker
Bloody bloody hacker
Oh yeah bloody bloody hacker
Am a bloody bloody hacker
[ background playing ]
( I will hack your mind , I will hack your
heart, I will hack your mind, I will hack your
heart )
Am a bloody bloody hacker
Bloody bloody hacker
Oh yeah bloody bloody hacker
Am a bloody bloody hacker
.
.
.
.
Download
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

BIOS setting factory change Default

আমাদের কম্পিউটার ক্র্যাশ করে অথবা হার্ডওয়্যার পরিবর্তনের কারণে BIOS এর সেটিংস পরিবর্তন হয়ে যায়। তখন
আমরা ইচ্ছে করলেই BIOS সেটিংস
পূর্বে যেরকম ডিফল্ট ছিলো, আবার
সেরকমে ফিরিয়ে আনতে পারি। এই
টিউটোরিয়ালে আমি আপনাদের
দেখাবো কীভাবে তিনটি পদ্ধতিতে BIOS
সেটিংসকে ফ্যাক্টরি ডিফল্টে আনা যায়।
Bios

BIOS মেন্যু থেকে রিষ্টোর করুন
এটা সবথেকে সহজ পদ্ধতি। নীচের
ধাপগুলো লক্ষ্য করে এগিয়ে যান।
প্রথম ধাপঃ
আপনার কম্পিউটার চালু হবার সময়
উইন্ডোজের লোগো আসার মাঝের
সময়টাতে কীবোর্ডের Del, F1 or F2 বাটন চাপতে থাকুন, BIOS মেন্যু এসে যাবে। বিভিন্ন ব্র্যান্ড ভেদে Del, F1 or F2 বাটনের পার্থক্য থাকে। তবে একটু খেয়াল করলেই দেখবেন কম্পিউটার চালু হবার সময়ই BIOS সেটিংসের জন্য কোন বাটন চাপতে হবে সেটা সামান্য সময়ের জন্য স্ক্রীণে দেখিয়ে দেয়া থাকে।
দ্বিতীয় ধাপঃ
BIOS সেটিংস এ ঢুকে গেলে আপনি EXIT
মেন্যুতে চলে যান।
তৃতীয় ধাপঃ
কীবোর্ডের arrow বাটন দিয়ে Load Setup
Default সিলেক্ট করুন।
Bios2
ছবিতে দেখানো হলো। তবে এটাও বিভিন্ন
ব্র্যান্ড ভেদে ভিন্ন হতে পারে। কিন্তু একটু
খেয়াল করলেই বুঝবেন Load Setup Default
কথাটাই ভিন্নভাবে হয়তো নির্দেশ
করা হয়েছে।
চতুর্থ ধাপঃ
এবার আপনি ENTER বাটন চেপে কনফার্ম
করুন। এসময় আপনার সামনে হয়তো YES এর
Y এবং NO এর N বাটন সিলেক্ট করার অপশন
আসবে। আপনি YES এর Y বাটন চেপে উপরে
EXIT & SAVE CHANGES সিলেক্ট করে ENTER
চেপে বের হয়ে আসুন। ব্যস হয়ে গেলো!
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

বিশ্ব সেরা ১৬ স্মার্টফোন

বাজারে প্রচলিত নানা স্মার্টফোনের মধ্যে কোনটি সেরা, তা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়তে হয় ব্যবহারকারীদের। এ বিভ্রান্তি দূর
করতে সম্প্রতি বিজনেস ইনসাইডার
প্রকাশ করেছে স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে ১৬ বিশ্বসেরা মডেলের নাম।
smartPhone
১.ব্ল্যাকবেরি পাসপোর্ট
অতীতে বিশ্বের সেরা স্মার্টফোন
নির্মাতা হলেও এখন সে অবস্থা নেই
ব্ল্যাকবেরির। তবে এবার
ব্ল্যাকবেরি সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরনের
একটি স্মার্টফোন নিয়ে তাদের বাজার ও
হারানো গৌরব পুনরুদ্ধারের
আশা করছে। আর এ স্মার্টফোনটির
নাম ব্ল্যাকবেরি পাসপোর্ট।
তবে ব্যবহারকারীরা এ ফোনটি কেমন
পছন্দ করে তার ওপরই নির্ভর
করছে প্রতিষ্ঠানটির ভাগ্য।
মূল্য : আন্তর্জাতিক বাজারে এ
ফোনটির আনলক ভার্সনের দাম প্রায়
সাড়ে ৪৬ হাজার টাকা।
২. অ্যামাজন ফায়ার ফোন
অনলাইন বিক্রেতা অ্যামাজন ডট কমের
প্রথম স্মার্টফোনটির থ্রিডি ইফেক্ট
অনেকেরই খুব পছন্দ। তবে অন্যান্য
দিক দিয়ে ক্রেতাদের অনুভূতি গড়পড়তা।
মূল্য : মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান
এটিঅ্যান্ডটি এটি প্রায় ৩৫ হাজার
টাকায় বিক্রি করছে।
৩. নোকিয়া লুমিয়া ৮৩০
এটি স্মার্টফোনের বাজার দখলের
চেষ্টায় মাইক্রোসফটের মালিকানাধীন
নোকিয়ার আরেকটি চেষ্টা। উইন্ডোজ
৮ অপারেটিং সিস্টেমচালিত
স্মার্টফোনটির ৫ ইঞ্চি স্বচ্ছ স্ক্রিন
রয়েছে।
মূল্য : মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান
এটিঅ্যান্ডটি এটি প্রায় ৩৫ হাজার
টাকায় বিক্রি করছে।
৪. এইচটিসি ওয়ান এম৮ উইন্ডোজ
উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের
স্মার্টফোনের দিক দিয়ে এটি অন্যতম
সেরা। মেটাল বডি ও উইন্ডোজ ৮.১
অপারেটিং সিস্টেমযুক্ত এ
ফোনটিতে রয়েছে কর্টানা নামে ডিজিটাল
অ্যাসিস্ট্যান্ট।
মূল্য : বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এটি প্রায়
সাড়ে ৪৬ হাজার টাকায় বিক্রি করছে।
৫. স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট এজ
গ্যালাক্সি নোট এজ
অনেকটা গ্যালাক্সি নোট ৪-এর মতোই।
তবে এতে দ্বিতীয় একটি স্ক্রিন
রয়েছে সাইডে, যা ব্যবহারে অ্যাপ
চালানো আরো সহজ হবে। এ ছাড়াও
প্রধান স্ক্রিন বন্ধ থাকলে নতুন
আপডেট ও অন্য নোটিফিকেশনের তথ্য
এর মাধ্যমে পাওয়া যাবে।
মূল্য : কমপক্ষে ৭৩ হাজার ৫২১ টাকা।
৬. আইফোন ৫এস
এক বছরের পুরনো মডেল হলেও
আইফোন ৫এস এখনও ব্যবহারকারীদের
অন্যতম পছন্দের ফোন। বিশেষ
করে আপনার যদি বড় স্মার্টফোন
পছন্দ না হয় তাহলে এটি চোখ বন্ধ
করে কিনতে পারেন।
মূল্য : প্রতিষ্ঠানভেদে ৪২ হাজার
টাকা থেকে শুরু।
৭. এলজি জি৩
এলজির অন্যতম সেরা স্মার্টফোন এই
মডেলটিতে রয়েছে অত্যন্ত পরিষ্কার
স্ক্রিন। সাড়ে পাঁচ ইঞ্চি আকারের
ডিসপ্লেযুক্ত
স্মার্টফোনটি অনেকটা ফ্যাবলেটের
সঙ্গেও মিল রয়েছে। অ্যান্ড্রয়েড
অপারেটিং সিস্টেমের এ স্মার্টফোনটির
পাওয়ার ও ভলিউমের বাটন
রয়েছে পেছনে।
মূল্য : প্রায় ৪৬ হাজার টাকা।
৮. গুগল নেক্সাস ৫
গুগলের পরবর্তী মডেলের স্মার্টফোন
নেক্সাস ৬ বাজারে এলেও গত বছরের
মডেল নেক্সাস ৫ এখনও
ব্যবহারকারীদের প্রিয়।
এতে রয়েছে অরিজিনাল অ্যান্ড্রয়েড
অপারেটিং সিস্টেম। অর্থাৎ
এতে কোনো পরিবর্তন করা হয়নি,
যা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান করে থাকে। এ
স্মার্টফোনের অন্যতম দুর্বল দিক
হলো ক্যামেরা।
মূল্য : প্রায় ২৭ হাজার টাকা।
৯. সনি এক্সপেরিয়া জেড৩
সনির ফ্লাগশিপ
স্মার্টফোনটি বাজারের অন্যতম
সেরা অ্যান্ড্রয়েড ফোন।
এতে রয়েছে ঝকঝকে ৫.২ ইঞ্চি স্ক্রিন।
এ ছাড়াও পানি নিরোধক বডি ও
অসাধারণ ক্যামেরা রয়েছে এতে।
মূল্য : কমপক্ষে ৪৯ হাজার টাকা।
১০. স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৫
স্যামসাংয়ের সর্বশেষ মডেলের
ফোনটি এর আগের মডেলের চেয়ে অনেক
উন্নত। এতে আগের মডেলের বিভিন্ন
অপ্রয়োজনীয় ফিচারও বাদ
দেওয়া হয়েছে। এর স্ক্রিন দারুণ স্বচ্ছ।
এতে রয়েছে অত্যন্ত উন্নতমানের
ক্যামেরা। তবে স্মার্টফোনটির
বডি প্লাস্টিকের তৈরি হওয়ায় অনেকেরই
এটি অপছন্দ।
১১. নেক্সাস ৬
গুগলের নতুন ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন
নেক্সাস ৬। এর ৫.৯ ইঞ্চি স্ক্রিন ও
অ্যান্ড্রয়েড ললিপপ
অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীদের
দেবে স্মার্টফোন ব্যবহারের অনন্য
অভিজ্ঞতা।
মূল্য : প্রায় ৫০ হাজার টাকা।
১২. ওয়ানপ্লাস ওয়ান
সাড়ে পাঁচ ইঞ্চি স্ক্রিনের
স্মার্টফোনটিতে রয়েছে দারুণ
সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যারের
সংমিশ্রণ। তবে চীনা এ নির্মাতার
স্মার্টফোনটি আপনি ইচ্ছে করলেই
কিনতে পারবেন না। এ ফোনটির সরবরাহ
খুবই সীমিত। বর্তমানে এ
ফোনটি ব্যবহার করেন এমন
কোনো ব্যবহারকারীর আমন্ত্রণ
পেলেই কেবল ফোনটি কিনতে পারবেন
আপনি।
মূল্য : কমপক্ষে ২৩ হাজার টাকা।
১৩. মটো এক্স
বিশ্বখ্যাত মটোরোলা কোম্পানির এই
সেপ্টেম্বরে বাজারে ছাড়া স্মার্টফোনটি বাজারের
অন্যতম সেরা অ্যান্ড্রয়েড ফোন।
গুগলের নেক্সাস ফোনের মতোই
এতে রয়েছে প্রায় অবিকৃত অ্যান্ড্রয়েড
অপারেটিং সিস্টেম। এর স্ক্রিন ৫.২
ইঞ্চি।
মূল্য : কমপক্ষে ৩৯ হাজার টাকা।
১৪. এইচটিসি ওয়ান (এম৮)
এইচটিসির ফ্লাগশিপ স্মার্টফোন
এইচটিসি ওয়ান অনেক
ব্যবহারকারীর দৃষ্টিতেই
সেরা অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন। এর
ডিজাইন যেমন অসাধারণ তেমন মেটাল
ডিজাইনের বডিওযথেষ্ট মজবুত।
এতে রয়েছে ক্যামেরার
সহযোগী একটি অতিরিক্ত সেন্সর।
ফলে প্রয়জন অনুযায়ী ছবির ফোকাস
পরিবর্তন করতে পারবেন
ব্যবহারকারীরা।
মূল্য : কমপক্ষে ৪২ হাজার টাকা।
১৫. গ্যালাক্সি নোট ৪
স্যামসাং নির্মিত গ্যালাক্সি নোট
তাদের সেরা স্মার্টফোন। ৫.৭
ইঞ্চি স্ক্রিনের ফোনটিতে রয়েছে সবচেয়ে স্বচ্ছ
স্ক্রিন। এর কিনারগুলো নির্মিত
হয়েছে ধাতব পদার্থ ব্যবহার করে।
ফলে আগের ভার্সনের তুলনায়
এটি ব্যবহারকারীদের স্বস্তি দেয়।
ফ্যাবলেটের আকারে কোনো স্মার্টফোন
কিনতে চাইলে এর জুড়ি নেই।
মূল্য : কমপক্ষে ৫৮ হাজার টাকা।
১৬. আইফোন সিক্স প্লাস
আপনি যদি অ্যাপলের আইওএস
অপারেটিং সিস্টেম ও ফ্যাবলেট
একত্রে কিনতে চান তাহলে এর
জুড়ি নেই। অন্য ফ্যাবলেটের তুলনায় এর
ধাতব বডি ব্যবহারকারীদের
অনেকখানি স্বস্তি দেয়।
মূল্য : কমপক্ষে ৫৮ হাজার টাকা।
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

