বিশ্ব সেরা ১৬ স্মার্টফোন

বাজারে প্রচলিত নানা স্মার্টফোনের মধ্যে কোনটি সেরা, তা নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়তে হয় ব্যবহারকারীদের। এ বিভ্রান্তি দূর
করতে সম্প্রতি বিজনেস ইনসাইডার
প্রকাশ করেছে স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে ১৬ বিশ্বসেরা মডেলের নাম।
smartPhone
১.ব্ল্যাকবেরি পাসপোর্ট
অতীতে বিশ্বের সেরা স্মার্টফোন
নির্মাতা হলেও এখন সে অবস্থা নেই
ব্ল্যাকবেরির। তবে এবার
ব্ল্যাকবেরি সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরনের
একটি স্মার্টফোন নিয়ে তাদের বাজার ও
হারানো গৌরব পুনরুদ্ধারের
আশা করছে। আর এ স্মার্টফোনটির
নাম ব্ল্যাকবেরি পাসপোর্ট।
তবে ব্যবহারকারীরা এ ফোনটি কেমন
পছন্দ করে তার ওপরই নির্ভর
করছে প্রতিষ্ঠানটির ভাগ্য।
মূল্য : আন্তর্জাতিক বাজারে এ
ফোনটির আনলক ভার্সনের দাম প্রায়
সাড়ে ৪৬ হাজার টাকা।
২. অ্যামাজন ফায়ার ফোন
অনলাইন বিক্রেতা অ্যামাজন ডট কমের
প্রথম স্মার্টফোনটির থ্রিডি ইফেক্ট
অনেকেরই খুব পছন্দ। তবে অন্যান্য
দিক দিয়ে ক্রেতাদের অনুভূতি গড়পড়তা।
মূল্য : মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান
এটিঅ্যান্ডটি এটি প্রায় ৩৫ হাজার
টাকায় বিক্রি করছে।
৩. নোকিয়া লুমিয়া ৮৩০
এটি স্মার্টফোনের বাজার দখলের
চেষ্টায় মাইক্রোসফটের মালিকানাধীন
নোকিয়ার আরেকটি চেষ্টা। উইন্ডোজ
৮ অপারেটিং সিস্টেমচালিত
স্মার্টফোনটির ৫ ইঞ্চি স্বচ্ছ স্ক্রিন
রয়েছে।
মূল্য : মোবাইল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান
এটিঅ্যান্ডটি এটি প্রায় ৩৫ হাজার
টাকায় বিক্রি করছে।
৪. এইচটিসি ওয়ান এম৮ উইন্ডোজ
উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের
স্মার্টফোনের দিক দিয়ে এটি অন্যতম
সেরা। মেটাল বডি ও উইন্ডোজ ৮.১
অপারেটিং সিস্টেমযুক্ত এ
ফোনটিতে রয়েছে কর্টানা নামে ডিজিটাল
অ্যাসিস্ট্যান্ট।
মূল্য : বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এটি প্রায়
সাড়ে ৪৬ হাজার টাকায় বিক্রি করছে।
৫. স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট এজ
গ্যালাক্সি নোট এজ
অনেকটা গ্যালাক্সি নোট ৪-এর মতোই।
তবে এতে দ্বিতীয় একটি স্ক্রিন
রয়েছে সাইডে, যা ব্যবহারে অ্যাপ
চালানো আরো সহজ হবে। এ ছাড়াও
প্রধান স্ক্রিন বন্ধ থাকলে নতুন
আপডেট ও অন্য নোটিফিকেশনের তথ্য
এর মাধ্যমে পাওয়া যাবে।
মূল্য : কমপক্ষে ৭৩ হাজার ৫২১ টাকা।
৬. আইফোন ৫এস
এক বছরের পুরনো মডেল হলেও
আইফোন ৫এস এখনও ব্যবহারকারীদের
অন্যতম পছন্দের ফোন। বিশেষ
করে আপনার যদি বড় স্মার্টফোন
পছন্দ না হয় তাহলে এটি চোখ বন্ধ
করে কিনতে পারেন।
মূল্য : প্রতিষ্ঠানভেদে ৪২ হাজার
টাকা থেকে শুরু।
৭. এলজি জি৩
এলজির অন্যতম সেরা স্মার্টফোন এই
মডেলটিতে রয়েছে অত্যন্ত পরিষ্কার
স্ক্রিন। সাড়ে পাঁচ ইঞ্চি আকারের
ডিসপ্লেযুক্ত
স্মার্টফোনটি অনেকটা ফ্যাবলেটের
সঙ্গেও মিল রয়েছে। অ্যান্ড্রয়েড
অপারেটিং সিস্টেমের এ স্মার্টফোনটির
পাওয়ার ও ভলিউমের বাটন
রয়েছে পেছনে।
মূল্য : প্রায় ৪৬ হাজার টাকা।
৮. গুগল নেক্সাস ৫
গুগলের পরবর্তী মডেলের স্মার্টফোন
নেক্সাস ৬ বাজারে এলেও গত বছরের
মডেল নেক্সাস ৫ এখনও
ব্যবহারকারীদের প্রিয়।
এতে রয়েছে অরিজিনাল অ্যান্ড্রয়েড
অপারেটিং সিস্টেম। অর্থাৎ
এতে কোনো পরিবর্তন করা হয়নি,
যা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান করে থাকে। এ
স্মার্টফোনের অন্যতম দুর্বল দিক
হলো ক্যামেরা।
মূল্য : প্রায় ২৭ হাজার টাকা।
৯. সনি এক্সপেরিয়া জেড৩
সনির ফ্লাগশিপ
স্মার্টফোনটি বাজারের অন্যতম
সেরা অ্যান্ড্রয়েড ফোন।
এতে রয়েছে ঝকঝকে ৫.২ ইঞ্চি স্ক্রিন।
এ ছাড়াও পানি নিরোধক বডি ও
অসাধারণ ক্যামেরা রয়েছে এতে।
মূল্য : কমপক্ষে ৪৯ হাজার টাকা।
১০. স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৫
স্যামসাংয়ের সর্বশেষ মডেলের
ফোনটি এর আগের মডেলের চেয়ে অনেক
উন্নত। এতে আগের মডেলের বিভিন্ন
অপ্রয়োজনীয় ফিচারও বাদ
দেওয়া হয়েছে। এর স্ক্রিন দারুণ স্বচ্ছ।
এতে রয়েছে অত্যন্ত উন্নতমানের
ক্যামেরা। তবে স্মার্টফোনটির
বডি প্লাস্টিকের তৈরি হওয়ায় অনেকেরই
এটি অপছন্দ।
১১. নেক্সাস ৬
গুগলের নতুন ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন
নেক্সাস ৬। এর ৫.৯ ইঞ্চি স্ক্রিন ও
অ্যান্ড্রয়েড ললিপপ
অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীদের
দেবে স্মার্টফোন ব্যবহারের অনন্য
অভিজ্ঞতা।
মূল্য : প্রায় ৫০ হাজার টাকা।
১২. ওয়ানপ্লাস ওয়ান
সাড়ে পাঁচ ইঞ্চি স্ক্রিনের
স্মার্টফোনটিতে রয়েছে দারুণ
সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যারের
সংমিশ্রণ। তবে চীনা এ নির্মাতার
স্মার্টফোনটি আপনি ইচ্ছে করলেই
কিনতে পারবেন না। এ ফোনটির সরবরাহ
খুবই সীমিত। বর্তমানে এ
ফোনটি ব্যবহার করেন এমন
কোনো ব্যবহারকারীর আমন্ত্রণ
পেলেই কেবল ফোনটি কিনতে পারবেন
আপনি।
মূল্য : কমপক্ষে ২৩ হাজার টাকা।
১৩. মটো এক্স
বিশ্বখ্যাত মটোরোলা কোম্পানির এই
সেপ্টেম্বরে বাজারে ছাড়া স্মার্টফোনটি বাজারের
অন্যতম সেরা অ্যান্ড্রয়েড ফোন।
গুগলের নেক্সাস ফোনের মতোই
এতে রয়েছে প্রায় অবিকৃত অ্যান্ড্রয়েড
অপারেটিং সিস্টেম। এর স্ক্রিন ৫.২
ইঞ্চি।
মূল্য : কমপক্ষে ৩৯ হাজার টাকা।
১৪. এইচটিসি ওয়ান (এম৮)
এইচটিসির ফ্লাগশিপ স্মার্টফোন
এইচটিসি ওয়ান অনেক
ব্যবহারকারীর দৃষ্টিতেই
সেরা অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন। এর
ডিজাইন যেমন অসাধারণ তেমন মেটাল
ডিজাইনের বডিওযথেষ্ট মজবুত।
এতে রয়েছে ক্যামেরার
সহযোগী একটি অতিরিক্ত সেন্সর।
ফলে প্রয়জন অনুযায়ী ছবির ফোকাস
পরিবর্তন করতে পারবেন
ব্যবহারকারীরা।
মূল্য : কমপক্ষে ৪২ হাজার টাকা।
১৫. গ্যালাক্সি নোট ৪
স্যামসাং নির্মিত গ্যালাক্সি নোট
তাদের সেরা স্মার্টফোন। ৫.৭
ইঞ্চি স্ক্রিনের ফোনটিতে রয়েছে সবচেয়ে স্বচ্ছ
স্ক্রিন। এর কিনারগুলো নির্মিত
হয়েছে ধাতব পদার্থ ব্যবহার করে।
ফলে আগের ভার্সনের তুলনায়
এটি ব্যবহারকারীদের স্বস্তি দেয়।
ফ্যাবলেটের আকারে কোনো স্মার্টফোন
কিনতে চাইলে এর জুড়ি নেই।
মূল্য : কমপক্ষে ৫৮ হাজার টাকা।
১৬. আইফোন সিক্স প্লাস
আপনি যদি অ্যাপলের আইওএস
অপারেটিং সিস্টেম ও ফ্যাবলেট
একত্রে কিনতে চান তাহলে এর
জুড়ি নেই। অন্য ফ্যাবলেটের তুলনায় এর
ধাতব বডি ব্যবহারকারীদের
অনেকখানি স্বস্তি দেয়।
মূল্য : কমপক্ষে ৫৮ হাজার টাকা।
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

গুগলে কাজ করতে ইচ্ছুক

চলুন তাহলে, দেখে নেওয়া যাক গুগলের কিছু
প্রাথমিক যোগ্যতার সংক্ষিপ্ত বিবরণ:
১. প্রোগ্রামিং শেখা: অন্তত
একটি প্রোগ্রামিং ভাষায়
থাকতে হবে কাজে লাগানোর মত জ্ঞান।
হতে পারে সেটি পাইথন কিংবা সি,
হতে পারে সি++। অনলাইনেও এসব
প্রোগ্রামিং ভাষা শেখার অনেক সুযোগ
আছে।
২. কোড পরীক্ষা করে ত্রুটি বের করা: কেবল
কোডিং করা জানলেই চলবে না, কোড লিখার
পর সেটিকে বাস্তবে প্রয়োগ
করে সেখানে থাকা ত্রুটি বের করার ক্ষমতাও
থাকতে হবে।
৩. গণিত সম্পর্কে ধারণা: গণিতের বিভিন্ন
শাখা যেমন- বিচ্ছিন্ন গণিত
বিষয়ে থাকতে হবে কাজ চালিয়ে নেওয়ার মত
জ্ঞান। কারণ
প্রোগ্রামিং বিষয়ে রয়েছে গণিতের বিস্তর
ব্যবহার।
৪. অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে কাজ করা:
অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে কাজ করার আগ্রহ
থাকতে হবে। কারণ যেকোনো কাজেই
ব্যবহার করতে হবে কোন না কোন
অপারেটিং সিস্টেম।
৫. কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার বিষয়ে ধারণা:
গুগলের অত্যন্ত পছন্দের একটি বিষয়
রোবট। আর তাই রোবট
বিষয়ে ধারণা এবং জানার আগ্রহ
থাকতে হবে।
৬. অ্যালগরিদম এবং ডেটা স্ট্রাকচার: গুগল
নানা ধরণের ডেটা টাইপ এবং ডেটা স্ট্রাকচার
নিয়ে কাজ করে। আর তাই সেখানে কাজ
করতে আগ্রহী একজন তরুণের কাছেও এই
বিষয়ে বিশদ জ্ঞান আশা করে প্রতিষ্ঠানটি।
৭. ক্রিপ্টোগ্রাফি: সাইবার
নিরাপত্তা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আর তাই
গুগলে কাজ
করতে চাইলে ক্রিপ্টোগ্রাফি বিষয়ে দক্ষতা থাকা প্রয়োজন।
৮. কম্পাইলার তৈরি করা: স্ট্যানফোর্ডের
মতে, যখন আপনি একটি কম্পাইলার
তৈরি করতে পারবেন, তখন
আপনি জানতে পারবেন কিভাবে একটি হাই
লেভেল প্রোগ্রামিং ভাষা লো-লেভেল
প্রোগ্রামিং ভাষায় পরিণত হয়।
৯. অন্য প্রোগ্রামিং ভাষার উপর দক্ষতা
অর্জন: আপনি যে প্রোগ্রামিং ভাষায় দক্ষ,
সেটির পাশাপাশি অন্য প্রোগ্রামিং ভাষায়
দক্ষতা অর্জন করা জরুরী, অন্তত
গুগলে চাকুরী পেতে হলে।
১০. প্যারালাল প্রোগ্রামিং:
একইসাথে একাধিক প্রোগ্রামিংয়ের কাজ
চালিয়ে নিতে পারা বাড়তি দক্ষতা হিসেবেই
বিবেচনা করা হয় গুগলে।google work place
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