অ্যানোনিমাস এর ইতিহাস

BTtutorial
বর্তমানে ভার্চুয়াল দুনিয়ার ত্রাস বিশ্বের
একমাত্র মুখোশধারী এবং বিশ্বের এক নম্বর
হ্যাকিং দলের নাম ‘অ্যানোনিমাস’। শাব্দিক
অর্থে অ্যানোনিমাস মানে পরিচয়হীন। অর্থাৎ
যা কিছুর পরিচয় গোপন, সেটিই অ্যানোনিমাস।
যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের দাপুটে সব দেশের
ভার্চুয়াল নিরাপত্তা ভেঙে আতঙ্কের নাম
হয়ে উঠেছে অ্যানোনিমাস। অ্যানোনিমাস কারও
কাছে ভার্চুয়াল বিপ্লবী সংগঠন, কারও সাক্ষাৎ
আতঙ্ক! অ্যানোনিমাস
নামধারী সংগঠনটিতে আছে কারা?
১৯৮৪ সালে যাত্রা শুরু করে অ্যানোনিমাস।
যুক্তরাষ্ট্রের ক্যামব্রিজের ম্যাসাচুসেটস
ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির [এমআইটি] তিন
বন্ধু ক্রিস্টোফার ডয়ন, রিচার্ড স্টলম্যান
এবং মাইকেল প্যাটন মিলে ‘দ্য টেক মডেল
রেইলরোড ক্লাব’ নামক কম্পিউটার চালু করেন।
এই গ্রুপটিই পরবর্তী সময়ে কম্পিউটার ক্লাব
থেকে হ্যাকিং গ্রুপে রূপান্তরিত হয়। তারা খেলার
ছলে ভিডিওগেম হ্যাক করত, ক্যাম্পাসের
কম্পিউটারগুলোর কার্যক্ষমতা হ্যাক
করে বাড়িয়ে নিত। তবে ধীরে ধীরে সংগঠনটির
সদস্য সংখ্যা বাড়তে থাকে। এমআইটির দক্ষ
গ্রোগ্রামাররা ক্লাবটিতে যোগ দেন। ২০০৩
সালের ১ অক্টোবর তারা ফোরচ্যান ডট কম
নামক একটি ওয়েবসাইট চালু করেন।
ফোরচ্যানের বিশেষত্ব ছিল, এখানে সবাই
নিজের পরিচয় গোপন রেখে যে কোনো কিছু
প্রকাশ করতে পারতেন। সেখানে তারা বিভিন্ন
কার্টুন ছবি তৈরি করে পোস্ট করতের।
কার্টুনগুলো ছিল তৎকালীন সমসাময়িক
আমেরিকান জীবনযাত্রার ধরন, সামাজিক ও
রাজনৈতিক পরিস্থিতি এসবকে ব্যঙ্গ করে।
যেটি বর্তমানে ট্রোল
হিসেবে ব্যাপকভাবে পরিচিত, সেই ট্রোলের শুরু
হয়েছিল তাদের হাত ধরেই। ফোরচ্যান জনপ্রিয়
হতে শুরু করে। ২০০৭ সালের
মাঝামাঝিতে ফোরচ্যান
থেকে তারা ধীরে ধীরে দুর্নীতির প্রতিবাদ
করতে বড় পর্যায়ের হ্যাকিংয়ে নেমে পড়েন।
সর্বপ্রথম তারা এমআইটির ওয়েবসাইট হ্যাক
করে সেখানে ছাত্রদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়ার
কথা লিখে রাখেন। এরপর তাদের প্রতিবাদ
হতে থাকে আরও বৃহৎ উপায়ে। ২০০৮ সালের ১৪
জানুয়ারি ইউটিউবে ‘চার্চ অব সায়েন্টোলজি’
প্রোগ্রামের একটি ভিডিও লিক হয়,
যেখানে অভিনেতা টম ত্রুক্রজ ফোরচ্যান
ফোরাম নিয়ে ব্যঙ্গ করেছে। এর পরপরই ২১
জানুয়ারি টম ত্রুক্রজের ভিডিওটি সরিয়ে ফেলার
নির্দেশ করে ‘মেসেজ টু সায়েন্টোলজি’
নামে পরিচয়বিহীন একটি ভিডিও
ইউটিউবে প্রকাশিত হয়। এর মাধ্যমেই শুরু হয়
প্রোজেক্ট চ্যান্টোলজি। এরপর ১০
ফেব্রুয়ারি তারা ডিডিওএস অ্যাটাকের
মাধ্যমে চার্চ অব সায়েন্টোলজির অফিসিয়াল
ওয়েবসাইট ডাউন করে দেয়। সেই সময়
থেকে অ্যানোনিমাস নামটি গ্রুপের নাম
হিসেবে ব্যবহার করা শুরু করেন তারা। ‘ভি ফর
ভেনডাটা’ নামক আলোচিত হলিউড চলচ্চিত্রের
প্রধান চরিত্র গায় ফক্সের পরিধানকৃত
মুখোশটি ব্যবহার শুরু করে অ্যানোনিমাস।
গ্রুপের সদস্যরা হ্যাকটিভিস্ট
হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। হ্যাকটিভিস্ট
শব্দটি হ্যাকার এবং অ্যাক্টিভিস্ট শব্দের
মিশ্রণে তৈরি। এর অর্থ, যারা বিনা কারণে হ্যাক
করে না, প্রতিবাদের অস্ত্র
হিসেবে হ্যাকিং করে থাকে।
আস্তে আস্তে বিভিন্ন দেশে তাদের সদস্য
সংখ্যা তৈরি হতে থাকে। তখন অ্যানোনিমাস
আন্তর্জাতিক অর্থাৎ বহির্বিশ্বের
দুর্নীতিপরায়ণ দেশগুলোর সরকারের ব্যাপারেও
পদক্ষেপ নিতে শুরু করে। অ্যানোনিমাস
অস্ট্রেলিয়ার সরকারের ইন্টারনেট
নিয়ে পরিকল্পনার বিরুদ্ধে ‘অপারেশন
ডিজরাইডি’ পরিচালনা করে। তারা প্রতিবাদস্বরূপ
প্রধানমন্ত্রী কেভিন রাডের ওয়েবসাইটটি প্রায়
এক ঘণ্টার জন্য অচল করে ফেলে।
পরবর্তী সময়ে ২০১০ সালে তারা ‘অপারেশন
টিটস্ট্রোম’, ‘অপারেশন পেব্যাক’ থেকে শুরু
করে উইকিলিকসের ফান্ড বন্ধ হয়ে যাওয়ার
প্রতিবাদে বেশ বড় বড় অপারেশন চালায়। এ সময়
তারা অস্ট্রেলিয়ান সরকারি ওয়েবসাইট,
আমেরিকার মোশন পিকচার অ্যাসোসিয়েশন,
রেকর্ডিং ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন, ইন্ডিয়ান
সফটওয়্যার ফার্ম, বিভিন্ন ফাইল
শেয়ারিং সাইটসহ আরও বিভিন্ন সাইটে সাইবার
আক্রমণ চালায়। এই আক্রমণেরই পরবর্তী অংশ
হিসেবে তারা মাস্টারকার্ড, ভিসা, ব্যাংক অব
আমেরিকা এবং অ্যামাজনে সাইবার আক্রমণ
করে। ওই সময় মাস্টারকার্ড এবং ভিসা দিয়ে সব
ধরনের লেনদেন বন্ধ হয়ে পড়ে। এরপর ২০১১
সালে অ্যানোনিমাস আরব বসন্ত,
এইচবিগ্রে ফেডারেল, জিওহট
এবং ওয়ালস্ট্রিটের
বিষয়গুলো নজরে আনে এবং এই
উপলক্ষে তারা তিউনেশিয়া এবং মিশরের
সরকারি ওয়েবসাইটগুলো, সনি প্লে স্টেশন
নেটওয়ার্ক এবং এইচবিগ্রের অফিসিয়াল
ওয়েবসাইটে সাইবার আক্রমণ চালিয়ে নষ্ট
করে দেয়। এমনকি ২০১১ সালে বাংলাদেশ
সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান
নিয়ে তারা বাংলাদেশি সরকারি ওয়েবসাইটগুলোতে ব্যাপকহারে আক্রমণ
চালায়। এভাবে ধীরে ধীরে সব
দেশে তারা নিজেদের ভার্চুয়াল ক্ষমতায় দুর্নীতি,
অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ চালিয়ে যায়।
বর্তমান পরিস্থিতি এমন যে,
যে কোনো দেশে বড় কোনো অন্যায়
বা দুর্নীতি দেখা দিলে সেখানে অ্যানোনিমাস
হ্যাকার টিমের আক্রমণ সুনিশ্চিত। দুর্নীতির
বিরুদ্ধে প্রতি বছর ৫ নভেম্বর অ্যানোনিমাস
সারাবিশ্ব থেকে ‘মিলিয়ন মাস্ক মার্চ’ বের করে।
প্রতি বছর এই দিনেও তারা বড় বড় সাইবার
আক্রমণ পরিচালনা করে। প্রতিবাদের হাতিয়ার
যে হ্যাকিং হতে পারে তা দেখিয়ে দিয়েছে বিশ্বসেরা হ্যাকার
সংগঠনটি।
Don'tForget

http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

searchfeed

সূত্র :BTtutorial

WordPress

ছাগল দিয়ে যেমন কোন হাল চাষ করা যায়
না তেমন সরকারী ৩ দিন, ৭ দিন, ১ মাস, ৩ মাস এর
ট্রেনিং করে অথবা কোন সেমিনার এ গিয়ে ৪
ঘণ্টায় , ৬ ঘন্টায় ফ্রীল্যান্সার হওয়া যায় না।
প্রথম আলো জবস এইরকম
একটা ট্রেনিং নিচ্ছে যেখানে ২ দিনের ট্রেনিং এ
ফ্রীল্যান্সার বানাচ্ছে। যায় হোক ফ্রীল্যান্সার
হওয়ার ধাপ গুলা আবার বলিতেছি। এই জন্য
আপনাকে মোটামুটী ৪ বছর হাতে নিয়ে নামতে হবে।
১। প্রথমেই আপনাকে আপনার
পড়ালেখা চুকিয়ে ফেলতে হবে।
মানে ফ্রীল্যান্সিং হওয়ার চিন্তা ভাবনা করার
পরে একাডেমিক সকল চিন্তা বাদ দিতে হবে। এই
জন্য
আমি মনে করি ডিপ্লোমা তে যারা পরতেছেন
ডীপ্লোমা শেষ করে আসুন। অথবা অনার্স শেষ
করে আসুন। আর যারা HSC পর্যন্ত
পড়ালেখা করে আর পড়ার চিন্তা করতেছেন
না তারা আসুন।
২। আপনার মাথায় ঘেলু বলতে যে পদার্থ
আছে সেটা হাল্কা বেশী থাকতে হবে।
৩। ইংলিশ পড়া, বুঝা, লেখা ও বলার
দক্ষতা থাকতে হবে। মানে IELTS এ ৬ পাওয়ার
সমমান ইংলিশ স্কিল থাকতে হবে। IELTS
না দিলেও হবে তবে এইরকম স্কিল থক্তে হবে।
৪। এর পর নিজের গুগল রিসার্স করার
খমতা থাকতে হবে। টুক টাক বিষয়
নিয়ে কাউকে প্রশ্ন না করে গুগলকে প্রশ্ন
করে উত্তর বের করার খমতা থাকতে হবে।
৫। এর পর মার্কেট প্লেস
গুলোতে ঘুরে ঘুরে বর্তমান কাজের
অবস্থা জানতে হবে।
৬। এর পর যেই কাজ ভালো লাগে সেই কাজ
নিয়ে পড়ালেখা শুরু করতে হবে। যেমন মার্কেটিং,
ডিজাইন, প্রগ্রামিং। সেটাই ভালো লাগে সেটাই
শুরু করতে হবে। কোন সিনিয়র এর
কাছে জিজ্ঞেস করা যাবেনা। ভাই
কোনটা নিলে ভালো হয়? এই কোয়েশ্চেন
করা মানেই বুঝতে হবে আপনার দ্বারা হবেনা।
আপনার ভালোলাগা যেটা সেটাতেই করতে হবে।
এইখানে জোর করে আপনার উপর
চাপিয়ে দেওয়ার মত কিছুই না।
৭। এর পর অনলাইনে সেই বিষয়ে টেক্সট
টিউটোরিয়াল, ভিডিও টিউটোরিয়াল দেখা শেষ
করতে হবে।
৮। এর পর কোন ভালো কোচিং সেন্টারে গিয়ে ঐ
বিষয়ে ট্রেনিং নিতে হবে।
ক্লাসে যা পড়ানো হবে তা খুব
ভালো ভাবে প্রাট্রিক্স করতে হবে।
৯। কোর্স শেষ করে আপনাকে কোন
কোম্পানি বা ভালো ফ্রীল্যান্সার এর
অধিনা অন্তত ৬ মাস ইন্টারনি করতে হবে।
ইন্টারনি করার সময় আপনি বেতন পাবেন না।
তবে সেখানেই ইন্টারনি করবেন যেখানে কাজ
শেখার পরিবেশ আছে। যেখানে সিনিয়র নাই
বা কাজ শেখার পরিবেশ নাই অথবা যেখানে সিনিয়র
আছে কিন্তু হেল্পফুল মাইন্ডের না সেখানে কোন
ইন্টারনি করলে হবেনা।
১০। এর পর কোন কোম্পানিতে জুনিয়র
হিসাবে জয়েন করতে হবে। সেখানে অন্তত ১ বছর
কাজ করতে হবে।
১১। এর পর মিড লেভেল ডেভলপার হিসাবে অন্তত
১ বছর কাজ করতে হবে।
১২। ১ বছর কাজ করার পরে এর পর মার্কেট
প্লেসে একাউন্ট খুলে সব
পরিক্ষা দিয়ে ফেলতে হবে।
১৩। এর পর ৬ মাস জব করার
পাশাপাশি ফ্রীল্যান্সিং করতে হবে। এই সময়
যদি ক্লাইন্টের সাথে কমিউনিকেশন
না করতে পারেন, ক্লাইন্টের রিকোয়ারমেন্ট
না বুঝেন
তাহলে বুঝতে হবে আপনি এখোনো ম্যাচিউর না।
আরো ২ বছর কাজ করতে হবে। এর আর সাক্সেস
হইলে ভাব্বেন আপনি ফ্রীল্যান্সার হওয়ার জন্য
রেডি।
১৪। এর পরে জব ছেরে দিয়ে ফ্রীল্যান্সিং শুরু
করতে হবে।
এই পুরো প্রক্রিয়াতে ৪ বছর সময় লাগবে।
এই স্টাটাস দেওয়ার পরে হাজারো পুলাপান
আমাকে ম্যাসেজ দিবে ভাই আমি কি পারবো? ভাই
আমি অমুক পাশ আমি কি ফ্রীল্যান্সিং শুরু
করতে পারবো? ভাই কোন কাজ
করলে ভালো হয়? কোন কাজের ডিমাণ্ড কত?
ভাই কিভাবে শুরু করবো? ভাই আপনার ইঙ্কাম
কত? ইত্যাদি। তো যারাই এই টাইপের কোয়েশ্চেন
করবে তারাই ফ্রীল্যান্সিং পারবেনা।
যারা নিজে নিজে উপরের প্রসিডিউর
ফলো করে কাজ করবে তারাই পারবে। Www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

Facebook Magic Code

Blue comment
@@*[1:[0:1:Your Text]]
Blank comment
@*[0:]
Name mention
@*[idno:]
ARROW
[*[518743568233542]]
EYES
[*[380422205397255]]
LINES
[*[180260102152722]]
[*[192236564308411]]
[*[f9.party]]
[[*10150187295290422]]
LIKE
[*[379083068864502]]
(*Y)Greenlike
[*[greenylike]]
[[*f9.cash]]
[[*f9.coffee1]]
[[*f9.cry]]
[[*f9.dull]]
[[*f9.punch]]
[[*f9.rain1]]
[[*f9.redflower1]]
[[*f9.rofl1]]
[[*f9.think]]
like unlike codes
*[[185136428331756]]
*[[185136504998415]]
*[[185136621665070]]
*[[185136741665058]]
*[[185136934998372]]
*[[185137038331695]]
*[[185137114998354]]
*[[185137224998343]]
*[[185201241658608]]
*[[185206241658108]]
*[[185206391658093]]
*[[185206591658073]]
*[[185206741658058]]
*[[185206828324716]]
*[[185206981658034]]
*[[185207171658015]]
*[[185207254991340]]
*[[185207358324663]]
*[[185207474991318]]
*[[185207618324637]]
*[[185214564990609]]
*[[185136231665109]]
*[[185136351665097]]
*[[185214564990609]]
*[[185136231665109]]
[*[red]]
[*[blue]]
[*[black]]
[*[green]]
[*[yello]]
[*[pink]]
[*[white]]
[*[king]]
[*[red]]
[*[rock]]
[[*indiaflag]]
[[angrybirds*]]
[[airtel*]]
[[vodafone*]]
[[idea*]]
[[Gmail*]]
[[Google*]]
[[Yahoo*]]
[[Facebook*]]
[[whatsapp*]]
[[Skype*]]
[[Opera*]]
[[Mozilla*]]
[[Nokia*]]
[[HTC*]]
[[Sony*]]
[[Apple*]]
Remove * And Comment
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