searchfeed

একাত্তরের মা জননী

১৯ তারিখে মুক্তি পেতে যাচ্ছে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘একাত্তরের মা জননী’।
ekatturer
ছবিটি পরিচালনা করেছেন শাহ আলম কিরণ।
খ্যাতিসম্পন্ন রাইটার আনিসুল হকের
‘জননী সাহসিনী ১৯৭১’ অবলম্বনে নির্মিত
হয়েছে এই ছবিটি। এর নাম ভূমিকায় অভিনয়
করেছেন এই প্রজন্মের
অভিনেত্রী চিত্রনায়িকা নিপুন। এই
ছবিটিতে তাকে দেখা যাবে তিন রূপে।
২০১২ অর্থবছরে সরকারি অনুদান প্রাপ্ত
‘একাত্তরের মা জননী’ ছবির প্রেক্ষাপট
হলো, মূলত মুক্তিযুদ্ধের আগের,
মুক্তিযুদ্ধের সময় এবং মুক্তিযুদ্ধের
পরবর্তী ঘটনাবলি নিয়ে। ছবিটির শুটিং শুরু হয়
২০১৩ সালের ১৬ অগাস্ট।
ছবিটির পরিচালক শাহ আলম কিরণ বলেছেন,
‘ছবির শ্যুটিং, ডাবিং, এমনকি এডিটিংও শেষ।
এখন শুধু ফাইনাল কাটের কাজ চলছে। এর
পরপরই সেন্সর
বোর্ডে ছবিটি জমা দেওয়া হবে।’
শাহ আলম কিরণ আরও বলেন, ‘ছবিটি বিজয়
দিবসের দিন মুক্তি দিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু
শুক্রবার হবার কারণে ১৯ ডিসেম্বরই
ছবিটি মুক্তির তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।
আশা করছি কথা রাখতে পারবো।’
‘একাত্তরের মা জননী’ ছবিতে নিপুণ ও আগুন
ছাড়াও অভিনয় করছেন চিত্রলেখা গুহ, ম. ম.
মোর্শেদ, গুলশান আরা, রাকিব, মিশু, আবদুল
হালিম আজিজ, স্বরণ, মোরশেদ আলম,
এলিনা পারভেজ, লিখন, মাহবুব, রিমা,
ঈষিতা পায়েল, সোমা ফেরদৌস, মিমা জামান
তিথি, পৃথু, সারোয়ার আলম সৈকত, জুয়েল,
এবং সাজু মেহেদী, মনিকা, সুমাইয়া, সোহানসহ
বেশ কয়েকজন শিশুশিল্পী।
পরিচালক শাহ আলম কিরণ মনে করেন,
‘এবারের ডিসেম্বরে মুক্তিযুদ্ধের
কাহিনী নিয়ে নির্মিত এই ছবিটি ব্যবসা করবে।
আমি আশাবাদি দর্শকদের মন জয়
করতে সমর্থ হবে ‘একাত্তরের মা জননী’।’

searchfeed

http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত কিছু শব্দের পূর্ণরূপ

১। HTTP এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Transfer
Protocol.
২। HTTPS এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Transfer
Protocol Secure.
৩। IP এর পূর্ণরূপ— Internet Protocol.
৪। URL এর পূর্ণরূপ — Uniform Resource
Locator.
৫। USB এর পূর্ণরূপ — Universal Serial Bus.
৬। VIRUS এর পূর্ণরূপ — Vital Information
Resource
Under Seized.
৭। SIM এর পূর্ণরূপ — Subscriber Identity
Module.
৮। 3G এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation.
৯। GSM এর পূর্ণরূপ — Global System for
Mobile
Communication.
১০। CDMA এর পূর্ণরূপ — Code Divison Multiple
Access.
১১। UMTS এর পূর্ণরূপ — Universal Mobile
Telecommunication
System.
১২। RTS এর পূর্ণরূপ — Real Time Streaming
১৩। AVI এর পূর্ণরূপ — Audio Video Interleave
১৪। SIS এর পূর্ণরূপ — Symbian OS Installer
File
১৫। AMR এর পূর্ণরূপ — Adaptive Multi-Rate
Codec
১৬। JAD এর পূর্ণরূপ — Java Application
Descriptor
১৭। JAR এর পূর্ণরূপ — Java Archive
১৮। MP3 এর পূর্ণরূপ — MPEG player lll
১৯। 3GPP এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation
Partnership
Project
২০। 3GP এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation Project
২১। MP4 এর পূর্ণরূপ — MPEG-4 video file
২২। AAC এর পূর্ণরূপ — Advanced Audio
Coding
২৩। GIF এর পূর্ণরূপ — Graphic
Interchangeable
Format
২৪। BMP এর পূর্ণরূপ — Bitmap
২৫। JPEG এর পূর্ণরূপ — Joint Photographic
Expert
Group
২৬। SWF এর পূর্ণরূপ — Shock Wave Flash
২৭। WMV এর পূর্ণরূপ — Windows Media
Video
২৮। WMA এর পূর্ণরূপ — Windows Media
Audio
২৯। WAV এর পূর্ণরূপ — Waveform Audio
৩০। PNG এর পূর্ণরূপ — Portable Network
Graphics
৩১। DOC এর পূর্ণরূপ — Document (Microsoft
Corporation)
৩২। PDF এর পূর্ণরূপ — Portable Document
Format
৩৩। M3G এর পূর্ণরূপ — Mobile 3D Graphics
৩৪। M4A এর পূর্ণরূপ — MPEG-4 Audio File
৩৫। NTH এর পূর্ণরূপ — Nokia Theme(series
40)
৩৬। THM এর পূর্ণরূপ — Themes (Sony
Ericsson)
৩৭। MMF এর পূর্ণরূপ — Synthetic Music Mobile
Application File
৩৮। NRT এর পূর্ণরূপ — Nokia Ringtone
৩৯। XMF এর পূর্ণরূপ — Extensible Music File
৪০। WBMP এর পূর্ণরূপ — Wireless Bitmap
Image
৪১। DVX এর পূর্ণরূপ — DivX Video
৪২। HTML এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Markup
Language
৪৩। WML এর পূর্ণরূপ — Wireless Markup
Language
৪৪। CD এর পূর্ণরূপ — Compact Disk.
৪৫। DVD এর পূর্ণরূপ — Digital Versatile Disk.
৪৬। CRT — Cathode Ray Tube.
৪৭। DAT এর পূর্ণরূপ — Digital Audio Tape.
৪৮। DOS এর পূর্ণরূপ — Disk Operating System.
৪৯। GUI এর পূর্ণরূপ — Graphical User
Interface.
৫০। ISP এর পূর্ণরূপ — Internet Service
Provider.
৫১। TCP এর পূর্ণরূপ — Transmission
Control Protocol.
৫২। UPS এর পূর্ণরূপ — Uninterruptible Power
Supply.
৫৩। HSDPA এর পূর্ণরূপ — High Speed
Downlink
Packet Access.
৫৪। EDGE এর পূর্ণরূপ — Enhanced Data Rate
for
GSM [Global System for Mobile
Communication]
৫৫। VHF এর পূর্ণরূপ — Very High Frequency.
৫৬। UHF এর পূর্ণরূপ — Ultra High Frequency.
৫৭। GPRS এর পূর্ণরূপ — General Packet Radio
Service.
৫৮। WAP এর পূর্ণরূপ — Wireless
Application Protocol.
৫৯। ARPANET এর পূর্ণরূপ — Advanced
Research
Project Agency Network.
৬০। IBM এর পূর্ণরূপ — International Business
Machines.
৬১। HP এর পূর্ণরূপ — Hewlett Packard.
৬২। AM/FM এর পূর্ণরূপ — Amplitude/
Frequency
Modulation.
৬৩। WLAN এর পূর্ণরূপ — Wireless Local Area
Network

searchfeed
Anisur Rahaman
http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

এ্যাডসেন্স ব্যান হওয়ার প্রধান কারন সমূহ

১. নিজের এ্যাডে নিজে ভুলেও কোনদিন
ক্লিক করবেন না।
২. কাউকে আপনার এ্যাডে ক্লিক করার
জন্য উৎসাহিত করবেন না।
৩. গুগল থেকে প্রাপ্ত এ্যাডের যে কোড,
সে কোড পরিবর্তন করে নিজের মত
একটা ডিজাইন তৈরি করাও নিরাপদ নয়।
এটিও হতে পারে এ্যাডসেন্স বাতিল হওয়ার
অন্যতম একটি কারন।
৪. ছবির পাশে অনেকেই এ্যাড ব্যবহার
করে থাকেন, যা গুগলের নির্দেশনা মোতাবেক
অবৈধ। তাই কোন ছবির পাশে গুগলের এ্যাড
ব্যবহার করবেন না।
৫. এখানে ক্লিক করুন, ভিজিট করুন,
প্রিয়তে রাখুন ইত্যাদি লেখার পাশে গুগলের
এ্যাড ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
৬. কপি-পেষ্ট, পর্নো কিংবা অন্যান্য
যেকোন খারাপ বিষয়যুক্ত আর্টিকেলের
ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
৭. এ্যাডসেন্স একাউন্ট
খোলা রেখে আপনার এ্যাডসেন্স এ্যাড
ব্যবহৃত সাইট ওপেন করবেন না।
৮. আর যারা এসইও জানেন তাদের জন্য
বলছি, ভিজিটর বৃদ্ধির জন্য এসইও
করা ভাল কিন্তু রাতারাতি লাভের আশায়
ব্লাক এসইও থেকে বিরত থাকুন।
৯. Page CTR সর্বদা নিয়ন্ত্রনে রাখুন। Page
CTR স্বাভাবিক হচ্ছে ২ থেকে ৫ এর মধ্যে। ৫
এর উপরে গেলে কিছুটা ঝুকিপূর্ণ। Page CTR
১০ এর উপরে গেলে সম্পূর্ণ ঝুকিপূর্ণ।
যে কোন সময় ব্যান হতে পারে আপনার
একাউন্ট। এমন অবস্থা হলে সাইট
সাময়িকভাবে বন্ধ রেখে কয়েকদিন
পরে পুনরায় এ্যাকটিভ করুন।
১০. আইপি পরিবর্তন করে নিজের
এ্যাডে নিজে কখনই ক্লিক করবেন না।
১১. একের অধিক এ্যাডসেন্স একাউন্ট
ব্যবহার করা গুগলের ভাষায় হারাম।
১২. আপনার পেজ ভিউ এর তুলনায়
যদি ক্লিকের পরিমাণ বেশি হয় তাহলেও
বিপদ। এক্ষেত্রে আপনার সাইটটির
সিপিসি ৬/৭ হয়ে গেলে সতর্কতা অবলম্বন
করুন।
১৩. সাইবার ক্যাফে বা বন্ধুর
পিসিতে আপনার এডসেন্স একাউন্টে লগিন
করা থেকে বিরত থাকুন।
১৪. নিয়মিত আপনার এডসেন্স একাউন্ট
ভালভাবে চেক করবেন। হঠাৎ করে কেন
আপনার ব্লগে ক্লিক বেড়ে গেল তা চেক
করবেন। চেক করে সেটি এডসেন্সকে মেইল
করে জানান।
http://www.facebook.com/BTtutorial

YouTube থেকে Video Download

ইউটিউব
ভিডিও আপনি বিভিন্নভাবে ডাউনলোড
করতে পারেন। তবে নতুন হিসেবে সবচেয়ে সহজ
উপায় হলো আপনার লিংক এর আগে শুধুমাত্র
১০ বা ss যোগ করে নতুন
সাইটে গিয়ে ভিডিওটি ডাউনলোড করা।
প্রক্রিয়াটি নিচে উপস্থাপন করা হলো।
ধরুন আপনি যে ভিডিওটি ডাউনলোড করবেন
তার লিংকটি এরকম-

mobile
http://m.youtube.com/watch?v=UUTRFBWkkhE
এখন আপনি এই লিংক এর আগে ১০ বা ss যোগ
করবেন ফলে আপনার
লিংকটি দেখতে হবে এরকম-
computer
http://www.10youtube.com/watch?v=UUTRFBWkkhE
http://www.ssyoutube.com/watch?v=UUTRFBWkkhE
mobile
http://m.10youtube.com/watch?v=UUTRFBWkkhE
http://m.ssyoutube.com/watch?v=UUTRFBWkkhE
এবার কী বোর্ড থেকে এন্টার প্রেস করুন। নতুন
একটি পেজ ওপেন
হবে যেখানে আপনি ডাউনলোড অপশন
দেখতে পাবেন। এছাড়া আপনি আপনার
পছন্দমত ফরম্যাট সিলেক্ট করে ডাউনলোড
করার সুযোগ পাবেন এই পেজ থেকে ।
এভাবে খুব সহজে ডাউনলোড করে নিন আপনার
পছন্দের ভিডিওটি। আমি ss ইউস করি।
.
.
ফেসবুকে শেয়ার করো হয়ত তোমার বন্ধুর কোন উপকারে আসতে পারে । শেয়ার করার নিয়ম click on Facebook > share
Facebook Page