12 Simple Steps To Become A Hacker

Hacking is an engaging field but it is surely
not easy. To become a hacker one has to
have an attitude and curiosity of learning and
adapting new skills. You must have a deep
knowledge of computer systems,
programming languages, operating systems
and the journey of learning goes on and on.
Some people think that a hacker is always a
criminal and do illegal activities but they are
wrong. Actually many big companies hire
hackers to protect their systems and
information and are highly paid. We have
prepared a list of 12 most important steps
necessary to become a hacker, have a deeper
look
Full Version
1. Learn UNIX/LINUX
linux operating system
UNIX/LINUX is an open source operating
system which provides better security to
computer systems. It was first developed by
AT&T in Bell labs and contributed a lot in the
world of security. You should install LINUX
freely available open source versions on your
desktops as without learning UNIX/LINUX, it
is not possible to become a hacker.
Start Learning Linux
2. Code in C language
c programming
C programming is the base of learning UNIX/
LINUX as this operating system is coded in C
programming which makes it the most
powerful language as compared to other
programming languages. C language was
developed by Dennis Ritchie in late 1970’s. To
become a hacker you should master C
language.
3. Learn to code in more than one
Programming Language
programming languages
It is important for a person in the hacking
field to learn more than one programming.
There are many programming languages to
learn such as Python, JAVA, C++. Free eBooks,
tutorials are easily available online.
Top 6 Websites To Learn Computer
Programming Languages
4. Learn Networking Concepts
computer networking
Another important and essential step to
become a hacker is to be good at networking
concepts and understanding how the
networks are created. You need to know the
differences between different types of
networks and must have a clear
understanding of TCP/ IP and UDP to exploit
vulnerabilities (loop holes) in system.
Understanding what LAN, WAN, VPN, Firewall
is also important.
You must have a clear understanding and use
of network tools such as Wireshark, NMAP for
packet analyzing, network scanning etc.
5. Learn More Than One Operating Systems
operating system
It is essential for a hacker to learn more than
one operating system. There are many other
Operating systems apart from Windows,
UNIX/LINUX etc. Every system has a loop hole,
hacker needs it to exploit it.
6. Learn Cryptography
cryptography encryption
To become a successful hacker you need to
master the art of cryptography. Encryption
and Decryption are important skills in
hacking. Encryption is widely done in several
aspects of information system security in
authentication, confidentiality and integrity
of data. Information on a network is in
encrypted form such as passwords. While
hacking a system, these encrypted codes
needs to be broken, which is called
decryption.
Decrypting Window 7 Password Using
Ophcrack
7. Learn more and more about hacking
hacking or hackers
Go through various tutorials, eBooks written
by experts in the field of hacking. In the field
of hacking, learning is never ending because
security changes every day with new updates
in systems.
Hackers Underground Hand Book Completely
Free
Hacking For Begineers Free Ebook
8. Experiment A Lot
experiment
After learning some concepts, sit and practice
them. Setup your own lab for experimental
purpose. You need a good computer system
to start with as some tools may require
powerful processor, RAM etc. Keep on Testing
and learning until you breach a system.
9. Write Vulnerability (Loop hole program)
hacking vulnerability
Vulnerability is the weakness, loop hole or
open door through which you enter the
system. Look for vulnerabilities by scanning
the system, network etc. Try to write your
own and exploit the system.
6 Most Common Password Cracking Methods
And Their Countermeasures
10. Contribute To Open Source Security
Projects
open source software
An open source computer security project
helps you a lot in polishing and testing your
hacking skills. It’s not a piece of cake to get it
done. Some organizations such as MOZILLA,
APACHE offer open source projects. Contribute
and be a part of them even if your
contribution is small, it will add a big value to
your field.
11. Continue never ending Learning
learning hacking
Learning is the key to success in the world of
hacking. Continuous learning and practicing
will make you the best hacker. Keep yourself
updated about security changes and learn
about new ways to exploit systems
12. Join Discussions and meet hackers
discussion
Most important for a hacker is to make a
community or join forums, discussions with
other hackers worldwide, so that they can
exchange and share their knowledge and
work as a team. Join Facebook groups related
to hacking where you can get more from
experts. http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial
Copy formFacebook

searchfeed

গুগলে কাজ করতে ইচ্ছুক

চলুন তাহলে, দেখে নেওয়া যাক গুগলের কিছু
প্রাথমিক যোগ্যতার সংক্ষিপ্ত বিবরণ:
১. প্রোগ্রামিং শেখা: অন্তত
একটি প্রোগ্রামিং ভাষায়
থাকতে হবে কাজে লাগানোর মত জ্ঞান।
হতে পারে সেটি পাইথন কিংবা সি,
হতে পারে সি++। অনলাইনেও এসব
প্রোগ্রামিং ভাষা শেখার অনেক সুযোগ
আছে।
২. কোড পরীক্ষা করে ত্রুটি বের করা: কেবল
কোডিং করা জানলেই চলবে না, কোড লিখার
পর সেটিকে বাস্তবে প্রয়োগ
করে সেখানে থাকা ত্রুটি বের করার ক্ষমতাও
থাকতে হবে।
৩. গণিত সম্পর্কে ধারণা: গণিতের বিভিন্ন
শাখা যেমন- বিচ্ছিন্ন গণিত
বিষয়ে থাকতে হবে কাজ চালিয়ে নেওয়ার মত
জ্ঞান। কারণ
প্রোগ্রামিং বিষয়ে রয়েছে গণিতের বিস্তর
ব্যবহার।
৪. অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে কাজ করা:
অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে কাজ করার আগ্রহ
থাকতে হবে। কারণ যেকোনো কাজেই
ব্যবহার করতে হবে কোন না কোন
অপারেটিং সিস্টেম।
৫. কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার বিষয়ে ধারণা:
গুগলের অত্যন্ত পছন্দের একটি বিষয়
রোবট। আর তাই রোবট
বিষয়ে ধারণা এবং জানার আগ্রহ
থাকতে হবে।
৬. অ্যালগরিদম এবং ডেটা স্ট্রাকচার: গুগল
নানা ধরণের ডেটা টাইপ এবং ডেটা স্ট্রাকচার
নিয়ে কাজ করে। আর তাই সেখানে কাজ
করতে আগ্রহী একজন তরুণের কাছেও এই
বিষয়ে বিশদ জ্ঞান আশা করে প্রতিষ্ঠানটি।
৭. ক্রিপ্টোগ্রাফি: সাইবার
নিরাপত্তা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর তাই
গুগলে কাজ
করতে চাইলে ক্রিপ্টোগ্রাফি বিষয়ে দক্ষতা থাকা প্রয়োজন।
৮. কম্পাইলার তৈরি করা: স্ট্যানফোর্ডের
মতে, যখন আপনি একটি কম্পাইলার
তৈরি করতে পারবেন, তখন
আপনি জানতে পারবেন কিভাবে একটি হাই
লেভেল প্রোগ্রামিং ভাষা লো-লেভেল
প্রোগ্রামিং ভাষায় পরিণত হয়।
৯. অন্য প্রোগ্রামিং ভাষার উপর দক্ষতা
অর্জন: আপনি যে প্রোগ্রামিং ভাষায় দক্ষ,
সেটির পাশাপাশি অন্য প্রোগ্রামিং ভাষায়
দক্ষতা অর্জন করা জরুরী, অন্তত
গুগলে চাকুরী পেতে হলে।
১০. প্যারালাল প্রোগ্রামিং:
একইসাথে একাধিক প্রোগ্রামিংয়ের কাজ
চালিয়ে নিতে পারা বাড়তি দক্ষতা হিসেবেই
বিবেচনা করা হয় গুগলে।google work place
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

searchfeed

বুট বা C: ড্রাইভ এর সাথে অন্য কোন ড্রাইভ বা ফ্রী স্পেস অ্যাড করার নিয়ম

আমরা অনেকই জানি বুট বা C: ড্রাইভ এর
সাথে অন্য কোন ড্রাইভ বা ফ্রী স্পেস অ্যাড
করা যায়না ,
আর অ্যাড করলেও তা আর অ্যাড
হয়না বরং উইন্ডোজ কে নষ্ট করে দেয়
এবং একটা ইরর মেসেজ দেয় স্ক্রীন এ …
ছবিতে তার একটি উদাহরণ দেওয়া হলো—
তা হলে কি আমরা এই সমস্যার সমাধান
পাবোনা ??

BTtutorial
হ্যাঁ আমরা সমাধান পাবো-
যা যা করনীয় —
১। আপনার উইন্ডোজ ডিস্ক আপনার কম্পিউটার
এ প্রবেশ করাতে হবে ।
২।আপনি যে ভাবে উইন্ডোজ সেটআপ দেন ঠিক
ওই ভাবে ১ থেকে ২য় স্টেপ পর্যন্ত
এগিয়ে জেতে হবে ।
৩। Windows install / Install windows এর
নিচে আপনি দেখবেন যে Windows repair /
repair your computer নামের একটা অপশন
আছে, সেটাই যান।
৪। আপনাকে এখন windows installation
ড্রাইভার সিলেক্ট করতে বলবে, আপনি (c:\)
সিলেক্ট করবেন(usually).
৫। নেক্সট এ ক্লিক করবেন।
৬।অনেক অপশন আসতে পারে ।।
এবং আসবে লিস্ট আকারে , আপনাকে Command
Prompt সিলেক্ট করতে হবে ।
৭। এবং নিচে দেওয়া কিছু কোড লিখে এন্টার চাপ
দিলে হই যাবে ।।
[
Bootrec /fixmbr
Bootrec /fixboot
Bootrec /rebuildcd
]
সব কাজ শেষ হলে Restart দিলে দেখবনে আপনার
কম্পিউটার আবার আগের মতো ।
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

searchfeed

একাত্তরের মা জননী

১৯ তারিখে মুক্তি পেতে যাচ্ছে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘একাত্তরের মা জননী’।
ekatturer
ছবিটি পরিচালনা করেছেন শাহ আলম কিরণ।
খ্যাতিসম্পন্ন রাইটার আনিসুল হকের
‘জননী সাহসিনী ১৯৭১’ অবলম্বনে নির্মিত
হয়েছে এই ছবিটি। এর নাম ভূমিকায় অভিনয়
করেছেন এই প্রজন্মের
অভিনেত্রী চিত্রনায়িকা নিপুন। এই
ছবিটিতে তাকে দেখা যাবে তিন রূপে।
২০১২ অর্থবছরে সরকারি অনুদান প্রাপ্ত
‘একাত্তরের মা জননী’ ছবির প্রেক্ষাপট
হলো, মূলত মুক্তিযুদ্ধের আগের,
মুক্তিযুদ্ধের সময় এবং মুক্তিযুদ্ধের
পরবর্তী ঘটনাবলি নিয়ে। ছবিটির শুটিং শুরু হয়
২০১৩ সালের ১৬ অগাস্ট।
ছবিটির পরিচালক শাহ আলম কিরণ বলেছেন,
‘ছবির শ্যুটিং, ডাবিং, এমনকি এডিটিংও শেষ।
এখন শুধু ফাইনাল কাটের কাজ চলছে। এর
পরপরই সেন্সর
বোর্ডে ছবিটি জমা দেওয়া হবে।’
শাহ আলম কিরণ আরও বলেন, ‘ছবিটি বিজয়
দিবসের দিন মুক্তি দিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু
শুক্রবার হবার কারণে ১৯ ডিসেম্বরই
ছবিটি মুক্তির তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।
আশা করছি কথা রাখতে পারবো।’
‘একাত্তরের মা জননী’ ছবিতে নিপুণ ও আগুন
ছাড়াও অভিনয় করছেন চিত্রলেখা গুহ, ম. ম.
মোর্শেদ, গুলশান আরা, রাকিব, মিশু, আবদুল
হালিম আজিজ, স্বরণ, মোরশেদ আলম,
এলিনা পারভেজ, লিখন, মাহবুব, রিমা,
ঈষিতা পায়েল, সোমা ফেরদৌস, মিমা জামান
তিথি, পৃথু, সারোয়ার আলম সৈকত, জুয়েল,
এবং সাজু মেহেদী, মনিকা, সুমাইয়া, সোহানসহ
বেশ কয়েকজন শিশুশিল্পী।
পরিচালক শাহ আলম কিরণ মনে করেন,
‘এবারের ডিসেম্বরে মুক্তিযুদ্ধের
কাহিনী নিয়ে নির্মিত এই ছবিটি ব্যবসা করবে।
আমি আশাবাদি দর্শকদের মন জয়
করতে সমর্থ হবে ‘একাত্তরের মা জননী’।’