সাধারণ জ্ঞান

* গঙ্গার পানি বণ্টন
চুক্তিতে বাংলাদেশের পক্ষে কে স্বাক্ষর
করেন?
-বাংলাদেশের তৎকালীন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
* গঙ্গার
পানি বণ্টন চুক্তি কত বছরের জন্য
করা হয়?
-৩০ বছরের জন্য।
* গঙ্গার
পানি বণ্টন চুক্তি কেন করা হয়?
-গঙ্গার
পানির ন্যায্য বণ্টনের জন্য।
* গঙ্গার
পানি বণ্টন চুক্তি কখন করা হয়?
-১২
ডিসেম্বর, ১৯৯৬, বেলা ১১-৫৫ মিনিটে।
* গঙ্গা নদীতে পানির প্রবাহ ৭০ হাজার
কিউসেক হলে বাংলাদেশ কতটুকু
পানি পাবে?
-৩৫ হাজার কিউসেক।
*গঙ্গা নদীতে পানির প্রবাহ ৭০-৭৫
হাজার কিউসেক হলে কোন দেশ কতটুকু
পানি পাবে?
-ভারত পাবে ৪০ হাজার
কিউসেক এবং বাংলাদেশ পাবে বাকিটুকু।
*আটলান্টিক সনদ কবে স্বাক্ষরিত
হয়?
-১৪ আগস্ট, ১৯৪১ সালে।
*আটলান্টিক সনদ কোন কোন দেশের
মধ্যে স্বাক্ষরিত হয়?
-ইংল্যান্ড ও
যুক্তরাষ্ট্র।
*আটলান্টিক
সনদে ইংল্যান্ডের পক্ষে কে স্বাক্ষর
করেন?
-উইনস্টন চার্চিল।
* আটলান্টিক
সনদে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে কে স্বাক্ষর
করেন?
-ফ্রাঙ্কলিন ডিলানো রুজভেল্ট।
* আটলান্টিক সনদের মূল লক্ষ্য
কী ছিল?
-দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের
প্রেক্ষাপটে বিশ্বের শান্তি ও
সমৃদ্ধি রক্ষার জন্য কাজ করা।
*মানবাধিকার চুক্তি কবে স্বাক্ষরিত
হয়?
-১০ ডিসেম্বর, ১৯৪৮।
*মানবাধিকার চুক্তিতে কোন সংঘ
স্বাক্ষর করে?
-জাতিসংঘ।
*মানবাধিকার চুক্তি কোথায় স্বাক্ষরিত
হয়?-জাতিসংঘের সদর দফতরে।
*মানবাধিকার চুক্তির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য
কী ছিল?
-মানবজাতির
মর্যাদা রক্ষা করা।
* পারমাণবিক
পরীক্ষা নিষিদ্ধকরণ
চুক্তি কবে স্বাক্ষরিত হয়?
-৬ আগস্ট,
১৯৬৩।
* CTBT-এর পক্ষে কয়টি দেশ
ভোট দেয়?
-১৫৮টি।
* কোন কোন দেশ
পারমাণবিক পরীক্ষা নিষিদ্ধকরণ
চুক্তিতে স্বাক্ষর করে?
-যুক্তরাষ্ট্র,
যুক্তরাজ্য ও সাবেক সোভিয়েত
ইউনিয়ন।

about internet

► HTTP — Hyper Text Transfer Protocol.
► HTTPS — Hyper Text Transfer Protocol
Secure.
► IP — Internet Protocol.
► URL — Uniform Resource Locator.
► USB — Universal Serial Bus.
► VIRUS — Vital Information Resource Under
Seized.
► 3G — 3rd Generation.
► GSM — Global System for Mobile
Communication.
► CDMA — Code Divison
Multiple Access.
► UMTS — Universal Mobile
Telecommunication System.
► SIM — Subscriber Identity Module.
► AVI — Audio Video Interleave
► RTS — Real Time Streaming
► SIS — Symbian OS Installer File
► AMR — Adaptive Multi-Rate Codec
► JAD — Java Application Descriptor
► JAR — Java Archive
► 3GPP — 3rd Generation Partnership Project
► 3GP — 3rd Generation Project
► MP3 — MPEG player lll
► MP4 — MPEG-4 video file
► AAC — Advanced Audio Coding
► GIF — Graphic Interchangeable Format
► JPEG — Joint Photographic Expert Group
► BMP — Bitmap
► SWF — Shock Wave Flash
► WMV — Windows Media Video
► WMA — Windows Media Audio
► WAV — Waveform Audio
► PNG — Portable Network Graphics
► DOC — Document (Microsoft Corporation)
► PDF — Portable Document Format
► M3G — Mobile 3D Graphics
► M4A — MPEG-4 Audio File
► NTH — Nokia Theme(series 40)
► THM — Themes (Sony Ericsson)
► MMF — Synthetic Music Mobile Application
File
► NRT — Nokia Ringtone
► XMF — Extensible Music File
► WBMP — Wireless Bitmap Image
► DVX — DivX Video
► HTML — Hyper Text Markup Language
► WML — Wireless Markup Language
► CD — Compact Disk.
► DVD — Digital Versatile Disk.
► CRT — Cathode Ray Tube.
► DAT — Digital Audio Tape.
► DOS — Disk Operating System.
► GUI — Graphical User Interface.
► ISP — Internet Service Provider.
► TCP — Transmission Control Protocol.
► UPS — Uninterruptible Power Supply.
► HSDPA — High Speed Downlink Packet
Access.
► EDGE — Enhanced Data Rate for GSM [Global
System for Mobile Communication]
► VHF — Very High Frequency.
► UHF — Ultra High Frequency.
► GPRS — General Packet Radio Service.
► WAP — Wireless Application Protocol.
► ARPANET — Advanced Research Project
Agency Network.
► IBM — International Business Machines.
► HP — Hewlett Packard.
► AM/FM — Amplitude/ Frequency
Modulation.

Gmail এর কিছু গোপন আকর্ষণ

১. জিমেইল ঠিকানায় ডটের কোনো গুরুত্ব
নেইকারো জিমেইল ঠিকানায়
যদি আপনি ডট দেখেন,
তাহলে সে বিষয়ে কোনো গুরুত্ব না দিলেও
চলবে। কারো ই-মেইল অ্যাড্রেস যদি হয়
bangladesh@Gmail.com
তাহলে আপনি তার বদলে লিখতে পারেন
bangla.desh@Gmail.com কিংবা আরেকটু
বেশি লিখতে চাইলে দিতে পারেন
b.a.n.g.l.a.d.e.s.hGmail.com.এতে আপনার
ই-মেইল প্রাপকের
বিষয়ে কোনো পার্থক্য হবে না।
২. মেইল ফেরত আনুনজিমেইলের
বিনামূল্যের অ্যাপ বুমেরাং ব্যবহার
করে আপনি এমন একটি ই-মেইল
পাঠাতে পারবেন, যা নির্দিষ্ট সময়
পরে আপনার ই-মেইলে তা আবার ফেরত
আসবে। এজন্য আপনি পছন্দমতো সময়ও
নির্দিষ্ট করে দিতে পারবেন। এ
সময়ে মেইল প্রাপক সেটি ওপেন
না করলে মেইলটি আপনার কাছে ফেরত
আসবে।
৩. নির্ণয় করুন আপনার মেইল
কে ছড়ায়আপনি যদি মেইলের ভেতর ‘+’
চিহ্ন লেখেন তাহলে সেই মেইলটি ছড়াল
কিনা তা নির্ণয় করতে পারবেন। ধরুন,
আপনার
একটি শপিং ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট
করতে হবে। কিন্তু আপনি সেই সাইটটির
মাধ্যমে আপনার মেইল স্প্যামারদের
কাছে ছড়ায় কি না, তা দেখতে চান,
তাহলে মেইলটিতে ‘+’ চিহ্ন ব্যবহার
করতে পারেন। যদি আপনার ইমেইলের
অ্যাড্রেস হয় bangladesh@Gmail.com
তাহলে সেই
শপিং ওয়েবসাইটে দেওয়া ইমেইল
অ্যাড্রেসে আপনি লিখতে পারেন
bangladesh+Shopping@Gmail.com.
এরপরও আপনি তাদের মেইল পাবেন,
তবে সেখানে আপনার অ্যাড্রেস
দেখা যাবে bangladesh
+Shopping@Gmail.com. আর
আপনি যদি কোনো স্প্যাম
মেইলে আপনার ইমেইল ঠিকানা পান
bangladesh+Shopping@Gmail.com
তাহলে বুঝবেন আপনার ইমেইল
ঠিকানাটি ছড়িয়েছে সেই
শপিং ওয়েবসাইটটি।
৪. ডেস্কটপেই ইমেইলের
নোটিফিকেশনআপনি যদি অনেকবার
ইমেইল চেক করেন তাহলে ডেস্কটপেই
ইমেইল নোটিফিকেশন গ্রহণ করুন।
এতে যখনই কোনো ই-মেইল আসবে তখনই
আপনি তা জানতে পারবেন। এছাড়া এর
মাধ্যমে নির্দিষ্ট কোনো লেবেলের ইমেইল
ডেস্কটপ নোটিফিকেশন পাওয়াও সম্ভব।
এজন্য আপনার ইনবক্সের গিয়ার
আইকনে ক্লিক করুন। এরপর সেটিংস-এ
ক্লিক করুন। এরপর স্ক্রল
করে একেবারে নিচের ডেস্কটপ
নোটিফিকেশন-এ ক্লিক করুন।
৫. একসঙ্গে অনেকগুলো ই-মেইল ডিলিট
করুনআপনার ই-মেইল ইনবক্সের ভেতর
প্রতিটি ইমেইলেরই একটি করে নম্বর
আছে। এগুলো ব্যবহার
করে একসঙ্গে অনেকগুলো মেইল
প্রদর্শন ও ডিলিট করা সম্ভব। যেমন ১
থেকে ২৫ নম্বর মেইল ডিলিট
করতে চাইলে শুধু সেগুলোই
একটি পেজে প্রদর্শন করুন। তারপর
সিলেক্ট অল-এ ক্লিক
করে সবগুলো সিলেক্ট করুন। এরপর
প্রয়োজনে সেগুলো ট্র্যাশক্যানে ক্লিক
করলেই সেগুলো দূর হয়ে যাবে আপনার
চোখের সামনে থেকে।
৬. মেইল পাঠানোর পরে তা ‘আনডু’
করাগুরুত্বপূর্ণ একটা মেইল পাঠানোর পর
আপনি যদি বুঝতে পারেন, যে সেটি ভুল
মানুষের কাছে পাঠিয়েছেন, তাহলে তার
মতো বিব্রতকর পরিস্থিতি আর হয় না।
তবে এ থেকেও বাঁচতে পারেন, যদি আপনার
‘আনডু সেন্ড’ অপশনটি চালু করা থাকে।
এজন্য ‘সেটিংস’ থেকে ‘ল্যাবস’-এ ক্লিক
করতে হবে। এরপরসেখানে স্ক্রল
করে নিচে নামলে পেয়ে যাবেন ‘আনডু সেন্ড’
অপশনটি। এটি ‘এনাবল’ করার পর ‘সেভ
চেঞ্জেস’-এ ক্লিক করতে ভুলবেন না।
৭. ইনবক্স গুছিয়ে রাখতে ব্যবহার করুন
ভিন্ন রঙের স্টারজিমেইল
ইনবক্সে যদি অনেক ধরনেরমেইল
থাকে আর
সেগুলো আপনি গুছিয়ে রাখতে চান,
তাহলে এভাবে পরিবর্তন করুন। প্রথমেই
যান গিয়ার চিহ্নতে। এরপর ‘জেনারেল’
এবং স্ক্রল ডাউন করে ‘স্টারস’ খুঁজে বের
করুন। এখান থেকে আপনি নিতে পারবেন
ছয়টি ভিন্ন রঙের স্টার ও
ছয়টি আলাদা সিম্বল।