searchfeed

http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত কিছু শব্দের পূর্ণরূপ

১। HTTP এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Transfer
Protocol.
২। HTTPS এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Transfer
Protocol Secure.
৩। IP এর পূর্ণরূপ— Internet Protocol.
৪। URL এর পূর্ণরূপ — Uniform Resource
Locator.
৫। USB এর পূর্ণরূপ — Universal Serial Bus.
৬। VIRUS এর পূর্ণরূপ — Vital Information
Resource
Under Seized.
৭। SIM এর পূর্ণরূপ — Subscriber Identity
Module.
৮। 3G এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation.
৯। GSM এর পূর্ণরূপ — Global System for
Mobile
Communication.
১০। CDMA এর পূর্ণরূপ — Code Divison Multiple
Access.
১১। UMTS এর পূর্ণরূপ — Universal Mobile
Telecommunication
System.
১২। RTS এর পূর্ণরূপ — Real Time Streaming
১৩। AVI এর পূর্ণরূপ — Audio Video Interleave
১৪। SIS এর পূর্ণরূপ — Symbian OS Installer
File
১৫। AMR এর পূর্ণরূপ — Adaptive Multi-Rate
Codec
১৬। JAD এর পূর্ণরূপ — Java Application
Descriptor
১৭। JAR এর পূর্ণরূপ — Java Archive
১৮। MP3 এর পূর্ণরূপ — MPEG player lll
১৯। 3GPP এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation
Partnership
Project
২০। 3GP এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation Project
২১। MP4 এর পূর্ণরূপ — MPEG-4 video file
২২। AAC এর পূর্ণরূপ — Advanced Audio
Coding
২৩। GIF এর পূর্ণরূপ — Graphic
Interchangeable
Format
২৪। BMP এর পূর্ণরূপ — Bitmap
২৫। JPEG এর পূর্ণরূপ — Joint Photographic
Expert
Group
২৬। SWF এর পূর্ণরূপ — Shock Wave Flash
২৭। WMV এর পূর্ণরূপ — Windows Media
Video
২৮। WMA এর পূর্ণরূপ — Windows Media
Audio
২৯। WAV এর পূর্ণরূপ — Waveform Audio
৩০। PNG এর পূর্ণরূপ — Portable Network
Graphics
৩১। DOC এর পূর্ণরূপ — Document (Microsoft
Corporation)
৩২। PDF এর পূর্ণরূপ — Portable Document
Format
৩৩। M3G এর পূর্ণরূপ — Mobile 3D Graphics
৩৪। M4A এর পূর্ণরূপ — MPEG-4 Audio File
৩৫। NTH এর পূর্ণরূপ — Nokia Theme(series
40)
৩৬। THM এর পূর্ণরূপ — Themes (Sony
Ericsson)
৩৭। MMF এর পূর্ণরূপ — Synthetic Music Mobile
Application File
৩৮। NRT এর পূর্ণরূপ — Nokia Ringtone
৩৯। XMF এর পূর্ণরূপ — Extensible Music File
৪০। WBMP এর পূর্ণরূপ — Wireless Bitmap
Image
৪১। DVX এর পূর্ণরূপ — DivX Video
৪২। HTML এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Markup
Language
৪৩। WML এর পূর্ণরূপ — Wireless Markup
Language
৪৪। CD এর পূর্ণরূপ — Compact Disk.
৪৫। DVD এর পূর্ণরূপ — Digital Versatile Disk.
৪৬। CRT — Cathode Ray Tube.
৪৭। DAT এর পূর্ণরূপ — Digital Audio Tape.
৪৮। DOS এর পূর্ণরূপ — Disk Operating System.
৪৯। GUI এর পূর্ণরূপ — Graphical User
Interface.
৫০। ISP এর পূর্ণরূপ — Internet Service
Provider.
৫১। TCP এর পূর্ণরূপ — Transmission
Control Protocol.
৫২। UPS এর পূর্ণরূপ — Uninterruptible Power
Supply.
৫৩। HSDPA এর পূর্ণরূপ — High Speed
Downlink
Packet Access.
৫৪। EDGE এর পূর্ণরূপ — Enhanced Data Rate
for
GSM [Global System for Mobile
Communication]
৫৫। VHF এর পূর্ণরূপ — Very High Frequency.
৫৬। UHF এর পূর্ণরূপ — Ultra High Frequency.
৫৭। GPRS এর পূর্ণরূপ — General Packet Radio
Service.
৫৮। WAP এর পূর্ণরূপ — Wireless
Application Protocol.
৫৯। ARPANET এর পূর্ণরূপ — Advanced
Research
Project Agency Network.
৬০। IBM এর পূর্ণরূপ — International Business
Machines.
৬১। HP এর পূর্ণরূপ — Hewlett Packard.
৬২। AM/FM এর পূর্ণরূপ — Amplitude/
Frequency
Modulation.
৬৩। WLAN এর পূর্ণরূপ — Wireless Local Area
Network