সংযোগ ছাড়াই দেখা যাবে সব টিভি চ্যানেল

ইন্টারনেট এ ঘুরতে ঘুরতে এক দারুন খবর খুঁজে পেলাম। ভাবলাম, BTtutorial এ শেয়ার করি। কেবল (তার) ছাড়াই বাড়িতে বসে সরাসরি টেলিভিশন দেখার প্রযুক্তির মাধ্যমে দেখা যাবে দেশি ও বিদেশি সব টেলিভিশন চ্যানেল। ডিরেক্ট-টু-হোম (ডিটিএইচ) প্রযুক্তির মাধ্যমে বাড়িতে বসেই গ্রাহকযন্ত্রের মাধ্যমে দেশি ও বিদেশি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল দেখা যাবে। বেক্সিমকো কমিউনিকেশনস লিমিটেড এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানায়।

এ উপলক্ষে বুধবার বেক্সিমকোর প্রধান কার্যালয়ে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনস লিমিটেডের সঙ্গে রাশিয়ার জিএস কোম্পানির চুক্তি সই হয়।  এ বিষয়ে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনস জানায়, ২০১৪ সালের শেষের দিকে তারা এই প্রযুক্তির বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করবে। প্রতি বছর চার লাখ নতুন গ্রাহকের কাছে সেবা পৌঁছানোর প্রাথমিক লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে কোম্পানিটি। তবে যাত্রা শুরুর প্রথম বছরেই তিন লাখ গ্রাহক এই সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, প্রতি বছর চার লাখ নতুন গ্রাহকের কাছে সেবা পৌঁছানোর প্রাথমিক লক্ষ্য নিয়েই কাজ করছে বেক্সিমকো কমিউনিকেশনস লিমিটেড। এ প্রকল্প বাস্তবায়নে বেক্সিমকোর সঙ্গে অংশীদারিত্ব করছে রাশিয়ার জিএস গ্রুপ নামে বৃহৎ শিল্প ও বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, (ডিটিএইচ) সুবিধা পেতে গ্রাহককে সম্প্রচার কোম্পানি একটি ডিশ ও রিসিভার সেট প্রদান করবে যা, ওই ডিশের মাধ্যমে সিগন্যাল গ্রহণ করে রিসিভিং সেটের সাহায্যে বিভিন্ন চ্যানেল টেলিভিশন সেটে দেখা যাবে। এভাবে গ্রাহক তার কাঙ্ক্ষিত চ্যানেলগুলো দেখতে পারবেন।

সুবিধা হচ্ছে, গ্রাহক পছন্দ করা চ্যানেলগুলো বাছাই করতে পারবেন। কেবল (তার) সংযোগের মাধ্যমে পাওয়া ছবির চেয়ে এর মান হবে অনেক উন্নত। কেবলের মাধ্যমে টিভি দেখার সময় সিগন্যাল ব্রেক হয়। ডিটিএইচ প্রযুক্তিতে সিগন্যাল ব্রেক হবে না। উন্নতমানের সেবা পাওয়া যাবে। গ্রাহক তার পছন্দ মতো চ্যানেল কিনে মাসিক খরচ কমিয়ে আনতে পারবেন।