searchfeed
Anisur Rahaman
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

Secure Your Facebook ID

১. আপনার ফেসবুকের পাসওয়ার্ড অন্য কারো
সঙ্গে, এমনকি অতি কাছের মানুষের সঙ্গেও
শেয়ার করবেন না। কেননা ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি
একান্তই আপনার। এছাড়া কোনো লোভনীয়
লিঙ্ক দিয়ে আপনার ফেসবুকের আইডি আর
পাসওয়ার্ড দিতে বলা হলে, এসব ফাঁদে পা দিতে
যাবেন না।
ফেসবুকের আইডি পাসওয়ার্ড দিন কেবল
http://www.facebook.com ঠিকানায়। এছাড়া অন্য
কোনো লিংকে লগইন করবেন না। অন্যথায়
পিশিংয়ের শিকার হবেন। চ্যাটে বা পোস্টে কেউ
কিছু পাঠালে জিজ্ঞেস করে নিন লিংক বা
ফাইলটি কিসের? ফাইলগুলো ক্লিক করার আগে
অনলাইন স্ক্যানার দিয়ে চেক করে নিতে পারেন।
অনলাইন স্ক্যানারের মধ্যে খুব ভাল একটি সাইট
ভাইরাস টোটাল। http://www.virustotal.com
সাইটটিতে গিয়ে আপনার ফাইলটি স্ক্যান করে
নিন। এছাড়া আপনার ব্রাউজারটি সব সময়
আপডেটেট রাখুন।
২. ফেসবুকে আজেবাজে অ্যাপস ব্যাবহার
করবেন না। ফেসবুকে বিভিন্ন মজার গেমস,
ফানসহ আরো অ্যাপস আমরা দেখতে পাই।
কিন্তু এসব অ্যাপস চালু করার ফলে ফেসবুক
অ্যাকাউন্টের অনেক তথ্য অ্যাকসেস করার
অনুমতিও দিয়ে দিতে হয়। ফলে ব্যক্তিগত তথ্য
আর নিরাপদ থাকেনা। তাই অ্যাপস চালানোর
আগে ভালভাবে বুঝে নিন। অপ্রয়োজনীয়
অ্যাপসগুলো ডিজঅ্যাবল করে দিন।
৩. ফেসবুকে অ্যাকাউন্টের মেইন বা প্রাইমারি
ইমেইলের পাশাপাশি আরেকটি ইমেইল যোগ
করুন, যা সেকেন্ডারি ইমেইল হিসেবে থাকবে। যদি
কোনো কারণে ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি হ্যাক হয়ে
যায় সেক্ষেত্রে আপনার সেকেন্ডারি ইমেইল
দিয়ে ফেসবুক আইডি রিকভার করতে পারবেন।
এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
৪. ফেসুবকে আপনার পাসওয়ার্ড যদি হয়
১২৩৪৫৬ বা আপনার নিজের ফোন নম্বর, নাম,
রোল নম্বর, প্রিয়জনের নাম, তাহলে
পাসওয়ার্ড দেওয়া আর না দেওয়া একই কথা।
কেননা এর ফলে যে কোনো মুহূর্তে হ্যাক হয়ে
যেতে পারে আপনার প্রিয় অ্যাকাউন্টটি।
পাসওয়ার্ড দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যবহার করুন
ইউনিক কিছু যা অন্যের অনুমানের বাইরে এবং তা
অবশ্যই এনক্রিপ্টেট করে দেবেন। আর
পাসওয়ার্ডটি এক মাস পর পর বা ১৫ দিন পর পর
পরিবর্তন করুন ।
৫. লগইন অ্যাপ্রুভাল চালু করুন। এর ফলে
আপনার পাসওয়ার্ড কেউ জানলেও আর হ্যাক
হবে না আপনার অ্যাকাউন্ট। ফেসবুকের একটি
দারুন এবং কার্যকর অপশন হচ্ছে লগইন
অ্যাপ্রুভাল। এটি হচ্ছে, এমন একটি সিকিউরিটি
ব্যবস্থা, যেখানে দুটি স্তরে আপনার অ্যাকাউন্ট
যাচাই করা হবে। প্রথমে আপনি ঠিক ঠাক
পাসওয়ার্ড দিতে পারলে তারপর আপনার ফোনে
এসএমএসের মাধ্যমে একটি সিকিউরিটি কোড
পাঠানো হবে। যা শুধু আপনার ফোনেই আসবে।
যতক্ষণ পর্যন্ত ফোনে আগত কোডটি আপনি
না দিচ্ছেন ততক্ষণ আপনার অ্যাকাউন্টে লগইন
করা যাবে না। সুতরাং আপনার অ্যাকাউন্ট আপনি
ছাড়া আর কেউ লগইন করতে পারবেনা। যখনই
ভিন্ন কোনো ডিভাইস থেকে আপনার
অ্যাকাউন্টে লগইন করার চেষ্টা করা হবে তখনই
আপনার ফোনে সিকিউরিটি কোড আসবে এবং
ফেসবুক স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনাকে জানিয়ে
দেবে, কেউ একজন আপনার অ্যাকাউন্ট লগইন
করার চেষ্টা করছে।
যেভাবে চালু করবেন লগিন অ্যাপ্রুভাল:
Settings>Security>Log In Approvals>Edit এ
যান।
লগইন অ্যাপ্রুভাল চালু করার পর, আপনার
ডিভাইসটি যদি পারসোনাল হয়, তাহলে ব্রাউজার
সেভ করে নিন। এতে বার বার আপনার কাছে
কোড চাইবেনা। তবে অন্য কোনো ডিভাইস
থেকে লগইন করতে চাইলেই আপনার ফোনে
একটি কোড আসবে এবং এ কোড ছাড়া কোনো
অবস্থাতেই লগইন করা যাবে না। পাশাপাশি
আপনার কাছে একটি ইমেইলও চলে যাবে যে,
কেউ অন্য ডিভাইস থেকে আপনার অ্যাকাউন্ট
লগইন করার চেষ্টা করছে। এক্ষেত্রে আপনার
করণীয় কী, তা ইমেইলে ফেসবুক বলে দেবে।
৬. কোড জেনারেটর চালু করুন। ধরুন আপনি
লগইন অ্যাপ্রুভাল চালু করলেন। কিন্তু আপনার
ফোন নেটওয়ার্কের বাইরে বা আপনার ফোন
নষ্ট হয়ে গেছে। এক্ষেত্রে ইউজ করতে পারেন
কোড জেনেরাটর। যেখানে আপনাকে বেশ কিছু
কোড দেওয়া হবে এবং কোড চাইলে এই কোড
দিয়ে লগইন করতে পারবেন । তবে এটি চালু করার
জন্য Settings>Security>Code Generator
>Edit এ যান। কোড জেনারেটর চালু করার পর
কিছু কোড দেয়া হবে যেগুলো সংরক্ষণ করা
লাগবে।
৭. লগিন সেশন চেক করুন। ফেসবুক আপনার
লগইন এর সময় আপনি কোনো অপারেটিং
সিস্টেম ব্যবহার করছেন, কোন লোকেশন থেকে,
কোন ডিভাইস দিয়ে তা আপনার সুবিধার্থে জমা
রাখে। যা আপনি প্রতিনিয়ত চেক করে বুঝতে
পারবেন আপনার অ্যাকাউন্ট অন্য কেউ ব্যবহার
করছে কিনা। এজন্য Settings>Security>Where
You`re Logged In >Edit এ যান। এবার আপনি
যে লোকেশনে সর্বশেষ ব্রাউজিং করেছেন,
আপনার ওএস, সময় দেখাবে। যদি দেখেন মিল
নেই, তাহলে ধরে নেবেন আপনার অ্যাকাউন্টটিতে
অন্য কেউ প্রবেশ করছে। এরকম কিছু দেখলে
End Activity তে ক্লিক করুন। অর্থ্যাৎ ঐ
সেশনটি বাতিল হয়ে যাবে। এরকম সেশন একটি
চালু রাখুন। বাকীগুলো End Activity দিয়ে বন্ধ
করে দিন।
৮. ফেসবুক ব্যবহার শেষে সবসময় লগ-আউট
করুন। অনেকে সাইবার ক্যাফে বা বন্ধুর মোবাইল
বা পিসি থেকে লগইন করার পর আর লগআউট
করেন না। এতে বেহাত হতে পারে আপনার
অ্যাকাউন্টটি। তাই অন্য ডিভাইস থেকে ব্যাবহার
করার পর অবশ্যই লগআউট করে নেবেন।
৯. আপনার ই-মেইল ঠিকানাটিও অনেক
গুরুত্বপূর্ণ। তাই এটিকেও টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন
দিয়ে রাখুন যাতে কেউ লগইন করলেও সিকিউরিটি
কোড আপনার ফোনে আসে এবং আপনি ছাড়া
আর কেউ লগইন করতে না পারে।
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

searchfeed

Google Adsense approval

You should keep in mind the following points
before applying to Google Ad sense:
1. Use the top level domain.
2. Select a good place hosting.
3. Use theme with white background.
Premium theme will be best. Check the theme
before using. Install Theme Authenticity
Checker (TAC) plug-in to check your theme.
4. Better to use a Nish blog. Google will like it.
5. You must write unique content. At least it
should be between 300-400 words content.
The chances will be more if your site is in
English.
High Quality Content
Article rewriting tips
6. At least you should have 20-30 posts.
7. No blank page should be there.
8. Must use copy write free images.
9. In your website, you must have these three
pages- About page ,contact page and Private
policy page .
10. Your website should have Google
indexing.
11. Any dirty content,
drugs ,gambling ,Google products and
hacking related contents will not get
approval.
12. Your site should be 3-4 months old.
13. You should have clear page navigation.
14. Before applying to Ad sense ,you should
disable other Ads.
15. After applying to Ad sense before getting
approval (review time), you must not enter
the back end of the site, must not post
anything . If yours is a hosted Ad sense
account then don’t log in .
If you apply by following the above
mentioned rules, then there is 99% chance to
get your Ad sense account.

searchfeed

http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

কিছু মূলবান কথা

যে জাতি তার বাচ্চাদের বিড়ালের ভয় দেখিয়ে ঘুম
পাড়ায়, তারা সিংহের সাথে লড়াই
করা কিভাবে শিখবে? যারা পানিতে ডুবে যাওয়ার
ভয়ে তার সন্তানকে ডোবায় নামতে দেন না,
কিভাবে সে সন্তান আটলান্টিক পাড়ি দিবে!
® শেরে বাংলা এ. কে. ফজলুল হক
প্রতিটি মেয়েই নিষ্ঠুর হবার অসীম
ক্ষমতা নিয়ে জন্মায়।
® হুমায়ুন আহমেদ
কিছু কিছু মানুষ আছে যাদের দেখে একই
সাথে আনন্দ আর কষ্ট দুইই অনুভব হয়।
না পারা যায় আনন্দ উপভোগ করতে, না পারা যায়
কষ্ট ভুলে থাকতে।
বিব্রতকর !!
® যাযাবর
প্রেমে পড়া মানে নির্ভরশীল হয়ে পড়া। তুমি যার
প্রেমে পড়বে সে তোমার জগতের একটা বিরাট
অংশ দখল করে নেবে।
যদি কোনো কারনে সে তোমাকে ছেড়ে চলে যায়
তবে সে তোমার জগতের ঐ বিরাট অংশটাও
নিয়ে যাবে।
তুমি হয়ে পড়বে শূণ্য জগতের বাসিন্দা….
® হুমায়ূন আহমেদ
যে ভালবাসার পেছনে কোন উদ্দেশ্য বা স্বার্থ
থাকে না, সে ভালবাসা হয় দীর্ঘস্থায়ী।
® যাযাবর
মানুষ মানুষের কথা খুব দ্রুত ভুলে যায়।
® হুমায়ুন আহমেদ
যে ব্যক্তি অপরের দোষের কথা তোমার নিকট
প্রকাশ করে সে নিশ্চয়ই তোমার দোষের কথাও
অপরের নিকট প্রকাশ করে থাকে।
® হাসান বসরী (রঃ)
কথা বেশি বলাটা গর্বের কিছু নয়, এমন
কথা বলা উচিৎ যাতে বুদ্ধিমত্তার পরিচয়
পাওয়া যায়।
® টমাস ফুলার
স্ত্রীর সঙ্গে বীরত্ব করে লাভ কি? আঘাত
করলেও কষ্ট, আঘাত পেলেও কষ্ট।
® রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
একজন সুন্দরী মেয়ের সঙ্গে দেখা ও
তাকে অসুন্দর হিসেবে আবিষ্কার করার
মধ্যবর্তী সুন্দর সময়ের নাম ভালোবাসা।
® জন ব্যারিমোর
ঘুমাবো অল্প, স্বপ্ন দেখব বেশি, কারণ
প্রতি মিনিটে চোখ বন্ধ করা মানে ৬০ সেকেন্ড
আলো থেকে বঞ্চিত হওয়া।
® গ্যাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেজ
যদি তোমার কোন কিছু পছন্দ না হয়
তা পরিবর্তন করো, যদি তুমি তা পরিবর্তন
করতে না পারো তাহলে নিজের
দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করো।
® যাযাবর
দুনিয়ার সবচেয়ে কঠিন কাজ
হচ্ছে নিজেকে সংশোধন
করা আর সবচেয়ে সহজ কাজ হচ্ছে অন্যের
সমালোচনা করা
® হরযত আলী (রাঃ)
বেফাঁস কথা বলার চেয়ে চুপ থাকাই শ্রেয়।
® জর্জ হাবার
যদিও ভুল কর তবে তা সংশোধনের জন্য বিলম্ব
বা লজ্জাবোধ করো না।
® কনফুসিয়াস
ব্যর্থতা হলো সাফল্যের একটি রাস্তার নাম।
ব্যর্থ হলে হতাশ হবেন না, মনে দৃঢ সংকল্প
নিয়ে সামনে এগিয়ে যান। সাফল্য আসবেই।
® যাযাবর
ছেলেরা ভালোবাসার অভিনয়
করতে করতে যে কখন
সত্যি সত্যি ভালোবেসে ফেলে তারা তা নিজেও
জানেনা…
মেয়েরা সত্যিকার ভালোবাসতে বাসতে যে কখন
অভিনয় শুরু করে তারা তা নিজেও জানেনা।
® সমরেশ মজুমদার
মৃত্যু শোক ভোলা যায় না বলে একটা ভুল
কথা প্রচলিত আছে। সবচেয়ে সহজে যে শোক
ভোলা যায়, তার নাম মৃত্যু শোক। সবচেয়ে তীব্র
শোক হচ্ছে জীবিত মানুষ
হারিয়ে যাবার শোক।
® হুমায়ূন আহমেদ
মেয়েরা প্রথমবার যার
প্রেমে পড়ে তাকে ঘৃনা করলেও
ভুলে যেতে পারে না, পরিষ্কার জল
কাগজে পড়লে দেখবেন শুকিয়ে যাওয়ার পড়েও
দাগ রেখে যায়।
® সমরেশ মজুমদার
সব মানুষ ই আদর্শবান নয়, তবে কিছু মানুষের
মাঝে আদর্শের ভান আছে।
® জন. এফ. ভন
খুব কাছের মানুষের অবহেলা সহ্য করার মত
ক্ষমতা মানুষের নেই। মানুষ বড় অভিমানী প্রানী।
® হুমায়ুন আহমেদ।”
তোমার যা নেই তার পিছনে ছুটে যা আছে তা নষ্ট
করো না, মনে রেখো, আজকে তোমার যা আছে,
গতকাল তুমি সেটার পিছনে ছুটেছিলে।
® এপিকিউরাস
মেয়েদের চোখে দুই ধরনের অশ্রু।
একটি দুঃখের, অপরটি ছলনার!
® পীথাগোরাস
ভগবান আর ডাক্তার কাউকেই রাগাবেন না।
কারণ ভগবান রেগে গেলে ডাক্তার এর কাছে পাঠায়
দেন আর ডাক্তার রেগে গেলে ভগবান এর
কাছে পাঠায় দেয়।
® যাযাবর
মানুষ নিজেকে লুকিয়ে রাখতে পছন্দ করে। সে চায়
তার প্রিয় কেউ তাকে খুঁজে বের করুক।
® হুমায়ূন আহমেদ
কিছু কথা কাউকে বলা যায়না, শুধু বুকের
মধ্যে বয়ে বেড়াতে হয়।
® সমরেশ মজুমদার