গুগল থেকে খুব সহজে সার্চ করুন

১। পছন্দের গান কিংবা মুভি খুজবেন,
টেকনিকটি জেনে নিনঃ
বিভিন্ন ফরম্যাটের গান খুজে বের করা,
নির্দিষ্ট বিশেষ কোন গান খোজা,
কিংবা গানের পুরো অ্যালবাম খুজে বের
করবেন, এ ক্ষেত্রেও গুগলের বিকল্প কেউ
আছে কিনা জানা নাই।
পদ্ধতিঃ আপনি জেমসের গান খুজছেন।
তাহলে গুগলের সার্চ বক্সে গিয়ে লিখুন,
intitle:”index of” (mp3|mp4|avi) James”।
যদি বিশেষ কোন গান খুজবেন , ফরমেটটি হবে:
“index of” (mp3|mp4|avi) bangladesh
james” কোন গানের পুরো অ্যালবাম
লাগবে তখন লিখুন “index of” (mp3|mp4|
avi) piano james । অন্যান্য ক্ষেত্রেও এই
টিপস কাজে লাগানো যাবে।
২। পিডিএফ ফাইল খুজে বের করুনঃ
বিভিন্ন কাজে পিডিএফ ফাইল খুজে বের করার
প্রয়োজন হয়। এই কাজটিও গুগল অত্যন্ত
ভালভাবেই করে দেয়।
পদ্ধতিঃ যে সম্পর্কিত পিডিএফ
খুজতে চাচ্ছেন, সেটি লিখে fileType:pdf
লিখতে হবে। যেমন: seo fileType:pdf
৩। কোন কিছুর অর্থ জানতে চানঃ
কোন কিছুর অর্থ বুঝছেননা। অন্য কারও কাছ
থেকে সাহায্য না চেয়ে গুগলের কাছ থেকেই
সাহায্য নিন।
পদ্ধতিঃ শুধু শব্দটির পূর্বে define লিখে দিন।
যেমনঃ define: scholarship
৪। বিভিন্ন ইউনিট পরিবর্তনে গুগলকে ডাকুনঃ
উচ্চতা, ওজন এবং আয়তন ইত্যাদি রাশির
এককের রূপান্তর করতে গুগল ব্যবহার
করতে পারেন।
পদ্ধতিঃ সার্চ বক্সে যেরকম পরিবর্তন
করতে চান সেটি লিখুন।। যেমনঃ kg in pound,
inch in km
৫। কারেন্সি কনভার্টের কাজেও গুগলের
সাহায্য নিনঃ
প্রায়ই সময়ই ডলার রেট জানার জন্য অন্যের
কাছ হতে সাহায্য নিতে হয়। এখন থেকে এ
কাজটির জন্য গুগলকে ডিস্টার্ব করবেন।
পদ্ধতিঃ সার্চ বক্সে প্রয়োজনীয়
মুদ্রা লিখে সার্চ দিন। ফরমেট টি হবেঃ USD in
BDT
৬. কোন এলাকার সময় জানতে গুগলঃ
কোন এলাকার স্থানীয় সময়
জানতে কারো সহযোগিতার দরকার নাই
কিংবা কোন সংখ্যা দিয়ে ক্যালকুলেশন
করারও দরকার নাই। গুগল এ
কাজে আপনাকে সাহায্য করবে।
পদ্ধতিঃ গুগলে গিয়ে নির্দিষ্ট স্থানের নামের
আগে “time” শব্দটি লিখুন।
যেমনঃ time ‍Sydney লিখে সার্চ করুন।
web search গুগল থেকে খুব সহজে সার্চ করুন,
জেনে নিন কিছু এক্সক্লুসিভ টিপস..!
৭. ঘরে বসে যেকোন জায়গার আবহাওয়ার
রিপোর্ট খুজুনঃ
স্থানীয় সময় বের করার মতই যেকোন এলাকার
আবহাওয়ার তথ্য জানতে গুগল
আপনাকে বন্ধুর মত সাহায্য করবে।
পদ্ধতিঃ গুগলে গিয়ে নির্দিষ্ট স্থানের নাম
লিখুন এবং নামের আগে “weather”
শব্দটি লিখুন। যেমনঃ weather ‍Sydney
লিখে সার্চ করুন।
৮. যেকোন এলাকার সূর্যদয় ও সূর্যাস্তের
সময় জানুনঃ
ঢাকাতে বসে অন্য দেশের অন্য কোন শহরের
সূযদয় এবং সূযাস্তের সময় জানতে চান।
গুগলকে জিজ্ঞাসা করুন।
পদ্ধতিঃ যে শহরে সূযদয় ও সূযাস্তের সময়
জানতে চান, সার্চবক্সে সেই শহরের নাম লিখুন,
তার আগে Sunrise বা Sunset শব্দটি লিখুন।
যেমনঃ sunset : sydney
৯। ক্যালকুলেটরের কাজ করা যাবে গুগলের
মাধ্যমেঃ
হিসেব নিকেশ সহ যা যা কাজ
করতে ক্যালকুলেটর প্রয়োজন হয় আপনার,
সেই কাজগুলো এখন থেকে গুগলের সাহায্য
নিয়েই করতে পারবেন। কাজটি অনেক সহজও।
পদ্ধতিঃ গুগলের সার্চে একটি হিসাব টাইপ
(200 + 500 =) করুন, তাহলে গুগল ক্যালকুলের
হাজির হবে।
১০. নির্দিষ্ট একটি সীমানাকে টার্গেট
করে খুজে বের করুনঃ
আপনি যদি মিরপুরে অবস্থিত সকল রেস্টুরেন্ট
খুজে বের করতে চান। তাহলে সেটি খুব
সহজে বের করা সম্ভব।
পদ্ধতিঃ প্রথমে লিংকটিতে যেতে হবে।
https://plus.google.com/local। এবার সার্চের
ঘরে restaurant এবং ঠিক পাশেই লোকেশন
লেখার জায়গা রয়েছে। সেখানে লিখুনঃ Mirpur,
Dhaka, Bangladesh লিখে সার্চ করুন।
মিরপুরে অবস্থিত সকল রেস্টুরেন্টগুলোর
তথ্য খুজে পেয়ে যাবেন।
১১. ফোন নাম্বারের মাধ্যমে এর মালিকের
পরিচয় খুজে বের করুনঃ
কোন ফোন নাম্বার জানা থাকলে তার মালিকের
নাম খুজে বের করার ক্ষেত্রে গুগল
পদ্ধতিঃ কোন ফোন নাম্বার এবং তার
আগে শুধুমাত্র এরিয়া কোড যোগ
করে গুগলে সার্চ করুন। সেই নাম্বারের
মালিকের নাম ও ঠিকানা খুজে বের
করে দিবে এই গুগল।
১২।বিমানের ফ্লাইট শিডিউল এবং মালপত্র
খুজতেও গুগলের সাহায্য নিনঃ
যেকোন ফ্লাইটের বর্তমান
অবস্থা জানতে গুগলই যথেষ্ট।
এবং একইভাবে বিভিন্ন কুরিয়ার সার্ভিসের
মাধ্যমে পাঠানো মালপত্রে অবস্থান
সম্পর্কেও জানতে চাইলে গুগল
আপনাকে হতাশ করবেনা।
পদ্ধতিঃ সার্চের বক্সে প্লেন এবং তার
ফ্লাইটের নাম্বার প্রবেশ করিয়ে এর বর্তমান
অবস্থান এবং পৌছানোর সময়
সম্পর্কে জানা যায়। আর কুরিয়ার সার্ভিসের
ক্ষেত্রে UPS, FedEx অথবা USPS
এবং সাথে এর ট্রাকিং নাম্বারটি লিখে সার্চ
দিন। পেয়ে যাবেন তথ্য। ফরমেটটি হবেঃ fly
dubai 456
১৩. যেকোন ভাষাতে ট্রান্সলেট করুনঃ
Google Language Tools ( https://
translate.google.com.bd) এর
সাহায্যে যেকোন ভাষার লেখাকে অন্য
যেকোন ভাষাতে পরিবর্তন করে দেখার জন্য
গুগলের বিকল্প কোথাও নাই।
পদ্ধতিঃ translate.google.com.bd এ
গিয়ে বামের খালি ঘরে মুল লেখাটি পোস্ট
করুন। তারপর যে ভাষাতে ট্রান্সলেট করতে চান,
সেটি সিলেক্ট করে Translate এ ক্লিক করলেই
ডান পাশের খালি ঘরে সেটি দেখাবে।
১৪. হুবহু কীওয়ার্ড ব্যবহার করা ওয়েবসাইটের
লিস্ট খুজে বের করাঃ
এসইওর কাজে নির্দিষ্ট কীওয়ার্ড
ব্যবহারকারীদের লিস্ট বের করে কম্পিটিশনের
অবস্থা বুঝে তারপর র্যাংকিংয়ের
পরিকল্পনা করা হয়। হুবহু সেই কীওয়ার্ড
ব্যবহার করেছে, এরকম ওয়েবসাইট খুজে বের
করতে গুগলই যথেষ্ঠ, অন্য কোন টুলস
ব্যবহার করার প্রয়োজন নাই।
পদ্ধতিঃ কীওয়ার্ডটির দু’পাশে কোটেশন মার্ক
ব্যবহার করুন। যেমনঃ “seo course in
Bangladesh” দিয়ে গুগলে সার্চ করলে এই
কীওয়ার্ড যেই যেই ওয়েবসাইট হুবহু ব্যবহার
করেছে, গৃগল তাদের লিস্ট রেজাল্টে প্রকাশ
করবে।
১৫। নির্দিষ্ট একটি ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট
কীওয়ার্ড সম্পর্কিত সকল পোস্ট খুজে বের
করাঃ
শুধুমাত্র কোন নির্দিষ্ট একটি ওয়েবসাইট
হতে নির্দিষ্ট কীওয়ার্ডের সকল পোস্ট
খুজে বের করার প্রয়োজন হয় অনেক সময়।
কাজটি খুজে বের ক