যদি ভাল লাগে শেয়ার কর । তোমার বন্ধুদের কাছে….

searchfeed

http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

S.S.C Exam 2015 Reunite (এস.এস.সি ২০১৫ রুটিন)

সময় সকাল ১০.০০টা থেকে দুপুর ১.০০ টা পর্যন্ত।

১.বাংলা ১ম পত্র ০৯/০২/১৫ রবিবার

২.বাংলা ২য় পত্র ১১/০২/১৫ মঙ্গলবার

৩.ইংরেজি ১ম পত্র ১৩/০২/১৫ বৃহস্পতিবার

৪.ইংরেজি ২য় পত্র ১৬/০২/১৫ রবিবার

৫.ইসলাম ধর্ম / হিন্দু ধর্ম ১৮/০২/১৫ মঙ্গলবার

৬.হিসাববিজ্ঞান ২০/০২/১৫ বৃহস্পতিবার

৭.সাধারন গনিত ২৩/০২/১৫ রবিবার

৮.জীববিজ্ঞান / অর্থনীতি ২৫/০২/১৫ মঙ্গলবার

৯. রসায়ন /পৌরনীতি / ব্যবসায়উদ্যোগ ০২/০৩/১৫ রবিবার

১০.পদার্থ বিজ্ঞান / ইতিহাস / ব্যবসায়পরিচিতি ০৪/ ০৩/১৫ মঙ্গলবার

১১.সাধারনবিজ্ঞান / বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় ০৬/০৩/১৫ বৃহস্পতিবার

১২.উচ্চতর গনিত ০৯/০৩/১৫ রবিবার

১৩. ভূগোল /বানিজ্যকভূগোল

১১/০৩/১৫ মঙ্গলবার

১৪.কৃষি শিক্ষা / গাহস্থ্যঅর্থনীতি ১৩/০৩/ ১৫ বৃহস্পতিবার

সূত্র :ফেসবুক

http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

searchfeed

হ্যাকিং নিয়ে কিছু কথা

“Hacking is
not a crime, its an art of logic”
কিংবা “হ্যাকিং শুধু শেখার জন্য। খারাপ
উদ্দেশ্যে এটা ব্যাবহার করবেন না” এ জাতীও
কিছু আমি বলবনা। হ্যাকিং শেখার জিনিস ঠিক ,
কিন্তু এটা শিখতে গেলে হ্যাক করতেই হবে। আর
হ্যাক করলে কারও না কারও ক্ষতি হবেই। আর
অন্যের ক্ষতি করা অবশ্যই অপরাধ। কিন্তু
কারও ক্ষতি করলে কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না।
ভূমিকা
১.হ্যাকার কে?
হ্যাকার হচ্ছে সেই ব্যাক্তি জিনি নিরাপত্তা /
অনিরাপত্তার সাথে জড়িত
এবং নিরাপত্তা ব্যাবস্থার দুর্বল দিক খুঁজে বের
করায় বিশেষ ভাবে দক্ষ অথবা অন্য কম্পিউটার
ব্যাবস্থায় অবৈধ অনুপ্রবেশ করাতে সক্ষম
বা এর সম্পর্কে গভীর জ্ঞানের অধিকারী।
সাধারণ ভাবে হ্যাকার শব্দটি কালো টুপি হ্যাকার
অর্থেই বেশী ব্যাবহার করা হয় যারা মুলত ধ্বংস
মূলক ও অপরাধ মূলক কর্ম কান্ড চালায়।
এছাড়াও নৈতিক হ্যাকার
এবং নৈতিকতা সম্পর্কে অপরিষ্কার হ্যাকারও
আছে।
এদের মধ্যে পার্থক্য করার জন্য প্রায়শ
ক্র্যা – কার শব্দটি ব্যাবহার করা হয়,
যা কম্পিউটার নিরাপত্তা হ্যাকার
থেকে একাডেমিক বিষয়ের হ্যাকার
কে আলাদা করার জন্য ব্যাবহার করা হয়
অথবা অসাধু হ্যাকার থেকে নৈতিক হ্যাকারের
পার্থক্য বুঝতে ব্যাবহার করা হয়।
২. হ্যাকারের শ্রেণীবিভাগ
সাদা টুপি হ্যাকার (White Hat Hacker) :
এরা কম্পিউটার তথা সাইবার ওয়ার্ল্ড এর
নিরাপত্তা প্রদান করে। এরা কখনো অপরের
ক্ষতি সাধন করে না। এদেরকে ইথিকাল হ্যাকার
ও বলা হয়।
কালো টুপি হ্যাকার (Black Hat Hacker): হ্যাকার
বলতে সাধারণত কালো টুপি হ্যাকারদেরকেই
বোঝায়। এরা সব সময়ই কোন না কোন
ভাবে অপরের ক্ষতি সাধন করে। সাইবার
ওয়ার্ল্ড এ অনেকের কাছে এরা ঘৃণিত
হয়ে থাকে।
ধূসর টুপি হ্যাকার (Grey hat Hacker): এরা এমন
একধরণের হ্যাকার যারা সাদা ও
কালো টুপি হ্যাকারদের
মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থান করে।
এরা ইচ্ছা করলে কারও ক্ষতি সাধন করতে পারে,
আবার কারও উপকার ও করতে পারে।
এলিট (Elit): এরা খুব দক্ষ হ্যাকার। এরা সিস্টেম
ক্র্যা – ক
করে ভিতরে ঢুকতে পারে এবং নিজেদেরকে
লুকায়িতও করতে পারে। এরা সাধারণত বিভিন্ন
ধরণের এক্সপ্লয়েট খুঁজে বের করতে পারে।
প্রোগ্রামিং সম্পরকেও এদের
ভালো ধারনা থাকে।
স্ক্রিপ্টকিডি (Script Kiddy):
এরা নিজেরা স্ক্রিপ্ট বা টুল বানাতে পারে না।
বিভিন্ন টুলস বা অন্যের বানানো স্ক্রিপ্ট
ব্যাবহার করে এরা কার্যসিদ্ধি করে থাকে। এদের
প্রোগ্রামিং সম্পর্কে ধারণা বলতে গেলে থাকেই
না।
নিউফাইট বা নুব : এরা হ্যাকিং শিক্ষার্থী ।
এরা হ্যাকিং কেবল শিখছে। অন্য অর্থে এদের
বিগিনার বা নিউবি বলা যায়।
৩. কিভাবে হ্যাকার হওয়া যায়
এলিট হ্যাকার হওয়া সহজ ব্যাপার না এবং খুব
তাড়াতাড়ি হওয়া যায় না। একজন হ্যাকার
হিসেবে অনেক সমসসার সম্মুখীন হতে হয়
এবং একটি সমস্যার চেয়ে আরও বেশী সমাধান
করতে হয়। সব সময় মনে রাখতে হবে জ্ঞানই
শক্তি। সব সময় ধৈর্য ধারন করতে হবে, ধৈর্য
না থাকলে হ্যাকার হওয়ার আশা করবেন না।
প্রোগ্রামিং
১. প্রয়োজনীয়তা
আপনি নিজেকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন,
প্রোগ্রামিং শেখা কি খুব প্রয়োজন? উত্তর
একই সাথে হ্যা এবং না। এটি সম্পূর্ণ নিরভর
করবে তোমার ইচ্ছার ওপর ।
প্রোগ্রামিং ভালোভাবে জানা না থাকলে সঠিক
ভাবে হ্যাকিং করা যাবে না।
আপনি যদি প্রোগ্রামিং না বোঝেন ,
তাহলে আপনি স্ক্রিপ্ট কিডির শ্রেণীভুক্ত
হবেন। প্রোগ্রামিং জানার কিছু সুবিধা হলোঃ
১) আপনাকে একজন অভিজাত হ্যাকার
হিশেবে বিবেচনা করা হবে।
২) এর মাধ্যমে হ্যাকাররা খুব
সহজে vulnerability খুঁজে বের করে।
৩) নিজের তৈরি প্রোগ্রাম দিয়ে হ্যাক
করলে আপনি নিজেই খুশি হবেন।
২. কোথা থেকে শুরু করা উচিত?
অনেক লোক সিদ্ধান্ত নেন প্রোগ্রামিং শিখবে,
কিন্তু কোথা থেকে শিখবে জানেনা। আমার মতে
W3schools থেকে HTML শিখতে পারেন।
পড়ে বাকিগুলো। টেকটিউন্স থেকেও
শিখতে পারবেন।
৩. শেখার সর্বোত্তম উপায়
কিভাবে প্রোগ্রামিং শেখা যাবে সে প্রশ্নের
উত্তর আমি দিচ্ছি……………
১) কম্পিউটার নিয়ে বাজারের যত বই পারুন
সংগ্রহে রাখুন।
২) Linux ব্যাবহার করুন। উইন্ডোজ এর
পাশাপাশিও ব্যাবহার করতে পারেন। হ্যাকারদের
জন্য লিনাক্স এর চেয়ে ভালো কোন
অপারেটিং সিস্টেম নেই। এটি আপনি এডিট ও
করতে পারবেন কারণ এর সোর্স কোড
উম্মুক্ত।
৩) যতো পারো প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ
শিখতে থাকুন। হ্যাকারদের জন্য
এটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।
প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ এর ওপর আপনার
দক্ষতা যতো বারবে আপনি তত ভালো হ্যাকার
হতে পারবেন। এখন বলি কোনটা শিখবেন।
এইচটিএমএল>>জাভাস্ক্রিপ্ট>>সি>>সি+
+>>পার্ল>>পাইথন>>…………>> এর যাত্রা শেষ
হবে না।
৪) অনুশীলন , অনুশীলন , যতো পারেন অনুশীলন
করুন।
আগেই বলেছি হ্যকারদের জন্য সর্বোত্তম
অপারেটিং সিস্টেম হচ্ছে লিনাক্স।
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

searchfeed

গুগল এডসেন্স শেখার বাংলা ভিডিও ও সফটওয়্যার

আসসালামু আলাইকুম, কেমন আছেন আপনারা? ভালো থাকুন সব সময়।

অনলাইন এনকাম (online income)
সম্পর্কে আমরা সবাই ই কমবেশি অবগত আছি। আর আমরা এও জানি যে অনলাইনে আয়ের সবচেয়ে নিরাপদ ও সহজ উপায় হলো গুগল এডসেন্স
(google adsense)। কিন্তু সামান্য কিছু বিষয় আমাদের জানা নেই বলে আমরা অনেক চেষ্টা করেও এই এডসেন্স একাউন্ট লাভ করতে পারি না। ফলে অনেকেই গুগল এডসেন্স (google adsense) এর আশা ছেড়ে দেই এবং গুগল এডসেন্স এর বিকল্প এ্যাড ইউনিট নিয়ে কাজ করি। কিন্তু গুগল এডসেন্স (google adsense) এর ধারে কাছে ভিড়ার মত আয় অন্য এ্যাড ইউনিট দ্বারা করা অনেকটাই কষ্টকর। তাই আজকে মার্কস আইটি আপনাদের দিচ্ছে গুগল
এডসেন্স বিষয়ক টিউটোরিয়াল সফটওয়্যার ফ্রি!!
Download Bangla Adsense Tutorial Software For Free!!
গরম গরম ডাউনলোড করুন সফটওয়্যারটি আর সাধনা করুন গুগল এডসেন্স নিয়ে। আর যুক্ত হোন অনলাইন আণিং এর সর্ববৃহৎ প্লাটফর্ম গুগল
এডসেন্স এর সাথে!!
Download here >> http://www.mediafire.com/download.php?nc2lvg09xpe5t40

ফেসবুক পেইজ > http://www.facebook.com/BTtutorial

twitter > http://www.twitter.com/BTtutorial

Dorks

inurl:”.php?cat =”+intext:”Payp al”+site:choti
inurl:”.php?cat =”+intext:”/ Buy
Now/”+site:.net
inurl:”.php?cid =”+intext:”onli ne+betting”
inurl:”.php?id= ” intext:”View cart”
inurl:”.php?id= ” intext:”Buy Now”
inurl:”.php?id= ” intext:”add to cart”
inurl:”.php?id= ” intext:”shoppin g”
inurl:”.php?id= ” intext:”boutiqu e”
inurl:”.php?id= ” intext:”/store/ ”
inurl:”.php?id= ” intext:”/shop/”
inurl:”.php?id= ” intext:”toys”
inurl:”.php?cid =”
inurl:”.php?cid =” intext:”shoppin g”
inurl:”.php?cid =” intext:”add to cart”
inurl:”.php?cid =” intext:”Buy Now”
inurl:”.php?cid =” intext:”View cart”
inurl:”.php?cid =” intext:”boutiqu e
inurl:”.php?cid =” intext:”/store/ ”
inurl:”.php?cid =” intext:”/shop/”
inurl:”.php?cid =” intext:”Toys”
inurl:”.php?cat =”
inurl:”.php?cat =” intext:”shoppin g”
inurl:”.php?cat =” intext:”add to cart”
inurl:”.php?cat =” intext:”Buy Now”
inurl:”.php?cat =” intext:”View cart”
inurl:”.php?cat =” intext:”boutiqu e
” inurl:”.php?cat =” intext:”/store/ ”
inurl:”.php?cat =” intext:”/shop/”
inurl:”.php?cat =” intext:”Toys”
inurl:”.php?cat id=”
inurl:”.php?cat id=” intext:”View cart”
inurl:”.php?cat id=” intext:”Buy Now”
inurl:”.php?cat id=” intext:”add to cart”
inurl:”.php?cat id=” intext:”shoppin g”
inurl:”.php?cat id=” intext:”boutiqu e”
inurl:”.php?cat id=” intext:”/store/ ”
inurl:”.php?cat id=” intext:”/shop/”
inurl:”.php?cat id=” intext:”Toys”
inurl:”.php?cat egoryid=”
inurl:”.php?cat egoryid=” intext:”View cart”
inurl:”.php?cat egoryid=” intext:”Buy Now”
inurl:”.php?cat egoryid=” intext:”add to cart”
inurl:”.php?cat egoryid=” intext:”shoppin g”
inurl:”.php?cat egoryid=” intext:”boutiqu e”
inurl:”.php?cat egoryid=” intext:”/store/ ”
inurl:”.php?cat egoryid=” intext:”/shop/”
inurl:”.php?cat egoryid=” intext:”Toys”
inurl:”.php?pid =”
inurl:”.php?pid =” intext:”shoppin g”
inurl:”.php?pid =” intext:”add to cart”
inurl:”.php?pid =” intext:”Buy Now”
inurl:”.php?pid =” intext:”View cart”
inurl:”.php?pid =” intext:”boutiqu e”
http://www.fb.com/BTtutorial

C program to delete a file — The remove function in C/ C++ can be used to delete a file.

C program to delete a file — The remove
function in C/ C++ can be used to delete a file.
The function returns 0 if files is deleted
successfully, otherwise returns a non zero
value.
#include
int main()
{ if (remove(“abc.txt” ) == 0) printf (“Deleted
successfully” );
else
printf (“Unable to delete the file” );
return 0;
}

SQL Injection-step by step BY Neo

Neo “সামি নিও”

Neo সাইবার 71 এর একজন ট্রিম মেম্বার।
সাইবার ৭১ http://www.facebook.com/cyber71official সাইবার ৭১ এর পেইজ। সাইবার ৭১ সকল আপডেট পাওয়া যাবে।
Facebook Page

HOW TO CONNECT FROM A PHP FILE TO A MYSQL DATABASE

One of the best
features of PHP is
how easily it interacts
with MySQL. This
allows you to store
information in a
database for your
website to access and
then create dynamic
content. In order to
do this you need to
be able to read and
write to the MySQL
database from your
PHP based website.
You can connect to
your database from a
PHP file with the
following code:

Obviously you need to
change the
highlighted items to
represent the actual
values for your
database.
Once you are
connected to your
database you can
read data or write to
your database.
http://www.facebook.com/BTtutorial

এ্যাডসেন্স ব্যান হওয়ার প্রধান কারন সমূহ

১. নিজের এ্যাডে নিজে ভুলেও কোনদিন
ক্লিক করবেন না।
২. কাউকে আপনার এ্যাডে ক্লিক করার
জন্য উৎসাহিত করবেন না।
৩. গুগল থেকে প্রাপ্ত এ্যাডের যে কোড,
সে কোড পরিবর্তন করে নিজের মত
একটা ডিজাইন তৈরি করাও নিরাপদ নয়।
এটিও হতে পারে এ্যাডসেন্স বাতিল হওয়ার
অন্যতম একটি কারন।
৪. ছবির পাশে অনেকেই এ্যাড ব্যবহার
করে থাকেন, যা গুগলের নির্দেশনা মোতাবেক
অবৈধ। তাই কোন ছবির পাশে গুগলের এ্যাড
ব্যবহার করবেন না।
৫. এখানে ক্লিক করুন, ভিজিট করুন,
প্রিয়তে রাখুন ইত্যাদি লেখার পাশে গুগলের
এ্যাড ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
৬. কপি-পেষ্ট, পর্নো কিংবা অন্যান্য
যেকোন খারাপ বিষয়যুক্ত আর্টিকেলের
ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
৭. এ্যাডসেন্স একাউন্ট
খোলা রেখে আপনার এ্যাডসেন্স এ্যাড
ব্যবহৃত সাইট ওপেন করবেন না।
৮. আর যারা এসইও জানেন তাদের জন্য
বলছি, ভিজিটর বৃদ্ধির জন্য এসইও
করা ভাল কিন্তু রাতারাতি লাভের আশায়
ব্লাক এসইও থেকে বিরত থাকুন।
৯. Page CTR সর্বদা নিয়ন্ত্রনে রাখুন। Page
CTR স্বাভাবিক হচ্ছে ২ থেকে ৫ এর মধ্যে। ৫
এর উপরে গেলে কিছুটা ঝুকিপূর্ণ। Page CTR
১০ এর উপরে গেলে সম্পূর্ণ ঝুকিপূর্ণ।
যে কোন সময় ব্যান হতে পারে আপনার
একাউন্ট। এমন অবস্থা হলে সাইট
সাময়িকভাবে বন্ধ রেখে কয়েকদিন
পরে পুনরায় এ্যাকটিভ করুন।
১০. আইপি পরিবর্তন করে নিজের
এ্যাডে নিজে কখনই ক্লিক করবেন না।
১১. একের অধিক এ্যাডসেন্স একাউন্ট
ব্যবহার করা গুগলের ভাষায় হারাম।
১২. আপনার পেজ ভিউ এর তুলনায়
যদি ক্লিকের পরিমাণ বেশি হয় তাহলেও
বিপদ। এক্ষেত্রে আপনার সাইটটির
সিপিসি ৬/৭ হয়ে গেলে সতর্কতা অবলম্বন
করুন।
১৩. সাইবার ক্যাফে বা বন্ধুর
পিসিতে আপনার এডসেন্স একাউন্টে লগিন
করা থেকে বিরত থাকুন।
১৪. নিয়মিত আপনার এডসেন্স একাউন্ট
ভালভাবে চেক করবেন। হঠাৎ করে কেন
আপনার ব্লগে ক্লিক বেড়ে গেল তা চেক
করবেন। চেক করে সেটি এডসেন্সকে মেইল
করে জানান।
http://www.facebook.com/BTtutorial